Sun, 21 Oct, 2018
 
logo
 

পাক বাহিনীর মুখোমুখি না.গঞ্জের দামাল ছেলেরা

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বীরমুক্তিযোদ্ধা শহীদ আবুবকর ছিদ্দিক, পিতা- মরহুম আবদুল করিম বেপারী, মাতা- অছিয়া খাতুন, গ্রাম- আলীনগর, মদনগঞ্জ, বন্দর ১৯৪৯ সালের ২১ শে জুলাই জম্ন গ্রহণ করেন।

৭১ সালে ভারত গিয়ে পূর্বাঞ্চলীয় হেডকোর্য়াটার (মেলাঘর ক্যাম্প) নেভাল কার্যক্রমের উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে সুইমিং প্লাটুনের অর্ন্তভূক্ত হয়ে বিভিন্ন এলাকায় যুদ্ধ করেন। কুমিল্লা জেলার দেবিদ্ধার উপজেলার কালীবাড়ীর সন্নিকটে পাকসেনা ও রাজাকারদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে অংশগ্রহণকালে পাকবাহিনীর গুলিতে তিনি শহীদ হন। তাঁকে কুমিল্লার দেবিদ্বার এলাকায় সমাহিত করা হয়। ছাত্র জীবনে তিনি কবিতা লিখতেন এবং ভাল স্কাউট কর্মী ছিলেন।

(২) বীর মুক্তিযোদ্ধাশহীদ কামাল উদ্দিন
শহীদ কামাল উদ্দিন, পিতা- মরহুম মোঃ কালু সরকার, মাতা ফিরোজা বেগম ১৯৪৬ সালে নয়াপাড়া মদনগঞ্জ, বন্দরে জন্মগ্রহণ করেন। ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত তিনি অধ্যয়ন করেন। যুদ্ধ অংশ গ্রহণের জন্য প্রশিক্ষণ নিতে তিনি ৩ রা এপ্রিল ৭১ তিনি ভারতে চলে যান। ভারতের মেঘালয়ের ট্রেনিং ক্যাম্প হতে প্রশিক্ষণ নিয়ে বন্দর থানার সোনাকান্দা ইউনিয়নের বিভিন্ন খন্ড খন্ড যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে। ৭১ সালের ২৪ শে ডিসেম্বর এলাকার ওৎ পেথে থাকা আলবদর ও রাজাকারদের হাতে গুপ্ত হত্যার স্বীকার হন।

(৩) বীর মুক্তিযোদ্ধাশহীদ মোঃ মোশারফ হোসেন
শহীদ মোঃ মোশারফ হোসেন, পিতা মরহুম আবুল মাজন, মাতা- মাহমুদা বেগম, গ্রাম- আলী সাহারদী, মদনগঞ্জ, বন্দর, ১৯৫০ সালে ১০ ই নভেম্বর নিজ গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন।
যুদ্ধে অংশগ্রহণের জন্য তিনি ৭১ সালের এপ্রিলে বাড়ী ত্যাগ করে ৬ নং সেক্টর কমান্ডের অধীনে মেজর নওয়াজেশের কমান্ডে উইং কমান্ডার এক বাশার বীর উত্তম এর অধীনে সক্রিয় যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ৭১ সালের ৯ ই ডিসেম্বর সিরাজগঞ্জের রেল ষ্টেশনে পাকহানাদারদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে তিনি শাহাদাৎ বরণ করেন। ঐ যুদ্ধে পাকহানাদাররা সেখানে আত্মসমর্পনে বাধ্য হয়। শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ এস,এস, সি পাশ ছিলেন।

(৪) বীর মুক্তি যোদ্ধা শহীদ মোঃ আওলাদ হোসেন
শহীদ মোঃ আওলাদ হোসেন খান, পিতা- মোঃ আলমাস উদ্দিন খান, গ্রাম- সোনাচরা ১ নং ঢাকেশ্বরী কটন মিলস, বন্দর, জেলা- নারায়ণগঞ্জ।
১৯৭১ সালে মুক্তি পাগল সেনারা যখন চারিদিকে যুদ্ধের দামামা বাজিয়ে পাকসেনাদের একের পর এক পর্যুদস্ত করছিল। ঠিক সেই সময়েই কুমিল্লার চৌদ্দ গ্রাম উপজেলায় বেতিয়ারা গ্রামের রনাঙ্গনে সম্মুখে যুদ্ধের

(৫) বীর মুক্তিযোদ্ধাশহীদ মোঃ ওয়াহিদুর রহমান
শহীদ মোঃ ওয়াহিদুর রহমান, পিতামৃত- মতিউর রহমান, মুক্তারকান্দি ডিক্রীরচর ২৯ শে নভেম্বর পাক বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন। কমান্ডার মোঃ সিরাজুল ইসলাম দেওভোগ, নারায়ণগঞ্জ তাকে সানাক্ত করেন। তাকে মুক্তারকান্দি কবরস্থানে দাফন করা হয়। শহীদের ব্যক্তিগত নম্বর- ০১০৪০১০২০২।

(৬) বীর মুক্তিযোদ্ধাশহীদ আঃ রউফ (বাচ্চু মিয়া)
শহীদ আঃ রউফ (বাচ্চু মিয়া), পিতা- হাবিবুর রহমান, ৯৬ ব্রাঞ্চ রোড, মজিদ খানপুর, নারায়ণগঞ্জ। তিনি সোনারগাঁও পাক বাহিনীর হাতে শহীদ হন। শহীদের ব্যক্তিগত নম্বর- ০১০৪০১০১৯৬।

৭। বীর মুক্তিযোদ্ধাঃ শহীদ লক্ষ্ণীনারায়ণগঞ্জ দেবনাথ।শহীদ লক্ষীনারায়ণ দেবনাথ।
শহীদ লক্ষীনারায়ণগঞ্জ দেবনাথ, পিতা-ধীরেন্দ্র নাথ দেবনাথ, ৮৬ মোবারক শাহ রোড, খানপুর, নারায়ণগঞ্জ। ১২ ই জুলাই নারায়ণগঞ্জ শহরে গেরিলা অপারেশনে শহীদ হন। মোঃ গিয়াস উদ্দিন বীর প্রতীক, তল্লা, নারায়ণগঞ্জ তাকে সনাক্ত করেন। পাক বাহিনীদের হাত থেকে তার লাশ পাওয়া যায়নি।
তার ব্যক্তিগত নম্বর ০১০৪০১০১১৮। (সূত্র: জেলা প্রশাসন)

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম