মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০২৪
Led02জেলাজুড়েবন্দররাজনীতি

সমালোচকরা কথা না শুনে রিমোট কন্ট্রোল এ চলছে: খোকন সাহা

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা বলেন, আনোয়ার ভাইয়ের সাথে আমার অনেক সময় মতের অমিল হয়। তাই বলে এক সাথে কাজ করা বন্ধ করি নাই। দলের জন্য একসাথে বসে পরামর্শ করে আমরা বিভিন্ন প্রবলেম সলভ করি। নেত্রী বলেছেন তোমরা দলের হয়ে কাজ করবা, ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলের জন্য কাজ করবা। আমরা নেত্রীকে কথা দিয়েছি। আমরা নেত্রীকে বলেছি, আপনি যেদিন চাইবেন শুধু একটা খবর পাঠাবেন, শারীরিক অসুস্থতা-বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে চলে আসবো। আমরা নেত্রীর জন্য রাজনীতি করি, নিজের জন্য করি না। যেখানে কমিটি বানিজ্যের গন্ধ আসে, আমি আর আনোয়ার ভাই এর বিপরিতে চলি। অনেকের তবদির ছিলো, আমি কারোটা শুনি নাই। ৩০বছর যাবত কমিটি হয় নাই, তাই মনটাকে শক্ত করে যোগ্য ২ জনকে বেছে নিয়েছি। একারণে আনেকেই বাদ পরেছেন।

সোমবার (১ জুলাই) বিকেলে নবীগঞ্জ প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও প্লাটিনাম জয়ন্তী উপলক্ষে ২৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এ সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড খোকন সাহা। অনুষ্ঠানে ২৪ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বুলবুল আহামেদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন জনির সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নুরুল ইসলাম চৌধুরী ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির মৃধা।

সভায় এড. খোকন সাহা বলেন, বার বার তাদের বলেছি আমাদের ভুল হতে পারে। আপনারা আসেন, একসাথে মিলে কাজ করি। তারা নারায়ণগঞ্জের একটি অংশ নিজেদের আয়ত্বে রেখেছে। যারা সমালোচনা করে, এই কমিটি বাতিল করার চেষ্টা করছে, পারে নাই। তারা আমাদের কথা না শুনে রিমোট কন্ট্রোল এ চলতেসে। ছোটরা ভুল করতে পারে, আমি আর আনোয়ার ভাই ভুল করতে পারি না। এমন একজন ব্যক্তি আছেন, যিনি ২১ বছর যাবৎ ক্ষমতায় থেকে দলীয় বিভক্তি করার চেষ্টা করেছেন। তিনি আমাকে মিথ্যাও বলেছেন। মনে রাখবেন, দল থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে নেতাকর্মীদের সেই সিদ্ধান্ত মানতে হবে, একসাথে মিলে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের অর্জন ইতিহাসে লিখে শেষ করা যাবে না। এদেশের সাথে আওয়ামী লীগ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর বাংলাদেশ অন্ধকারে ধাবিত হয়েছিল। নেত্রী শেখ হাসিনা এসে বাংলাদেশের হাল ধরেছেন, পুরো বিশ্বে বাংলাদেশকে উচু করে ধরেছেন। বাইরের দেশে এখন বলা হয়, উন্নয়ন কিভাবে করতে হয় তা দেখবেন বাংলাদেশে। বাংলাদেশে যান, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সেই দেশের উন্নয়নের ধারা স্রোতশীল।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শেখ হায়দার আলী পুতুল, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা, দপ্তর সম্পাদক বিদ্যুৎ কুমার সাহা, মহানগর তাতী লীগের আহবায়ক চৌধুরী এইচ এম শাহেদ, ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহিন, বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা খান মাসুদ প্রমুখ।

RSS
Follow by Email