শুক্রবার, এপ্রিল ১৯, ২০২৪
Led03রাজনীতি

শামীম ওসমানের চেয়ে বড় ঘন্টা বাজাতে চাচ্ছে বিএনপি!

#বাঁধা না আসলে দ্বিগুন লোক হবে: গোলাম ফারুক খোকন
#১৬ তারিখের চেয়ে বড় হবে: এড. টিপু
#সমস্ত রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে: রাজিব

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বিভিন্ন সময় নারায়ণগঞ্জে বিশাল সভা-সমাবেশের মাধ্যমে সারা দেশে ঘন্টা বাজানোর কথা বলে থাকেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও জনপ্রিয় সংসদ সদস শামীম ওসমান। সম্পৃতি এক সমাবেশে লক্ষাধীক লোকের সমাগম ঘটিয়ে সেই ঘন্টা বাজিয়েছেনও তিনি। যদিও সেই সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের অনেক শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন না। তবে, এবার তার চেয়ে বড় সমাবেশের প্রস্ততি শুরু করেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। এমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষ নেতারা।

কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সামনে ওই সামাবেশ করার কথা রয়েছে। যেখানে উপস্থিত থাকবেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

বিএনপি নেতাদের দাবী, বিভিন্ন ধরনের প্রশাসনিক বাঁধা না আসলে শামীম ওসমানের চেয়ে দ্বিগুন লোক উপস্থিত থাকবে ওই সমাবেশে। পাশাপাশি, সমাবেশটি কয়েক বছরের মধ্যে নারায়ণগঞ্জে অনুষ্ঠিত হওয়া সমস্ত রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা প্রকাশ করছেন অনেকে। ইতিমধ্যে এ নিয়ে প্রতিটি উপজেলায় প্রস্ততিও শুরু হয়ে গেছে।

জানা গেছে, সমাবেশকে কেন্দ্র করে বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর নয়াপল্টনে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে আগামী ২৭ তারিখ সমাবেশ সফল করতে বিভিন্ন প্রস্ততি নেয়া হয়। বৈঠকে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকনসহ জেলা যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ ১১টি সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, ফতুল্লা থানাধীন নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সামনে সমাবেশটি করার লক্ষে পুলিশ বরাবর আবেদনও করা হয়েছে। তবে, এখনো পুলিশের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি। উক্ত সমাবেশটি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ব্যানারে অনুষ্ঠিত হলেও, সেখানে উপস্থিত থাকবে মহানগর বিএনপি ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সমাবেশটির বিষয়ে জানতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন বলেন, ‘আমাদের তো টাকা দিয়ে লোক আনতে হয় না। গার্মেন্টস, স্কুল-কলেজ বন্ধ করতে হয় না। পর্যাপ্ত স্থান এবং প্রশাসনের সহযোগীতা থাকে তাহলে বাংলাদেশে বেস্ট সমাবেশটা আমরাই করতাম। আমাদের ওই ক্যাপাসিটি আছে। সমাবেশের অনুমতির জন্য আমরা পুলিশের কাছে অনুমতির জন্য চিঠি দিয়েছি।’

গত ১৬ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া শামীম ওসমানের সমাবেশের চেয়ে বড় সমাবেশ করা কোন বিষয়ই না, উল্লেখ করে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘১৬ তারিখের চেয়ে বড় সমাবেশ করা আমাদের কাছে কোন বিষয়ই না। আমাদের বাঁধা না আসলে তার চেয়ে দ্বিগুন লোক হবে। নারায়ণগঞ্জে বিএনপির কার্যক্রম দেখেই সমাবেশের জন্য এ জেলাকে নির্বাচিত করা হয়েছে। ঢাকা উত্তর-দক্ষিনের মতোই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির একটি শক্তিশালী ঘাটি।’

বিএনপির সমাবেশে বাঁধা দেওয়া সরকারের রুটিন ওয়ার্ক উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এড আবু আল ইউসুফ খান টিপু বলেন, আমাদের কর্মসূচিতে বাঁধা দেয়া তো সরকারের রুটিন ওয়ার্ক। তারা তো বাঁধা দিবেই। এসকল বাঁধা অতিক্রম করেই আমরা রাজপথে আছি। যত ভাবেই বাঁধা আসুক এ সমাবেশ হবেই।

তিনি আরও বলেন, আমি বিশ্বাস করি ১৬ তারিখ উনি (শামীম ওসমান) যে মিটিং করছে তার চেয়ে আমাদেরটা বড় হবে। যেহেতু জেলা এবং মহানগর বিএনপি একসাথে প্রোগ্রামটা করবো, সেহেতু সমাবেশটি বিশাল হবে; নেতাকর্মীরাও স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে সেখানে অংশগ্রহন করবে। এই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে নেতাকর্মীরা এই সমাবেশে অংশগ্রহন করবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুকুল ইসলাম রাজিব বলেন, ‘আমাদের কর্মসূচিতে বাঁধা তো সব সময়ই আসে, আমরা ওসব নিয়ে চিন্তিত না। গত ১৫-১৬ বছর যাবৎ সকল বাঁধা অতিক্রম করেই আমরা সকল কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছি, এবারও সকল বাঁধা অতিক্রম করেই আমাদের সমাবেশ সফল করবো। সমাবেশে নেতাকর্মীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ থাকবে। আমাদের টার্গেট হলো নেতাকর্মীদের ওই সমাবেশে সম্পৃক্ত করা।

তিনি আরও বলেন, ‘সচারাচর যত সমাবেশ হয়েছে, সমস্ত রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে এই সামাবেশ।’

RSS
Follow by Email