শনিবার, মে ২৫, ২০২৪
জেলাজুড়েসদর

রাতে বাল্কহেড-ট্রলারসহ ছোট নৌযান বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘প্রশিক্ষণ ও সচেতনতা নৌ-পথে আনে নিরাপত্তা‘ স্লোগানকে সামনে রেখেই মানববন্ধন করে নিরাপদ নৌপথ চাই সংগঠন। বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারী) বিকেলে শহরের ৫নং ঘাটস্থ শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে এ মানববন্ধন করা হয়।

এসময় নিরাপদ নৌ-পথ চাই সংগঠনের চেয়ারম্যান মোঃ সবুজ শিকদারের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন সংগঠনের নেতা হাবিবুর রহমান মাস্টার, মনিরুল ইসলাম, জাকির হোসেন চুন্নু মাস্টার, মোস্তাফিজুর রহমান, জুয়েল প্রধান, হাফেজ শাহাদাৎ, কবির হোসেন, আক্তার হোসেন, জাহাঙ্গীর আলম দয়াল, ফারুক ইসলাম, সুমন ভূইয়া প্রমুখ।

মানববন্ধনে সবুজ শিকদার বলেন, অবিলম্বে নৌ-পথে ডাকাতি ও চাঁদবাজী সন্ত্রাস বন্ধ করতে নৌ-প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। প্রতিনিয়ত নদীপথে শ্রমিকরা ডাকাতি ও সন্ত্রাসীদের কবলে পড়ছে। সারাদেশে বেপরোয়াভাবে নদীপথে চাঁদাবাজি হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে। নৌ দুর্ঘটনার থেকে নৌযানকে উদ্ধার করার জন্য উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন নৌ এম্বুলেন্স ও উদ্ধারকারী জাহাজ যুক্ত করতে হবে। ৬২ বছর আগে হামজা ও রুস্তমকে আনা হয়েছিল। দীর্ঘদিন পূর্বে ২৫০  টনের প্রত্যয় ও ২৫০ টনের নির্ভীককে আনা হয়েছিল। অথচ এগুলো ১০০ টনের বাল্কহেডও উদ্ধার করতে ব্যর্থ হচ্ছে।আজকে নদীতে কোন জাহাজ কিংবা লঞ্চে আগুন লাগলে নেভানোর জন্য ফায়ারের পর্যাপ্ত জলযান নেই। নৌ পথ দখল দূষন মুক্ত করতে হবে ও শুকনো নৌ-পথ ড্রেজিং করে বিকন বাতি ও বয়া মার্কার স্থাপন করে নৌ চ্যানেল সঠিক রাখতে হবে। আজকে সারাদেশে নদীপথ সঠিকভাবে খনন না হওয়ায় এবং নদীপথে বয়া বাতি মার্কা না থাকায় নৌ দুর্ঘটনা বাড়ছে। অনেক স্থানে নদীতে চর পড়ে যাচ্ছে। পদ্মা নদীতেও অনেক স্থানে চর পড়েছে। নদীকে দখলমুক্ত করতে গিয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র উচ্ছেদকারী টিম হামলার শিকার হচ্ছে। দূষণের কারণে নদীগুলো মৃতপ্রায়। বিআইডব্লিউটিএ, নৌ মন্ত্রণালয় তারা নদীকে দখল দূষণমুক্ত করতে চেষ্টা করছে। কিন্তু তাদের সেই চেষ্টা লোকদেখানো কিনা আমরা জানিনা। ঘন কুয়াশা ও বর্ষা মৌসুমে নিরাপদে নৌ-যান পরিচালনার জন্য নৌ- শ্রমিকদেরকে প্রতিবছর মোবাইল প্রশিক্ষণ দিতে হবে। নৌদুর্ঘটনা রোধকল্পে রাতের বেলা বাল্কহেড ও ট্রলার সহ ছোট নৌ-যান চলাচল ও ফিটনেস বিহীন ও অপরিকল্পিত নৌ-যান চলাচল বন্ধ করতে হবে।

RSS
Follow by Email