বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০২৪
Led01রাজনীতি

মহাসমাবেশ ঘিরে না.গঞ্জের নেতাদের বাধা ও গ্রেপ্তারের অভিযোগ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সরকারের পদত্যাগ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে সাধারণ নির্বাচনের ১ দফা দাবিতে, রাজধানীতে বিএনপি মহাসমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে। সমাবেশে ব্যাপক সংখ্যক নেতাকর্মীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। কিন্তু তাদের এই কর্মসূচি বানচাল করতে ইতোমধ্যে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারসহ নানান বাধা সৃষ্টি হচ্ছে, সরকার দলের লোকজনও বিভিন্ন ভাবে বাধা সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, সরকার আগামীকাল সড়ক, রেল ও নৌপথে রাজধানীতে যেতে বাধা দিতে পারে। এই আশঙ্কায় আমাদের নেতাকর্মীরা ব্যাক্তিগত উদ্যোগে ঢাকায় প্রবেশ করছে। মহাসমাবেশ সফল হলে দলের আন্দোলনের গতিপথ পাল্টে যেতে পারে। আর সে কারণে সমাবেশকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে।

এদিকে, নয়াপল্টন অথবা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ আয়োজন করার জন্য গত সোমবার ঢাকা মহানগর পুলিশের কাছে অনুমতি চেয়েছিল বিএনপি। কিন্তু সেখানে না দিয়ে দলটিকে গত ১০ ডিসেম্বরের মতো রাজধানীর প্রবেশমুখ সায়েদাবাদের গোলাপবাগ মাঠে সমাবেশ করতে পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ।

তবে, ঢাকায় ২৭ জুলাইয়ের মহাসমাবেশের তারিখ পিছিয়েছে বিএনপি। একদিন পিছিয়ে বৃহস্পতিবারের মহাসমাবেশ কর্মসূচি আগামী শুক্রবার (২৮ জুলাই) নয়াপল্টনে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বুধবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তবে জেলার নেতাদের দাবি যে কোন বাধাই আসুক না কেনো, আমরা আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে মহাসমাবেশে নেতাকর্মীদের নিয়ে যুক্ত হবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দিন লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, গতকাল থেকেই আমাদের নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি পুলিশের অভিযান হচ্ছে। যাদের যেখানে পাচ্ছে তাদের সেখান থেকে গ্রেপ্তার করছে। আমরা মহাসমাবেশে যোগদান করার জন্য যে গাড়ি ভাড়া করেছি সেই গাড়ি ওয়ালারা আমাদের টাকা ফেরৎ দিয়ে যাচ্ছে। যারা অগ্রিম টাকা দিয়ে আসছি তারাও ফেরৎ পাঠাচ্ছে। সরকার দলের লোকজন গাড়ির ড্রাইভারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে, তাদের গাড়ি দিতে নিষোধ করছে। তাদের গাড়ি ভাঙ্গচুর করা হবেও বলছে। তাই এখন আর আমাদের দলবদ্ধভাবে যাওয়া সম্ভব না। আমরা নিজেদের মতো করে যে ভাবে সুযোগ বুঝে মহাসমাবেশে অংশগ্রহন করবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আমরা মহাসমাবেশ ঘিরে নানান প্রস্তুতি নিয়েছি। ইতোম্যধে প্রস্তুতি সভাও করেছি। কিন্তু আমাদের মহাসমাবেশ যাত্রাকে নষ্ট করতে সরকার দলের লোকজন ও সরকারের পুলিশ বাহিনী বিভিন্নভাবে হরয়রানি করছে। এখন পর্যন্ত বেশ কিছু নেতাকর্মীদের পুলিশ বাসায় বাসায় গিয়ে গ্রেপ্তার করেছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আমরা মহাসমাবেশের জন্য যথেষ্ট প্রস্তুত আছি। তবে আমাদের নেতাকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। কারণ তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। অনেক নেতাকর্মীদের ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করে নিয়ে গেছে। এখনো নেতা কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে আছে। আমাদের ভাড়া করা গাড়ির টাকা ফেরৎ দিয়ে যাচ্ছে, বলছে আমাদের গাড়ি ভাড়া দিলে তাদের গাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হবে।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, আমরা খুব চাপের মধ্যে আছি। আমাদের নেতাকর্মীদেরকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রেপ্তার করছে। আমাদের গাড়ি ভাড়া করতে দিচ্ছে না। তাদের সমাবেশে গাড়ি ভাড়া করার জন্য আমাদের গাড়ি ভাড়া বাতিল করে দিচ্ছে। যেকোন বাধাই আসুক না কেনো, আমরা আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে মহাসমাবেশে নেতাকর্মীদের নিয়ে যুক্ত হবো।

নেতাদের গ্রেপ্তার বিষয়ে জানতে চাইলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি সার্কেল ও সি সার্কেল) সাথে যোগাযোগ করা হলে, তারা জানান, আমরা আমাদের নিয়মিত অভিযান ও কাজ করে যাচ্ছি। কোন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। আমরা মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধের আসামিদের গ্রেপ্তার করছি। তারা (বিএনপি) আমাদের নিয়মিত অভিযানকে রাজনৈতিক ইস্যু বানাতে চাচ্ছে।

RSS
Follow by Email