রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Led05জেলাজুড়েসদর

বাস্তবে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার: ফিরোজ

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: মহান রুশ বিপ্লবের ১০৬ তম ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ এর ৪৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে জনসভার আয়োজন করা হয়। শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) বিকাল ৩টায় চাষাঢ়া শহিদ মিনারে ওই জনসভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাসদের নারায়ণগঞ্জ জেলার আহ্বায়ক নিখিল দাসের সভাপতিত্বে জনসভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাম গণতান্ত্রিক জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ, বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সদস্য সচিব আবু নাঈম খান বিপ্লব, নাসিক ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, বাসদ সোনারগাঁ উপজেলার সমন্বয়ক বেলায়েত হোসেন, বাসদ ফতুল্লা থানার আহ্বায়ক এম এ মিল্টন, রি-রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক এস. এম. কাদির।

কমরেড বজলুর রশিদ ফিরোজ বলেন, বর্তমান আওয়ামী সরকার চরম ফ্যাসিবাদী শাসন কায়েম করেছে। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার, হামলা, মামলা দিয়ে দেশে একটি ভীতিকর পরিবেশ তৈরি করেছে। সাইবার নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে জনগনের কন্ঠরোধ করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন, দুদকসহ সকল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে দলীয় প্রতিষ্ঠানে রুপান্তরিত করেছে বর্তমান আওয়ামী সরকার। জনমত উপেক্ষা করে সরকারের তলফিবাহক নির্বাচন কমিশন একতরফা নির্বাচনের তফশিল ঘোষনা করেছে। স্বাধীনতার পর থেকে দেশে ১১ টি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে ৭ টি দলীয় সরকারের অধীনে হয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে ৪ টি নির্বাচনকে মোটামুটি সুষ্ঠু ধরা হয়। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার জানে সুষ্ঠু নির্বাচনে তার পরাজয় অবশ্যম্ভাবী। সেজন্য তারা দলীয় সরকারের অধীনে একতরফা নির্বাচন চায়। বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করে নির্দলীয় তদারকী সরকারের অধীনে নির্বাচন করা এখন দেশের জনগনের দাবি । ফলে সরকার একতরফা নির্বাচনের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এতে সংকট নিরসনের পরিবর্তে আরো ঘনীভূত হবে। বাস্তবে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার।

কমরেড ফিরোজ আরো বলেন, দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ক্রমাগত খারাপ হচ্ছে। রিজার্ভ কমে ১৭ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। ব্যাংকগুলো তারুল্য সংকটে ভুগছে। লুটপাট, দূর্নীতি সর্বত্র চলছে। বাজার সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রনে সরকার সম্পূর্নভাবে ব্যর্থ হয়েছে। নিত্যপণ্যের দাম পাগলা ঘোড়ার মত বেড়েই চলছে। প্রায় ১২ কোটি মানুষ তাদের চাহিদা মতো পুষ্টিকর খাবার খেতে পাচ্ছে না। পোষাক শ্রমিকরা ন্যূনতম মজুরী ২৩ হাজার টাকার দাবীতে আন্দোলনে নেমে ৪ জনকে জীবন দিতে হয়েছে। মালিক ও শ্রমিক মিলে মজুরী ১২ হাজার ৫০০ টাকা শ্রমিকদের উপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছে।

অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বলেন, গনতন্ত্র, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা ও শোষমুক্তির লড়াই শক্তিশালী করা এবং বর্তমান ফ্যাসীবাদী আওয়ামী সরকারকে পদত্যগে বাধ্য করতে রাজপথের লড়াইকে জোরদার করার জন্য জনগনের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্ত্যব্যে কমরেড নিখিল দাস, শহরে যানজট নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন, শীতলক্ষ্যা ও বুড়িগঙ্গাঁ দূষণমুক্ত করা, গ্যাস ও পানির সংকট নিরসনসহ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন।

RSS
Follow by Email