বৃহস্পতিবার, মে ৩০, ২০২৪
Led02জেলাজুড়েবিশেষ প্রতিবেদনশিক্ষাসদর

না.গঞ্জ হাইস্কুলের অভাবনীয় সাফল্য

# কুচক্রি মহল অপপ্রচার করেছে, আজকের রেজাল্ট তাদের মুখে চুনকালি দিয়েছে: চন্দনশীল
# শিক্ষার্থীরা সাংস্কৃতিক মনোনা হলে পড়াশোনায় তারা দ্বিগুন এগিয়ে যায়: প্রধান শিক্ষক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ’ ২০২৪ সালে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৯৭.৮৩% অর্জন করেছেন। এবার এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১১২জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। স্কুলের এই অভাবনীয় সাফল্যে প্রশংসিত হয়েছে। রবিবার (১২ মে) সকাল সোয়া ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী ও বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানরা। পরবর্তীতে দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার মো. ইউনুস ফারুকী এক বার্তায় নারায়ণগঞ্জে শিক্ষার্থীদের ফলাফল প্রকাশ করেন।

২০২৪ সালে নারায়ণগঞ্জে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় ৩৩ হাজার ২৪২জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৯১২৯জন উত্তীর্ণ হয়েছে। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৯৮১জন শিক্ষার্থী। এবার নারায়ণগঞ্জে পাশের হার ৮৭.৬২% পার্সেন্ট।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জে এসএসসি ও সমমান ২০২৪ সালের পরীক্ষায় ‘নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ’ প্রতিষ্ঠানে ৩শ’ ২৩জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেছেন। এদের মধ্যে ৩শ’ ১৬জন শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে ও ৭জন শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১১২জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সুনাম অর্জন করেছেন।

নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দন শীল বলেন, নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাঙ্গন নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ। অতীতের মতো এবারও অভাবনীয় সাফল্য নিয়ে এসেছে শিক্ষার্থীরা। আমাদের এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৯৭.৮৩% পাশের হার ও ১১২জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এতে আমাদের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। এই পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীরা ও শিক্ষকরা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন এই সাফল্য অর্জন করতে, সেই সাথে অভিভাবকরাও অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করার জন্য।

তিনি আরও বলেন, একটি কুচক্রি মহল অবিরাম অপপ্রচার করেছে নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুলের বিরুদ্ধে, ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বিরুদ্ধে। বিভিন্নভাবে কুৎসা রটিয়েছে, অপপ্রচার করেছে, মিথ্যাচার করেছে, মামলা দিয়ে আমাদের স্কুলের কার্যক্রমকে বন্ধ করার চেষ্টা চালিয়ে হয়রানি করার চেষ্ঠা করেছে। কিন্তু আজকের এই ভালো রেজাল্ট তাদের মুখে চুনকালি মাখিয়ে দিয়েছে। আশা করি তারা ভবিষ্যতে এই ধরণের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হবে না।

চন্দন শীল আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল শুধু শিক্ষার ক্ষেত্রে না, এছাড়াও আমাদের স্কুলে বড় বড় সফলতা আছে। পাশাপাশি এক্সট্রা কারিকুলাম যেগুলো আছে, যেমন ফুটবলে আমরা চ্যাম্পিয়ন, হ্যান্ডবলে চ্যাম্পিয়ন, বাস্কেটবলে চ্যাম্পিয়নসহ অন্যান্য খেলাধুলায়ও আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে আমাদের স্কুল অংশগ্রহন করছে। গত ৩দিন আগেও আমরা নারায়ণগঞ্জে সদর উপজেলায় গান, নৃত্য ও অভিনয়সহ ১৮টা ইভেন্টে আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। জেলা পর্যায়ে ১২টা ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়ে এখন আমরা বিভাগীয় পর্যায়ে অংশগ্রহন করছি। আশা করি আমরা এই পর্যায়েও ভালো ফলাফল অর্জন করবো। সবকিছু মিলিয়ে নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি আগেও ছিলো, এখনো আছে এবং ভবিষ্যতেও সুনামের ধারা অব্যাহত থাকবে। সকলের দোয়া থাকলে শিক্ষক-শিক্ষিকা ও অভিভাবকদের সাথে নিয়ে আমরা অভাবনীয় সাফল্য ধরে রাখতে পারবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর যে শিক্ষা কারিকুলাম আছে সেদিকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাবো। আমরা শত বাধা ও ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে আমাদের সাফল্যের ধারা অব্যহত রাখতে পেরেছি, এই জন্য সব চেয়ে বেশী ধন্যবাদ জানাবো আমাদের শিক্ষার্থীদের। কারণ তারা কখনো মনোবল ভাঙ্গেনি। শিক্ষকরা শুধু ক্লাসেই না, বিশেষ ক্লাসের মাধ্যমেও আমাদের শিক্ষার্থীদের তৈরী করেছেন ও উৎসাহ দিয়েছেন। সেই সাথে অভিভাবকরাও অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। আমি সকলের প্রতি ধন্যবাদ, অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মাহমুদুল হাসান ভূঁইয়া লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, নারায়ণগঞ্জে এতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজ’। এই প্রতিষ্ঠানে ২০২২ সালে আমি যোগদান করেছি। সব সময় আমাদের পাশের হার ৯৭-৯৮ পাসের্ন্টের উপরে ছিলো। আমি সব সময় আমার শিক্ষকদের ভিন্নভাবে খাঁটিয়েছি। ক্লাস মনিটরিং, অতিরিক্ত ক্লাস, শিক্ষার্থীদের ক্লাসে শতভাগ উপস্থিত রেখেই আমরা তাদের তৈরী করেছি। তারচেয়ে বড় কথা হলো, শিক্ষার্থীরা যদি সাংস্কৃতিক মনোনা হয়, তাহলে পড়াশোনায় তারা দ্বিগুন এগিয়ে যায়। আমাদের গভর্নিং বডির সভাপতি একজন সাংস্কুতিক মনোনার মানুষ বলেই আজকে এমন একটা রেজাল্ট শিক্ষার্থীরা নিয়ে এসেছে। আমরা সবাই এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাফল্য ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর।

RSS
Follow by Email