বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
Led02বিশেষ প্রতিবেদনসদর

না.গঞ্জের সাবেক টোল কালেক্টর ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে কোটি টাকার দুর্নীতির মামলা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: কোটি কোটি টাকার জমি। চলাফেরা করেন ৩২ লাখ টাকা মূল্যের গাড়িতে। ব্যাংক একাউন্টেও ছিল বিপুল পরিমানে টাকা; ডকইয়ার্ড আছে তার স্ত্রী নামে। অথচ তিনি ছিলেন নিতান্তই এক ‘টোল কালেক্টর’।

 

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) আওতাধীন নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দরের তৃতীয় শ্রেণির সাবেক এই সেয়ানা কর্মচারীর নাম রফিকুল ইসলাম। আয়বহির্ভূত ১ কোটি ৭৪ লাখ টাকার সম্পদ অর্জন এবং সম্পদ বিবরণীতে তথ্য গোপনের অভিযোগে এই কর্মচারী ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক নারায়ণগঞ্জের সহকারী পরিচালক সাঈদ মোহাম্মদ ইমরান হোসেন বাদি হয়ে বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় দুর্নীতি দমন কমিশন আইনে নিজ কার্যালয়ে দুটি মামলাটি করেন। মামলা নং-১ ও ২।

মামলা দু’টিতে আসামি করা হয়-বিআইডব্লিউটিএ‘র নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের অবসরপ্রাপ্ত এক শুল্ক আদায়কারী রফিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রী শাহিদা বেগমকে। তাঁরা দু’জনই ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার চন্ঢীদাসদী গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা। তবে, বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার আমলাপাড়ায় নারায়ণগঞ্জ গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের পাশে শাহনাজ গার্ডেনের দ্বিতীয় তলায় থাকেন।

দুদক সূত্র জানায়, মামলায় বলা হয়েছে, ২০২০ সালের ২৪ জুন দুদকে পৃথক সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন রফিকুল ইসলাম ও তাঁর স্ত্রী শাহিদা বেগম। সম্পদবিবরণীতে রফিকুল ইসলামের ১ কোটি ১৯ লাখ ৬১ হাজার ৫৪৩ টাকা অর্জনের তথ্য অসৎ উদ্দেশ্যে গোপন করেন। আর রফিকুল ইসলামের স্ত্রী শাহিদা বেগমের দুদকে দাখিল করা সম্পদবিবরণীতে ৫৮ লাখ ৭৮ হাজার ৯০০ টাকা মূল্যের সম্পদ অর্জনের তথ্য অসৎ উদ্দেশ্যে গোপন করেন। এ ছাড়া তিনি ১ কোটি ৩৫ লাখ ৭৪ হাজার ৭৫১ টাকা মূল্যের সম্পদ তাঁর জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণভাবে অর্জন করেন। মামলাটি বর্তমানে দুদক তদন্ত করছে।

দুদকের নারায়ণগঞ্জের উপ-পরিচালক মঈনুল হাসান রওশনী লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, প্রাথমিক তদন্তে সম্পদবিবরণীতে সম্পদের তথ্য গোপন করা এবং অজ্ঞাত উৎস থেকে অবৈধভাবে অর্জিত বিপুল পরিমাণ অর্থ ভোগদখল করার প্রমাণ মেলায় মামলা হয়েছে। তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

RSS
Follow by Email