বুধবার, জুলাই ১৭, ২০২৪
Led03রাজনীতিসদর

নগরীতে বিএনপির অনশন, নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরণের দাবীতে অনশন কর্মসূচি পালন করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার (১৪ অক্টোবর) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

অনশন কর্মসূচিতে মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী মনিরুজ্জামান।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন, মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এড. জাকির হোসেন, মনির হোসেন খান, আনোয়ার হোসেন আনু, ফতেহ রেজা রিপন, সদর থানা বিএনপির সভাপতি মাসুদ রানা, সাধারণ সম্পাদক এড. আনোয়ার প্রধান, সাখাওয়াত ইসলাম রানা, মোস্তাকিম শিপলু, বন্দর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মাজহারুল ইসলাম হিরণ, সাধারণ সম্পাদক হারুন উর রশিদ লিটন, বন্দর থানা বিএনপি’র সভাপতি শাহেন শাহ্ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক রানা, মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাগর প্রধান মহিলা দলের সভানেত্রী দিলারা মাসুদ ময়নাসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাজী মনিরুজ্জামান বলেন, আমাদের আজকের এই অনশন আমাদের নেত্রীর উন্নত চিকিৎসা ও মুক্তির দাবী। এই কর্মসূচি দিয়ে কিন্তু কাজ হবে না। শেখ হাসিনার বিদায়ের মাধ্যমে আমাদের নেত্রী মুক্ত হবে। তাই শেখ হাসিনার পদত্যাগ ছাড়া আমাদের আর কোন দাবী নেই।

তিনি আরও বলেন, তারেক রহমান বারবার গণতন্ত্র উদ্ধারে জনগণের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। ১৯৭১ সালের পর বাংলাদেশে এত বড় সংকট আসেনি। আজ সবকিছুর দাম বেশি। অথচ এই প্রধানমন্ত্রী কোন কিছুর তোয়াক্কা করেন না। শেখ হাসিনার শুধু ক্ষমতা চাই। এই স্বৈরাচারী সরকারের পতনের মাধ্যমে খালেদা জিয়া ও গণতন্ত্র মুক্তি পাবে।

এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, এই সরকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে হত্যা করতে চায়। খালেদা জিয়া জেলে থাকা অবস্থায় তাকে স্লো পয়জন দিয়ে অসুস্থ করেছে। আজ ওরা তাকে চিকিৎসা নিতে দিতে চায় না। প্রধানমন্ত্রী বলে খালেদা জিয়ার বয়স হয়ে গেছে। আমি বলতে চাই তার ভেতর কোন রহম নাই। আপনি যতই চেষ্টা করুন আল্লাহ তাকে বাঁচিয়ে রাখলে আপনি তাকে হত্যা করতে পারবেন না।

তিনি আরও বলেন, আজ দেশের উন্নয়নের সকল টাকা আওয়ামী লীগের এমপি মন্ত্রীদের পকেটে। ওদের দুর্নীতির গন্ধ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এ সরকারের পতনের পর দেখতে পারবেন এদের দুর্নীতি কীভাবে প্রকাশ হয়।

গোলাম ফারুক খোকন বলেন, শুধু এইসব অনশন কর্মসূচি দিয়ে আমরা আমাদের দেশনেত্রীকে মুক্ত করতে পারবো না। আমাদের প্রয়োজন হরতাল অবরোধের মত আন্দোলন। অবরোধের মতো আন্দোলন। এই অক্টোবর মাসেই বৃহত্তর এই সকল কর্মসূচির ঘোষণা আসবে। আপনারা সকলে প্রস্তুতি নিন। এখানে যারা আছে সকলের নামে গায়েবি মামলা আছে। সম্প্রতি ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জে দুটি গায়েবি মামলা হয়েছে। এ সকল গায়েবি মামলা দিয়ে আমাদের দমন করা যাবে না।

এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপু বলেন, আমরা একটি সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চাই। আমরা এই ক্যাঙ্গারু আদলত থেকে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত দেখতে চাই। আর এই জন্যই নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি এই অনশন কর্মসূচি পালন করছে। অবিলম্বে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে।

বক্তব্য শেষে পানি পান করে অনশন কর্মসূচি শেষ করেন নেতৃবৃন্দরা।

RSS
Follow by Email