বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪
Led03বন্দর

দ্বিগুণ নিরাপত্তায় বন্দর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, রাত পোহালেই ভোট

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: রাত পোহালেই নারায়ণগঞ্জে প্রথম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। প্রথম ধাপে বুধবার (৮ মে) নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা নির্বাচনের ভোট হবে। সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত ৩ উপজেলার ৫৪টি কেন্দ্রের ৩৫৭টি বুথে ভোট প্রদান করবেন উপজেলার ১লাখ ৩১হাজার ৫৬৪জন ভোটার। ভোটগ্রহণের জন্য প্রস্তুত রয়েছেন ১১২৫ জন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা পুলিশ প্রহরায় কেন্দ্রে কেন্দ্রে সকল নির্বাচনী সামগ্রী (ব্যালট ছাড়া) নিয়ে অবস্থান নিবেন বলে জানান নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কাজী মো. ইস্তাফিজুল হক আকন্দ।

বন্দর উপজেলায় আগামীকালের নির্বাচনী মাঠে চেয়ারম্যান পদে আছে ৪ প্রার্থী, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৪ প্রার্থী এবং মহিলা ভাইস চেয়ারমান পদে লাড়ছেন ২ প্রার্থী। অবাধ–সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রশাসন এবং নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে বিন্দুমাত্র কাউকে ছাড় না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন এবং জেলা প্রশাসন।

উপজেলা জুড়ে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি ইউনিয়নে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হয়েছেন।

বন্দর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রিয়াজ আহমেদ লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, অবাধ সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের জন্য সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ব্যালট পেপার বাদে সব সরঞ্জাম নিয়ে প্রিজাইডিং অফিসাররা নিজ নিজ কেন্দ্রে চলে যাচ্ছে। সাথে রয়েছে আনসার, পুলিশ।

নিরাপত্তার বিষয়ে এই কর্মকর্তা বলেন, পর্যাপ্তের তুলনায় এবার আমরা অনেক বেশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছি। বলা যায়, প্রায় দ্বিগুণ পরিমানে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করেছি, যাতে নির্বাচনে কোন অসুবিধা না হয়। নির্বাচনের দিন র‌্যাব, পুলিশ এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হবে। এছাড়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিক নির্দেশনা প্রদানের লক্ষ্যে ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে। নির্বাচনী অপরাধসমূহ আমলে নিয়ে দ্রুত ও সংক্ষিপ্ত বিচারের জন্য একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

নির্বাচনে প্রার্থী ও তাদের মার্কা:-

নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান এম এ রসিদ (দোয়াত কলম), উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপির বহিষ্কার নেতা আতাউর রহমান মুকুল (চিংড়ি মাছ), জাতীয় পার্টি থেকে বহিস্কৃত নেতা মাকসুদ হোসেন (আনারস) ও তার ছেলে মাহমুদুল হাসান (হেলিকপ্টার) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ সানু (উড়োজাহাজ), মোশাঈদ রহমান মুকিত (তালা), মো. আলমগীর (মাইক) ও শাহিদুল ইসলাম জুয়েল (টিউবওয়েল) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন।

অন্যদিকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কলস প্রতীক নিয়ে মাহমুদা আক্তার আর ফুটবল প্রতীক নিয়ে সালিমা হোসেন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

RSS
Follow by Email