বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪
Led02জেলাজুড়েরাজনীতি

চলতি সপ্তাহে জেলা ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি, আলোচনায় যারা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: চলতি সপ্তাহের যে কোন দিন আসতে পারে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগরের নতুন দুই কমিটি। জেলা কমিটির নেতৃত্বে ছগির আহমেদ ও জামির হোসেন রনি, আর মহানগরে জুয়েল হোসেন ও কায়কোবাদ রুবেলের নাম শোনা যাচ্ছে।

কেন্দ্রীয় কমিটির একাধিক শীর্ষ নেতা এমন তথ্য জানিয়েছেন। তারা বলছেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, দলের ত্যাগী ও ক্লিন ই-মেজের নেতাদের নেতৃত্বের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাজানো হচ্ছে। যারা সাংগঠনিক ভাবে দলকে শক্তিশালী করে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, মোটামুটি আমাদের প্রাথমিক কাজ শেষ। খুব শীঘ্রই কমিটি ঘোষণা করা হবে। শুধু নারায়ণগঞ্জ না, আরও কয়েকটা জেলার কমিটি একসাথে দিয়ে দিবো।

স্থানীয় পর্যায়ে আলোচনা আছে নির্বাচনের আগে কমিটি হবে না, এমন প্রশ্নের জবাবে গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু বলেন, নির্বাচনের আগে অবশ্যই কমিটি হবে। যারা বলছে হবে না, বলা যায় এটা একটা গুজব। নির্বাচনের আগে যদি কমিটি না দেই, তাহলে কাজ করবে কারা। অক্টোবর মাসের প্রথম অথবা দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে হয়ে যাবে।

আর, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক একেএম আফজালুর রহমান বাবু লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, ‘যতদ্রুত সম্ভব এই কমিটি ঘোষণা করার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। নির্দিষ্ট করে বলতে পারছি না কবে কমিটি হবে, তবে দ্রুতই আমরা কমিটি ঘোষণা করবো।’

জেলা ও কেন্দ্রের একাধিক শীর্ষ নেতাদের সাথে আলাপকালে আভাস পাওয়া যাচ্ছে, যথাসম্ভব জেলার কমিটি ছগির আহমেদ ও জামির হোসেন রনি এবং মহানগর কমিটিতে জুয়েল হোসেন ও কায়কোবাদ রুবেলের নেতৃত্ব হতে যাচ্ছে।

ক্লিন ই-মেজের জন্য জেলায় ছগির আহমেদ ও মহানগরে কায়কোবাদ রুবেল এগিয়ে রয়েছেন। তাদের দু জনেই ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে উঠা আসা। দীর্ঘ দিনের আন্দোলন সংগ্রামে এ দুইজনের দলের প্রতি ত্যাগ ও নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রেখে দলীয় কর্মসূচী পালনের অগ্রনী ভূমিকা প্রশংসিত। কেন্দ্রীয় নেতাদের সুনজর যেমন এ দুই নেতার প্রতি রয়েছে, তেমনী তৃণমূল নেতা-কর্মীদেরও আস্থার প্রতিক হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন জেলায় ছগির আহমেদ ও মহানগরে কায়কোবাদ রুবেল।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি প্রার্থী ছগীর আহম্মেদ জানান, আমরা কমিটি পাই বা না পাই। আমরা আমাদের আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাবো। আমরা সব সময় রাজপথে সক্রিয় ভূমিকায় থাকবো। সব কিছুতেই একটা নেতৃত্বের প্রয়োজন আছে। আমরা আমাদের দিক থেকে সব কিছুই ঠিকঠাক করেছি। বিভিন্ন কর্মসূচি যৌথ ভাবে পালন করেছি। আমরা আশাবাদী শীঘ্রই আমরা কমিটি পেয়ে যাবো।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী কায়কোবাদ রুবেল জানান, সব সময় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে দলের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রেখে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়েছি। পারিবারিক শিক্ষায় পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করার চেস্টা করি। দলের পদ-পদবীর চেয়ে দলের সুনাম রক্ষায় সচেষ্ট থাকি। তাই, নেতৃবৃন্দরা যখন যে দায়িত্ব দিবেন, আমি মনে করি স্বেচ্ছাসেবক লীগকে সুসংগঠিত করে আগামীতে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নারায়ণগঞ্জের মাটি আওয়ামীলীগের ঘাটিঁ তা প্রমান করতে পারবো।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০৪ সালে নারায়ণগঞ্জে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যাত্রা শুরু হয়। তার দুই বছর পর নারায়ণগঞ্জে কমিটি দেয় কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ। আর মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সর্বশেষ কমিটি পায় ২০১৮ সালে। জেলা কমিটির ১৬ বছর আর মহানগর কমিটির ৫ বছর সময় কালে ২০২২ সালের ৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর শাখা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ এবং এর অন্তর্গত সদর থানা, ফতুল্লা থানা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা, বন্দর থানা, রূপগঞ্জ থানা, সোনারগাঁ থানা কমিটি ও মহানগরের অন্তর্গত ২৭টি ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ ও সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু। দীর্ঘ ১৯ মাস পর নারায়ণগঞ্জে চলতি বছরের ৩১ জুলাই কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেদিন সম্মেলনে নেতাকর্মীদের শক্তি-সমর্থন ও উপস্থিতি দেখেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক একেএম আফজালুর রহমান বাবুসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।

RSS
Follow by Email