মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০২৪
Led04রাজনীতিসিদ্ধিরগঞ্জ

খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় না.গঞ্জ জেলা বিএনপির দোয়া

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। রোববার (২৩ জুন) বাদ আসর সিদ্ধিরগঞ্জের হিরাঝিল এলাকায় অবস্থিত গিয়াসউদ্দিন ইসলামিক মডেল স্কুল এন্ড কলেজ এর মিলনায়তনে দোয়া মাহফিলটি অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন ও সঞ্চালনা করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক খোকন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির সভাপতি মাজেদুল ইসলাম, ফতুল্লা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এড. বারী ভুইয়া, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাশুকুল ইসলাম রাজিব, জেলা যুব দলের সদস্য সচিব মশিউর রহমান রনিসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ যুবদল, ছাত্রদল, শ্রমিকদলের নেতাকর্মীরা।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন বলেন, আমরা অত্যন্ত ব্যাথিত। কারণ যখন আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের দরকার ছিলো, আন্দোলন করার জন্য; সেই সময় আমরা বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া করছি। দীর্ঘদিন এই সরকার ক্ষমতায় আসার বাসনা নিয়ে বসে ছিলো, যে তারা ক্ষমতায় এসে এই দেশকে লুন্ঠন করবে। এর কারণেই তারা আমোদের নেত্রীকে মিথ্যা মামলা দিয়ে বন্দি করে রেখেছে আর তারেক রহমানকে মিথ্যে মামলা দিয়ে দেশের বাইরে রেখেছে। কারণ তারা দেশে থাকলে, এই সরকারের অপকর্মের বিষয় কথা বলতো; এর প্রতিবাদ করতো।

বর্তমান সরকারের সমালোচনা করে সাবেক এই এমপি বলেন, এই সরকারের আমলে বড় বড় চোর জন্ম হয়েছে। এর আগে কখনো কেউ এত পরিমানে লুট করতে পারেনি। আস্তে আস্তে তাদের ইতিহাস বের হয়ে আসছে। আজ তাদের সৃষ্ট চোরদের তারা নিজেরাই প্রত্যাখ্যান করছে। এর থেকে বেশি লজ্জার আর কি হতে পারে। তারা যখন এই লুট করছিলো তখন আপনারা কি করছিলেন? নাকি আপনারা এই লুটের টাকার ভাগ নিয়ে আনন্দ করছিলেন। এদের বিচার একদিন এই দেশের জনগন করবে। এই সরকার যতদিন ক্ষমতা থেকে না সরবে, ততদিন আমরা আন্দোলন করে যাবো।

তিনি বলেন, একটি বিষয় দেখেন। আমরা এখানে সাবাই কিন্তু নির্যাতিত, তবে সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত আমাদের নেতা তারেক রহমান। মা মৃত্যু অবস্থায়, তার পরেও দেশে আসতে পারছেন না। কত বড় অভাগা হলে তারেক রহমান আজকে এই অবস্থায় আছেন। তাই আমি বলবো, আমরা যে যতই নির্যাতিত হই না কেন; তার মতো কেউ নির্যাতিত না।

দলকে সুসংগঠিত করা হচ্ছে জানিয়ে জেলা বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, গঠনতান্ত্রিক পদ্ধতিতে এই দলকে সুসংগঠিত করা হচ্ছে। পত্র-পত্রিকায় অনেক কিছু লেখা হয়, আপনার সেই দিকে খেয়াল করবেন না। এই দলকে শক্তিশালি করার কোন বিকল্প নাই, তাই তারেক রহমান যা করছে সঠিক করছে। আমাদের সবার ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে, আমাদের ঐক্যের কোন বিকল্প নাই। কোন ভাইয়ের রাজনীতি করা যাবে না, স্লোগান দেওয়া যাবে না। কেউ আমাদের প্রভু নয়। আমি যতদিন এই জেলা বিএনপির সভাপতি আছি, বেগম জিয়া ও তারেক রহমান ব্যাতিত কোন নেতার কথা আমি শুনবো না। যতদিন এই পদে থাকবো, আমি আপোসহীন ভাবে এই দলকে পরিচালিত করবো। কার রক্তচক্ষু আমি পছন্দ করি না, কোন ভাইয়ের রাজনীতি করা আমি পছন্দ করি না। আমরা সবাই হয়ে যাবো দলের, আর দল হয়ে যাবে আমাদের। দলের স্বার্থ আগে দেখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমি কয়েকদিন আগে তারেক রহমানের সাথে কথা বলছিলাম। আমি তাকে বলেছি, আপনি যখন আগামীতে এই দেশের দায়িত্বে আসবেন, তখন এই দেশে পরিচালনা করবেন কাদেরকে নিয়ে, চোর-চোট্টা, বাটপারদের নিয়ে? তাদেরকে নিয়ে দেশ পরিচালনা করলে, জনগনের জন্য কিচ্ছু করতে পারবেন না। তাই আমি আপনাদের সবাইকে আহ্বান করবো, আসেন আমরা ভালো নেতৃত্বে তৈরি করি। চোরেরা যাতে তারেক রহমানের কাছে যেতে না পারে। আমরা ওই চোরদেরকে তারেক রহমানের কাছ থেকে দুরে রাখবো।

গোলাম ফারুক খোকন বলেন, বেগম খালেদা জিয়া ভালো থাকলেই বাংলাদেশ ভালো থাকে। আজ বাংলাদেশ ভালো নেই। সাবেক সেনা প্রধান, পুলিশের আইজিপি; তাদের অবৈধ সম্পদের তথ্য আজ বেড়িয়ে আসছে। দেশ নায়ক তারেক রহমান মানুষকে ভালো থাকারে স্বপ্ন দেখিছেন। দুর্নীতিমুক্ত দেশের স্বপ্ন দেখিযেছেন। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আজ এই সরকার মেরে ফেলার চক্রান্ত করছে। আমি এই সভা থেকে অতিদ্রুত দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সু-চিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরণের দাবি জানাই।

তিনি আরও বলেন, এই সরকারকে হুশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই, যদি দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হয়ে যায়; তাহলে আপনারা এর দায় থেকে মুক্তি পাবেন না। জনগন আপনাদের ছেড়ে দিবে না। বিএনপি সারা দেশে এর প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। আগামীতে দেশ নায়ক তারেক রহমান সাহেব যে কোন আন্দোলন-সংগ্রামের ডাক দিলে আমরা গিয়াসউদ্দিন সাহেবের নেতৃত্বে আমরা সাবাই ঝাপিয়ে পরবো।

অনুষ্ঠান শেষে বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমান ও দেশের জনগনের জন্য দোয়া পাঠ করা হয়।

RSS
Follow by Email