বৃহস্পতিবার, মে ৩০, ২০২৪
জেলাজুড়েফতুল্লা

এমপি ও এনসিসি একসাথে বসলেই সুন্দর না.গঞ্জ গড়া সম্ভব: আব্দুস সালাম

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম বলেছেন, আজ নারায়ণগঞ্জ থেকে মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, ইভটিজিং ও ভূমিদস্যুতা দূর করতে আমরা সবাই একত্রিত হয়েছি। কিন্তু এই আয়োজনে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহীনির কাউকে দেখা যাচ্ছে না। তারা উপস্থিত থাকলে প্রত্যাশা পূরণ হতো। আমরা যে প্রত্যাশা নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলাম তা হয়ত পূরণ হবে না। এই জেলায় মাদককে প্রশ্রয় দিচ্ছে কারা। পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনেই মাদক বিক্রি করা হয়। এই মাদককে কেন্দ্র করে জেলায় হত্যাকান্ড হচ্ছে। কিন্তু এই মাদককে বন্ধ করার জন্য কোন উদোগ নেওয়া হয় নাই। আমরা প্রশাসনের সাথে কথা বলেছি, মিডিয়ায় প্রচার-প্রচারণা করেছি। কিন্তু প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় মাদক ব্যবসা বন্ধ হয় নাই।

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) ইসদাইর ওসমানী স্টেডিয়ামে দুপুরে অরাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন ‘প্রত্যাশা’র মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভাটির সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও আহ্বায়ক ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান।

তিনি বলেন, আমরা আজ আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত। এইদিকে কিশোর গ্যাং পাড়া-মহল্লায় উচ্ছৃঙ্খল আচরণ সহ নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। পাড়া মহল্লায় কিশোর গ্যাং এর অত্যাচারে হত্যা কান্ডও হচ্ছে। প্রশাসনকে বার বার বলার পরও কোন প্রকার উদ্যোগ নেয়া হয় নাই। নারায়ণগঞ্জে দখল-দারিত্বের রামরাজত্ব চলছে। শীতলক্ষায় নদী দিয়ে বালু সন্ত্রাস হচ্ছে। নিতাইগঞ্জে অবৈধ ট্রাক রেখে সন্ত্রাস চলছে। রাস্তার ফুটাপতও দখলে নেওয়া হয়েছে। নির্বাচিত হবার পর প্রেস ক্লাবে এমপি শামীম ওসমান এসে বলেছেন, ফুটপাত উচ্ছেদ করতে হবে। কিন্তু তার আগে তাদের পুনর্বাসন করেতে হবে। উনি মালয়শিয়ায়র কথা বললেন। সেখানে ফুটপাতের উপর দিয়ে রাস্তার কথা বলেছেন। নারায়ণগঞ্জেও ফুটপাতের উপর রাস্তা করলে মানুষদের চলাচলে সুবিধা হবে। যদি ৪ ও ৫ এর এমপিরা এবং সিটি কর্পোরেশন একসাথে বসে, তাহলে সুন্দর নারায়ণগঞ্জ গড়ে তোলা সম্ভব হবে। অনেক সমস্যার সমাধান হবে। পরিকল্পিতভাবে কাজ করলে মাদকমুক্ত নারায়ণগঞ্জ গড়ে তোলা সম্ভব। আমরা প্রকৃত সাংবাদিকরা একত্রিত হয়ে কাজ করবো।

তিনি আরও বলেন, শহরের অটোগুলোতে দেখা যাচ্ছে অমুক পত্রিকা, অমুক চেন্যাল এর পোস্টার বা কার্ড লাগানো। বিভিন্ন স্বার্থান্বেষী সাংবাদিক এমনটা করে দাপট দেখাচ্ছে। এছাড়াও অটোতে লাল চাবি দেয়া হয়েছে। এটা থাকলে ছেড়ে দেওয়া হয়। আমি প্রশাসন ও পুলিশের প্রতি আহ্বান জানাই। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

মত বিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি চন্দন শীল, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল (ভিপি বাদল), মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, বিকেএমইএ-এর নির্বাহী সভাপতি ও বিশিষ্ট শিল্পপতি মোহাম্মদ হাতেম, ইয়ান মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি লিটন সাহা, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি প্রবীর কুমার সাহা, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের সভাপতি তানভীর আহম্মেদ টিটু, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাব সভাপতি আরিফ আলম দিপু, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জীবন সহ বিভিন্ন শিক্ষক, আইনজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিবিদবৃন্দ।

RSS
Follow by Email