রবিবার, এপ্রিল ১৪, ২০২৪
Led03জেলাজুড়েবিশেষ প্রতিবেদনসোনারগাঁ

এটাই কি সেই ডাকাতদলের সদস্যের লাশ ?

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সোনারগাঁয়ের বালিয়াতলী মাঝেরচর গ্রামের পাশে ব্রহ্মপুত্র নদে ভেসে ওঠে এক লাশ। মানব দেহের পচা তীব্র গন্ধের উৎস খুজতে গিয়ে এলাকাবাসী আবিষ্কার করে এই অর্ধগলিত লাশটি। খবর পাওয়ার পর উদ্ধারের কাজে নিয়াজিত হয় নৌ-পুলিশ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রীতিমতো ভাইরাল হয় এই লাশের ছবি। এতে সৃষ্টি হয় নানা আলোচনা সমালচনার ঝড়। ধারনা করা হচ্ছে এই লাশের সাথে সোনারগাঁয়ে চাঞ্চল্যকর এলাকাবাসীর গনপিটুনিতে ৪ ডাকাত নিহতের ঘটনার সংযোগ রয়েছে।

১৭ মার্চ রাতে সোনারগাঁয়ের কাঁচপুরের বাঘরী গ্রামে হটাৎ করেই মসজিদের মাইকে ঘোষণা হয় ‘ডাকাত পরেছে’। ঘোষণা সাথে সাথে গ্রামবাসী লাঠি-সোটা নিয়ে হামলা করে সন্দেহভাজন ডাকাত দলের উপর। সেদিন রাতে গ্রামবাসীর গনপিটুনীতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ডাকাত অভিযুক্ত ৩ জন। এছাড়া ২ জনকে আহত অবস্থায় পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠালে পথেই মৃত্যু হয় আরেক জনের।

তবে একইদিন রাতে ডাকাত সন্দেহে একজনকে গনপিটুনি দিয়ে অলিপুরা ব্রিজ থেকে ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে দেওয়া হয়, এমনটাই তথ্য জানায় বাঘরী গ্রামে পার্শ্ববর্তী এলাকা অলিপুরা গ্রামবাসী। এ ঘটনার পরের দিন সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, সেই ব্রিজের রেলিংয়ের বিভিন্ন অংশে রয়েছে রক্তের ছাপ। এছাড়া ব্রিজের সড়কের উপরের রক্তের দাগ দেখলেই মনে হয়, রক্তাক্ত কোন বস্তুকে টানা হেচড়া করে এখানে আনা হয়েছে। ব্রিজের রেলিংয়ে ও সড়কের রক্তের দাগ দেখতে ভোর সকাল থেকেই ভির করছেন উৎসুক এলাকাবাসী।

সেদিন প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানায়, মধ্যেরাতে পাশ্ববর্তী গ্রাম বাঘরীতে মসজিদের মাইকে ডাকাত দলের আক্রমনের ঘোষনা দেওয়া হয়। গ্রামবাসী ধাওয়া দিলে পালাতে চেষ্টা করে অভিযুক্ত একাধিক ডাকাত দলের সদস্যরা। এসময় হাফপ্যান্ট পড়া ভেজা শরীলে একজনকে পালাতে দেখে অলিপুরা এলাকাবাসী। সন্দেহ হলে ওই ব্যক্তির গতিরোধ করে স্থানীয়রা। কিছু প্রশ্ন করতেই আবারও পালাতে শুরু করে সন্দেহভাজন সেই ব্যাক্তি। এতে তাকে ডাকাত সন্দেহে ধরে মারধর করে স্থানীয়রা। পরবর্তীতে আধমরা অবস্থায় ব্রিজ থেকে ব্রহ্মপুত্র নদে ফেলে দেওয়া হয়।

 

কাকতালীয় ভাবেই এ ঘটনার ৩দিন পর বুধবার (২০ মার্চ) পার্শ্ববর্তী বালিয়াতলী মাঝেরচর গ্রামে একই ব্রহ্মপুত্র নদে ভেসে ওঠে সেই অজ্ঞাত অর্ধগলিত মৃতদেহ। মাঝেরচর এলাকাবাসী বিকেলে মরদেহটি ভাসতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। স্থানীয়দের মাঝে গুঞ্জন রয়েছে, এটা সেই দিন অলিপুরা ব্রিজ থেকে ফেলে দেওয়া ডাকাতের লাশ। ডাকাত সন্দেহে তাকে মারধরের পর ব্রিজ থেকে ফেলে দিলে নদের স্রোতের সাথে এই এলাকায় ভাসতে ভাসতে এসেছে।

ভেসে উঠা লাশ বিষয়ে বৈদ্দারবাজার নৌ-ফাড়ির উপ-পরিদর্শক মো. জাকির বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। সেখানে আমরা লোকজন নিয়ে, নদীতে নৌকা দিয়ে অনেক খোঁজাখুজি করেছি। নদীতে অনেক জোয়ার-ভাটা থাকায় লাশটি ভেসে গিয়েছে, আমরা লাশটি পাইনি। নদীর অল্প কিছু অংশ পড়েছে সোনারগাঁয়ে বাকি অংশ পড়েছে বন্দরের ধামগড় ইউনিয়নে। লাশটা সেদিক গেছে কিনা সেই বিষয়ে আমাদের নৌ-পুলিশ কাজ করছে।

এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, লাশ উদ্ধারের কাজ নৌ-পুলিশ করছে। তবে সেদিন কোন ডাকাত অলিপুরা গিয়েছিলো কিনা বা ভেসে ওঠা এই লাশ কি সেই অভিযুক্ত ডাকাতদলের সদস্যের কিনা সেটা তদন্তের পর জানা যাবে। আমাদের পুলিশ এ বিষয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করছে। যদি এ ঘটনা সত্যি হয় তাহলে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

RSS
Follow by Email