রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪
Led02জেলাজুড়েসদর

উত্তপ্ত পিয়াজের বাজারে প্রশাসনের হানা, ১ ব্যবসায়ীকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পিয়াজের বাজারে দেশ জুড়েই আগুন লেগেছে। ভারতের পেয়াজ রপ্তানি বন্ধের পর থেকেই পিয়াজের দাম যেন আকাশচুম্বী। প্রাচ্যের ডান্ডি নারায়ণগঞ্জও এর ব্যাতিক্রম নয়। তবে এ সুযোগে এক দল অসাধু ব্যবসায়ী ফন্দি করে হাতিয়ে নিচ্ছে অসংখ্য টাকা যার দরুণ দুর্ভোগে পড়ছে জনগণ। এরই ধারাবাহিকতায় নগরীর দ্বিগু বাবুর বাজারের বিভিন্ন পিয়াজের আড়তে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) এ অভিযান পরিচালনা করেন নারায়ণগঞ্জ কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম। জেলা প্রশাসনের সহযোগে ও র‌্যাব-১১ এর সহায়তায় অভিযানটি পরিচালনা করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষে ছিলেন জেলা সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর) ফারাশিদ বিন এনাম। অভিযানে ইউনুছ ব্যাপারী নামে এক ব্যবসায়ীকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযান শেষে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. আতিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে এক দল লোক দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে। তারই প্রতিরূপ পিয়াজের দাম বৃদ্ধি। পিয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে জনগণ। আমরা দ্বিগু বাবুর বাজারে পিয়াজের দামের ব্যাপারে প্রথমে অনুসন্ধান করি এবং পরক্ষণেই আজ অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানের মাধ্যমে জানা যায়, ভারতের পিয়াজের রপ্তানি বন্ধের আগেই এক দল অসাধু ব্যবসায়ী প্রচুর পরিমাণে পিয়াজ মজুদ করে রাখে। আমদানিকারকরা পিয়াজ কেজি প্রতি ৯৩ টাকা ৩০ পয়সায় ঢাকার শ্যামবাজারে ব্যাবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে। পরে তা নারায়ণগঞ্জের ব্যবাসায়ীদের কাছে বিক্রি করা হয় ১৫৬ টাকায়। সেই মূল্যে ক্রয় করার পর নারায়ণগঞ্জে তা বিভিন্ন দামে বিক্রয় করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজিতে ৮০ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে বিক্রি করছে। কে কত টাকায় পিয়াজ বিক্রয় করেছে তার রশিদ দেখেতে চাইলে, কেউ তা দেখাতে পারে নি।

তিনি বলেন, দ্বিগু বাবুর বাজারে বিভিন্ন পিয়াজের আড়তে অভিযান পরিচালনাকালে লক্ষ করা যায়, অধিকাংশ আড়তে মূল্য তালিকা টাঙানো হয় নি। এছাড়াও পিয়াজ ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে ব্যবসায়ীরা বিভ্রান্তিকর কথা-বার্তা বলা শুরু করে। পিয়াজের দাম নিয়ে কারসাজির কারণে ইউনুছ ব্যাপারী নামে ১ জনকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সেই সাথে অন্যান্য ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ জেলার এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ফারাশিদ বিন এনাম ঢাকায় জেলা প্রশাসকের নিকট শ্যামবাজারের ব্যাপারে অবগত করবেন।

বাজারে মনিটরিং এর ব্যাপারে মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, বাজারে পিয়াজের দাম স্থিতিশীল রাখতে ও ব্যবসায়ীদের অসাধুপায় অবলম্বন থেকে বিরত রাখতে আমাদের মনিটরিং অব্যাহত থাকবে। আজ রাতেও বাজারে পিয়াজের দাম নিয়ে খোঁজ নেওয়া হবে। সেই সাথে আজকে দ্বিগু বাবুর বাজারের পিয়াজ ব্যবসায়ীদের নিয়ে জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল হক আলোচানায় বসবেন। কিভাবে পিয়াজের দাম জনগণের নাগালে রাখা যায় সে নিয়ে আলোচনা হবে।

RSS
Follow by Email