শুক্রবার, জুলাই ১২, ২০২৪
Led02জেলাজুড়েপরিবহনরাজনীতিসদর

আল্লাহ’র ওয়াস্তে কসম, কেউ চান্দা দিবেন না : সেলিম ওসমান

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আমার কাছে কমপ্লেইন আর কমপ্লেইন। আমাদের বাস স্ট্যান্ড নেই, ট্রাক স্ট্যান্ড নেই। আমাদের মেয়র দায়িত্ব দিয়েছিলেন, আমরা যেন নিয়ন্ত্রণের ভিতর আনতে পারি। কয়েক মাস আমরা নিয়ন্ত্রণের ভিতরেই ছিলাম, এরপর আবার শুরু সেই চাঁদাবাজি। আগেরটা পরে পরেরটা পিছে। চাঁদাবাজির ঠেলায় আমরা মানসিক অশান্তিতে। আল্লাহ’র ওয়াস্তে আপনাদের কসম দিচ্ছি, কাউকে চাঁদা দিবেন না।

৩১ ডিসেম্বর (রবিবার) নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম ওসমান তার নির্বাচনী প্রচারণার কেন্দ্রীয় ক্যাম্পে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এই বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন, ধৈর্যের একটা সীমা আছে। এক জেলা থেকে আরেক জেলা যেতে পয়সা দিতে হয়। আমাদের ড্রেস পড়া মানুষকেও পয়সা দিতে হয়, ড্রেস না পড়া মানুষকেও পয়সা দিতে হয়। একটা স্লিপ বানিয়ে দেয়, ওই স্লিপ দেখিয়ে পার হওয়া যায়। এদের আটকাতে আমি বা শেখ হাসিনা পারবে না, পারবেন আপনারা। মানুষ অপমানিত, লাঞ্ছিত হচ্ছে। মানুষের উপকারই যদি না করতে পারি, তাহলে কাজ করবো না। আপনাদের রিকুয়েস্ট করবো, মানুষকে জোর করে কিছু করানো যাবে না। আমরা ইমানদার হই, শহরটাকে আমরা পরিষ্কার করি। এই দেশটাকে আমরা পরিষ্কার করি।

এছাড়াও তিনি বলেন, “এই যুদ্ধে আপনাদের বন্দুক, কামান, বোমা কিছুই লাগবে না। এই যুদ্ধে শুধু একটা জিনিস লাগবে। সাত তারিখ আপনাকে একটা ব্যালট দেওয়া হবে, আর একটা সিল দেওয়া হবে। আজকে নারায়ণগঞ্জে লক্ষ লক্ষ মানুষ গার্মেন্টসে কাজ করেন। এক সময় আমাদের এটার প্রয়োজন ছিলো না। আমাদের জুট মিল ছিলো, প্রেস মিল ছিলো। আমাদের শ্রমিকদের একত্রিত করতে পেরেছিলাম। একটা শ্রমিক মারা গেলে এক লক্ষ টাকা করলাম, কয়েক বছর পর সেটা ২ লক্ষ টাকা করলাম। শ্রমিকদের ফান্ড করলাম, কেউ মারা গেলে এখন ৫ লক্ষ টাকা পাবে। শ্রমিকদের বেতন জননেত্রী শেখ হাসিনা বাড়িয়েছেন। কালকে সকালে আমাদের স্কুলের ছোট ছোট বাচ্চারা হাতে বই পেয়ে যাবে বিনা পয়সায়।”

এখানে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ী নেতা মোজাম্মেল হক, জুয়েল হোসেনসহ ব্যাবসায়ী মালিক সমিতি ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।

RSS
Follow by Email