শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
Led02রাজনীতি

আজাদ-সুমনের পদমর্যাদার লড়াই

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বিএনপির দুই হেভিওয়েট নেতার কেন্দ্রীয় কমিটির পদমর্যাদা নিয়ে শুরু হয়ে নানা বিতর্ক। দীর্ঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে রয়েছে নজরুল ইসলাম আজাদ। অপর দিকে সম্প্রতি কেন্দ্রীয় কমিটির সহ অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক পদ পেয়েছেন মাহমুদুর রহমান সুমন। তবে কে কার চেয়ে পদমর্যাদায় উপরে রয়েছে, তা নিয়ে তাদের কর্মী সমর্থকদের মধ্যে রীতিমত স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়েছে। কেউ কেউ ভুল তথ্যের ভিত্তিতে সুমনকে আজাদের উপরে রাখতে চাচ্ছেন। তবে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নজরুল ইসলাম আজাদের পদমর্যাদা উপরে-ই রয়েছে বলে জানাগেছে।

বিএনপির গঠনতন্ত্রের ৩৪ পৃষ্ঠায় লেখা- আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক ৭জন, এর পরে রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক, আইন, শিক্ষা, সমাজকল্যান, কর্মসংস্থান, যুব, স্থানীয় সরকার, শিল্প, বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক; এভাবে ধারাবাহিকভাবে ১০টি পদের পরে রয়েছে অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক পদ। সে হিসেবে আন্তর্জাতিক সর্ম্পক বিষয়ক সম্পাদক পদটি অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক পদের চেয়ে দশ ধাপ উপরে অবস্থান।

একই ভাবে গঠনতন্ত্রের ৩৬ পৃষ্ঠায় সহ: সম্পাদক আন্তর্জাতিক বিষয়ক পদের পরেই রয়েছে সহ: সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক; ধারাবাহিকভাবে আইন, শিক্ষা, এর পর রয়েছে সহ: সম্পাদক অর্থনৈতিক বিষয়ক। অর্থাৎ সহ: সম্পাদক আন্তর্জাতিক বিষয়ক পদের চার ধাপ নিচে সহ: সম্পাদক অর্থনৈতিক বিষয়ক পদটি।

বিএনপির গঠনতন্ত্রের ৩৪ ও ৩৬ নং পৃষ্ঠা

ফলে বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে থাকা নজরুল ইসলাম আজাদ পযমর্যাদায় মাহমুদুর রহমান সুমন চেয়ে অনেক উপরে রয়েছে।

জানাগেছে, গত শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে মাহমুদুর রহমান সুমনকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থনৈতিক বিষয়ক সহ সম্পাদক করা হয়। এর মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা নিজ জেলায় নতুন আরেক কেন্দ্রীয় নেতা পেলেন। তবে সুমনের নেতাকর্মীদের মধ্যে এক ধরনের উচ্ছাস উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।

সুমন অনুসারীদের অনেকে বলছেন, অর্থনৈতিক বিষয়ক সহ সম্পাদক পদটি আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ সম্পাদক পদের চেয়ে পদমর্যাদায় উপরে। এ নিয়ে স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিক একটি সংবাদের বরাত দিয়ে অনেক অনুসারী প্রশংসায় ভাসতে শুরু করেন। অথচ গঠনতন্ত্র বলছে ভিন্ন কথা।

দলীয় নেতাকর্মী সূত্র বলছে, আড়াইহাজার উপজেলার এই দুই নেতার মধ্যে এক ধরনের স্নায়ুযুদ্ধ রয়েছে। প্রায় সময় সেই দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে ফুটে উঠেছে। তবে এবার পদমর্যাদা নিয়ে নতুন করে প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। যদিও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পদমর্যাদা সম্পর্কে তৃণমূল পর্যায়ের অনেক নেতৃবৃন্দ তেমন অবগত নন। ফলে অনায়াসে ভুল ধারণা নিয়ে নিজেদের উপরে রাখার চেষ্টা করছে সুমন অনুসারীরা।

জানাগেছে, আড়াইহাজারে দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত রয়েছেন নজরুল ইসলাম আজাদ। বেশ দাপুটে এই নেতা অনেক আগে কেন্দ্রীয় পদ পেয়ে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন। জেলা জুড়ে দলীয় কর্মসূচি থেকে শুরু করে দলের দু:সময়ে ছুটে আসেন এই নেতা। জেলা, মহানগর, থানা পর্যায়ের দলের প্রায় নেতাকর্মীদের সাথে রয়েছে তার সু-সম্পর্ক। নেতাকর্মীদের শুধু দিকনির্দেশনাই নয়, নানা রকম সহযোগিতা, বিপদে ভাই-বন্ধুর মতোই আগলে রাখেন নজরুল ইসলাম আজাদ। ফলে কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের সু-নজরে সব সময় থাকেন আজাদ। তবে এই বিষয়টি হজম করতে পারছেনা স্থানীয় এক-দু জন নেতা।

RSS
Follow by Email