বৃহস্পতিবার, জুন ১৩, ২০২৪
Led04ফতুল্লারাজনীতি

অসম্ভবকে যে সম্ভব করে, তার নাম শেখ হাসিনা: খোকন সাহা

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের পক্ষে কাশীপুর ইউনিয়নে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টায় কাশীপুরের মুজিব নগর এলাকায় এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

এসময় তাঁতী লীগ নেতা জব্বার মোল্লার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ মহানগর তাঁতী লীগের আহবায়ক চৌধুরী এইচ.এম শাহেদ ফারুক। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এড. খোকন সাহা বলেন, ‘কিছু কিছু বড় দেশ এমন ভাবে বাংলাদেশকে উপস্থাপন করছে যে, বাংলাদেশে কিছুই নাই। গাজায় প্রায় ৩০ হাজার মুসলিম নারী-শিশু হত্যা করেছে। বাংলাদেশে চলন্ত ট্রেনে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারছে। এখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় না। ওদের দৃষ্টি পরছে বাংলাদেশের উপর। কারণ এই মাটিতে সোনা ফলে। এটার উপর তাদের কু-দৃষ্টি পরেছে। শেখ হাসিনা ২০১০ সালে সমুদ্র সীমানায় আরেকটি বাংলাদেশ জয় করেছে। ওদের দৃষ্টি পরেছে এই সমুদ্র সীমানায়, আমাদের খনিজ সম্পদের দিকে। আমাদের মাটির নিচে যে গ্যাস-তেল রয়েছে, সেটা আরও পাচঁশ থেকে এক হাজার বছর চলবে। সারা পৃথিবীতে কোথাও বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দেয় নাই। আর শেখ হাসিনা বাংলার মানুষকে বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দিছে। তিনি দেশটাকে আরও উন্নত করতে চায়।’

‘জননেত্রী শেখ হাসিনার আমলে যত ভাতা দেওয়া হইছে, নাম বলা শুরু করলে ১০ মিনিট লেগে যাবে। কোন উন্নয়ন হয় নাই? সমুদ্রের তল দিয়ে রাস্তা, মাথার উপর দিয়ে ট্রেন, পদ্মা সেতু। খালেদা জিয়া বলেছিলো, পদ্মা নদীর উপর দিয়ে সেতু করা সম্ভব না। অসম্ভবকে যে সম্ভব করে, তার নাম শেখ হাসিনা। আপনারা শেখ হাসিনার দিকে তাকিয়ে, আপনারা সবাই ভোট কেন্দ্রে যাবেন। যিনি আপনার সন্তানের ভবিষ্যত। অবশ্যই নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন।’

তিনি বলেন, ‘শামীম ওসমানের উন্নয়ন এই এলাকায় দৃশ্যমান। এই মুজিব নগর আগে ছিলো অবহেলিত। এই এলাকায় যেখানেই উন্নয়ন দেখবেন, বুঝে নিবেন সেখানেই শামীম ওসমানের ছোয়া রয়েছে। আবার আপনারা দেখবেন, নির্বাচনের পরের দিনেই উন্নয়নের জন্য সে আবারো মাঠে নেমেছে। শামীম ওসমান ১৯৯৬ সালে এমপি হওয়ার পরে, এই অঞ্চলে পাকা রস্তা হয়েছে, বিভিন্ন স্থানে ব্রীজ হয়েছে, বিদ্যুৎসহ বহু উন্নয়ন হয়েছে। অনেকে বলে শামীম ওসমানের কোন শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী নাই। আমরা কাউছে ছোট করে দেখি না। তারা নির্বাচনে প্রতিযোগীতা করছেন, তাদের প্রতি আমাদের সম্মান রয়েছে।’

বিএনপির সমালোচনা করে মহানগর আওয়ামী লীগের এই শীর্ষ নেতা বলেন, ‘আজকে এসেছি বিএনপিকে ওদের অপকর্মের জবাব দেওয়ার জন্য। ওরা সারাদেশে রাজনীতির নামে মানুষ হত্যা করছে। ওদের হাত থেকে প্রশাসন-সাংবাদিক কেউ রক্ষা পায় না। নির্বাচনে ওদের ভরাডুবি হবে, সেটা ওরা জানে। তাই অজুহাত দেখিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলো না। নির্বাচন আগামী ৭ তারিখেই হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি বলছে ওরা নির্বাচনে না এলে, মানুষ ভোট দিতে যাবে না। ওদের মুখে চুনকালী লাগাতে হবে আগামী ৭ তারিখ। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে প্রতি ২০০জন ভোটারের জন্য ২জন মানুষ নিয়োগ করবেন।’

এসময় তিনি আগামী ৪ জানুয়ারী ফতুল্লার ইসদাইর শামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে সকলকে সেই জনসমাবেশে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানান।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন- মো. শেখ আল আমিন, মো. আকতার, দেলোয়ার হোসেন, মো. জয়নাল, মো. সোহাগ, সালাম, ইয়াজল সরদার, মুকুল হোসেন রাসেল, মাসুদুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

RSS
Follow by Email