Mon, 18 Jun, 2018
 
logo
 

পারভেজ আহমেদের ৩ দশকের রাজনীতি


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আজ পারভেজ আহমেদের ৪৫ তম জন্মদিন। ১৯৭৩ সালের ৩ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার জালকুঁড়ি এলাকার জাবেদ আলী ও রাবেয়া খাতুন দম্পতির ঘরে জন্মগ্রহণ করেন এই রাজনীতিক। ২ ভাই ও ২ বোনের মাঝে তিনি ছিলেন তৃতীয় সন্তান।

ঢাকার অন্যতম পুরাতন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নবাবপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৯০ সালে মেট্টিক, ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৯১ সালে ইন্টারমিডিয়েট ও ১৯৯৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি (অনার্স) ও ১৯৯৭ সালে মাস্টার্স করেন। ১৯৯৯ সালে উচ্চ শিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অফ সিডনিতে  যান। পরবর্তীতে ডিগ্রী অর্জন শেষে ২০০৫ সালে ৫ এপ্রিল বাংলাদেশে ফেরেন পারভেজ আহমেদ।

১৯৯৯ সালে প্রথম আইন পেশার সনদ লাভ করলেও উচ্চ শিক্ষার জন্য অস্ট্রেলিয়ায় যওয়ায় ২০০৫ সালে পুনরায় আইন পেশায় সর্ম্পৃক্ত হন। বাংলাদেশের স্বনামধন্য সাংবাদিক শফিক রেহমান’র নেতৃত্বে গ্রুপ ২০০৯ (জি৯) এর অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়া আইনজীবীদের নিয়ে গঠিত তারেক রহমানের সংগঠন কবার্সের অন্যতম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

ছাত্রজীবন থেকেই জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ছাত্র রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন তিনি। ১৯৯১ সালে ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন। নারায়ণগঞ্জর স্থানীয় রাজনীতির সাথে প্রথমে সদস্য, পরবর্তীতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির আহ্বায়ক ও বর্তমানে জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

পারভেজ আহমেদ  ২০০৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে  বিএনপি থেকে মনোনয়ন আবেদন করেন। যদিও পরবর্তীতে ওই নির্বাচনটি বাতিল হয়েছিলো। তারপরে ১/১১ এর সময় দলের দু:সময়ে তারেক রহমানের আইনজীবী হিসেবে সকল মামলায় অংশগ্রহণ করেন। ২০০৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সিদ্ধিরগঞ্জ-সোনারগাঁ) আসনে মনোনয়নের চেয়েছিলেন।

২০০১ সালে ২৬ আগস্ট শান্তা আহম্মেদ’র সাথে পারিবারিক ভাবেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন পারভেজ আহমেদ। বর্তমানে তিনি ৮ বছরের কন্যা শিশুর জনক। প্রিয় রঙ নীল, প্রিয় ফুল গোলাপ ও প্রিয় খাবার পিৎজা।

জন্মদিনে রাজনীতি সর্ম্পকে জানতে চাইলে এই বিএনপি নেতা বলেন, যখন গণতন্ত্রের পক্ষে কথা বলার জন্য কাউকে খুঁজে পাওয়া যেতো না। আবার কেউ যদি কথা বলতো, তাকেও গুম করা হতো, এমন পরিস্থিতিতে আমি দলের পক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে বিভিন্ন সভা, সমাবেশ, সংবাদপত্র, সেমিনার, টিভি টক শো’তে বলেছি। এখনো বিভিন্ন সভা-সমাবেশ, টকশোতে নিয়মিত গণতন্ত্রের কথা বলছি। আগামীতেও এভাবেই বলবো।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম