Mon, 18 Feb, 2019
 
logo
 

না.গঞ্জের সুমনারা যেভাবে হচ্ছে ‘যৌনদাসী’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পরিবারে অভাব লেগেই ছিলো সুমনার (ছদ্মনাম)। তার উপর পেয়েছে বিদেশে মোটা অঙ্কের টাকা কামানোর চাকরির প্রস্তাব। তাই একটু ভালো থাকার আশায় দিক-বিদিক না তাকিয়ে ‘হ্যা’ বলেছেন ওই নারী। কিন্তু প্রবাসে পা রাখতেই ঘোর কেটেছে, ভেঙ্গেছে স্বাচ্ছন্দে জীবন কাটানোর স্বপ্নও।

বন্দর উপজেলার দক্ষিন কলাবাগ খালপাড়া এলাকায় হতদরিদ্র ২১ বছর বয়সী ওই যুবতীর সাথে ঘটে এ ঘটনা ।

দুবাই পৌছানোর এক দিনের পরিবারের কাছে সুমনা ফোন করে জানান, তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে দাসত্বমূলক কাজে নিয়োজিত করা হয়েছে। কিন্তু সে কাজ করতে না চাওয়ায় তার উপর অত্যাচার করা হচ্ছে।

এঘটনায় সুমনার বড় বোন মাকসুদা আক্তার বাদি হয়ে মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় জড়িত থাকা ১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পরে আদালতে উঠানো হলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নূর নাহান ইয়াসমিন আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২দিনের নির্মান্ডে নেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।

রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন বন্দর উপজেলার দক্ষিন কলাবাগ খালপাড়া এলাকায় মৃত আব্দুল খালেকের স্ত্রী মোসাম্মত রহিমা ওরফে জোছনা (৫০)।

পুলিশ তদন্তে জানা গেছে, বন্দর এলাকার সুমনাকে (২১) মোটা অঙ্কের টাকায় ভালো চাকরীর কথা বলে ৯০ হাজার টাকার বিনিময় বিদেশে পাঠায়। কিন্তু দুবাই থেকে ফোন করে জানায় তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে দাসত্বমূলক কাজে নিয়োজিত করেছে। সে কাজ করতে না চাওয়ায় তার উপর অত্যাচার করা হচ্ছে।

এঘটনায় আদালতে বন্দর থানা পুলিশের এসআই সাখাওয়াত হোসেন মৃধা জানান, বর্তমানে সুমনা দুবাইতে মানবেতর জীবন যাপন করছিলেন। শুধু সনিয়াই নয়, বন্দর থানা এলাকা ও এর আশাপাশের নিরিহ, সরল বিশ্বাসী মহিলাদের ভালো বেতনে বিদেশে চাকুরীর লোভ দেখিয়ে বিদেশে নিয়ে আসামাজিক ও দাসত্বমূলক কাজ করতে বাধ্য করে এবং না করলে নির্যাতন করে চক্রটি।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম