Fri, 20 Oct, 2017
 
logo
 

কালিরবাজাস্থ ঐতিহ্যবাহি পুরাতন কোট লাল ভবনটি সংরক্ষণে রাখা হোক: দাবি সচেতনমহলের

নারায়ণগঞ্জ শহরের কালিরবাজাস্থ ঐতিহ্যবাহি লাল ভবনটি আর থাকছে না। এই ভবনটি আগামী প্রজন্মের জন্য সংরক্ষণ করে রাখার দাবি জানিয়েছে সচেতন মহল। কালিরবাজার পুরাতন কোটস্থ ঐতিহ্যবাহি এই ভবনটিতে থাকা জেলা ট্রাফিক অফিস, ফায়ার সার্ভিস জেলা অফিস, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক),

জেলা সঞ্চয় অফিস, স্কুল হেলথ, ভোক্তা, জেলা ক্রীড়া, শিল্পকলা এবং ভূমি জরিপ অফিসকে গত ৮/০৫/২০১৬ তারিখে গণপূর্ত বিভাগ নারায়ণগঞ্জ এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী স্বাক্ষরিত পত্র মারফত জানানো হয় ১ মাসের মধ্যে সমস্ত অফিস অন্যত্র সরিয়ে নিতে হবে। কারণ ঐতিহ্যবাহী ভবনটি ভেঙ্গে ঐ খানে নতুন ভবন তৈরী হবে। এই লাল ভবনটি প্রতিষ্ঠা হওয়ার পরে থেকে তৎকালিন জেলা প্রশাসকের কার্যক্রম পরিচালিত হত। পরবর্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলায় জেলা প্রশাসকের নতুন ভবন তৈরী হলে লাল ভবন হতে কার্যক্রম নতুন ভবনে স্থানান্তর করে কাজ শুরু হয়। পরবর্তিতে উক্ত ভবনে ৯টি সরকারি অফিস গণর্পূত বিভাগের মাধ্যমে বরাদ্দ নিয়ে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

 

এবিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অফিসের কর্মকর্তারা বলেন, আমরা দীর্ঘদিন যাবৎ এখানে অফিস পরিচালনা করছি। আমরা শুনেছি আমাদের এই পুরাতন কোটে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহি লাল ভবনটি ভেঙ্গে এখানে শিল্পকলা একাডেমি নির্মাণ করা হবে। আমরা সরকারি কর্মচারি। যেখানে আমাদের অফিস হবে, সেখানেই আমরা অফিস করতে বাধ্য থাকি। শুধু এতটুকু বলতে চাই, নারায়ণগঞ্জে যতোগুলো ঐতিহ্যবাহি ভবন আছে, তার মধ্যে এই লাল ভবনটি অন্যতম। তাই এই ভবনটি নারায়ণগঞ্জে ঐতিহ্যের স্বার্থে না ভেঙ্গে রাখা হোক।  কারণ এই ভবনের পিছনে অনেক জায়গা আছে যেখানে শিল্পকলা একাডেমির বহুতল ভবন নির্মাণ করা সম্ভব।

 

নগরীর সুশীল সমাজ ও সাধারণ জনগণের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জে ঐতিহ্যবাহি অনেক কিছুই আছে। তাদের মধ্যে পুরাতন কোটের লাল ভবনটি একটি। নারায়ণগঞ্জে একটি শিল্পকলা একাডেমি হচ্ছে, এটাকে আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু এই ঐতিহ্যবাহি লাল ভবনটি না ভেঙ্গে না পিছনে যে বিপুল পরিমান জায়গা রয়েছে সেখানে শিল্পকলা ভবনটি করলে আগামী প্রজন্ম এই ঐতিহ্যবাহি লাল ভবনটির ইতিহাস সর্ম্পকে জানতে পারবে। তাই আমরা মনে করি, এই ভবনটি না ভেঙ্গে ভবনটির পেছনের জায়গাটিতে শিল্পকলা ভবন করলে এই ঐতিহ্যবাহি ভবনটি থেকে যাবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম