Fri, 14 Dec, 2018
 
logo
 

১২ কোটি টাকার মার্কেট ধরতে ব্যস্ত না.গঞ্জের অর্ধশত ছাপাখানা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: প্রতীক বরাদ্দের পরই শুরু হবে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। আর এই প্রচারণার অন্যতম অনুষঙ্গ হল পোস্টার, ব্যানার আর মাইক। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সব ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছে নারায়ণগঞ্জের ছাপাখানাগুলো।

শিল্পনগরীর ছাপাখানাগুলো নির্বাচনী পোস্টার, স্টিকার, লিফলেট, ব্যানার তৈরির কাজে সরগরম হয়ে উঠেছে। গত নির্বাচনে অন্যতম রাজনৈতিক দল বিএনপি অংশ না নেয়ায় মন্দা ছিল ব্যবসায়। তবে এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দল অংশগ্রহণ করায় ভালো ব্যবসার প্রত্যাশা করছেন ছাপাখানা ব্যবসায়ীরা।

১২ কোটি টাকার মার্কেট ধরতে ব্যস্ত না.গঞ্জের অর্ধশত ছাপাখানা

নারায়ণগঞ্জে সংসদীয় আসন রয়েছে ৫টি। এ সকল আসনে এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৪৭ জনের মনোনয়ন বৈধ বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন আইন অনুযায়ী, প্রতিটি প্রার্থী সর্বোচ্চ ২৫ লাখ টাকা ব্যায় করতে পারবেন। সেই হিসেবে এবার নির্বাচনী প্রচারণায় নারায়ণগঞ্জের প্রায় পৌনে ১২ কোটি টাকার মার্কেট ধরবে অর্ধশত ছাপাখানা।

সীমা প্রিন্টিং এর কর্মচারী মো. ইউনুস বলেন, নির্বাচনের প্রচারের জন্য এখনো কোন কাজ আসে নাই। সারা বছর যেমনি তেমনি কেটে গেলেও আমরা নির্বাচনের কাজ গুলো পাওয়া ও করার প্রত্যাশায় থাকি। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কাজ আছে নাই। তাই হাত পা ঘুটিয়ে বসে আছি। তবে আশা করি মার্কা চিহিৃত হলে কাজ পাবো।

ওসামান প্রিন্টার্সের মালিক নাজির হোসেন বলেন, এখনো ছাপানোর কোন চাপ নেই। কিন্তু প্রতীক বরাদ্দ করার পর থেকে নির্বাচনের দিন পর্যন্ত ছাপাখানা গুলোতে প্রার্থী কিংবা তার সহকর্মীদের ভিড় থাকবে।

মৌ কম্পিউটার এন্ড প্রিন্টার্স ছাপাখানার কর্মচারী মো. ফরহাদ বলেন, প্রার্থীদের জন্য আগে থেকেই বেশ কিছু ডিজাইন তৈরি করে রেখেছেন এবং বেশির ভাগ প্রচারসামগ্রী প্রস্তুত রয়েছে। এখনো পর্যন্ত আসন্ন নির্বাচনের কাজ আছে নাই। তবে মার্কা ঘোষণার পরে প্রচার সামগ্রীর জন্য কাগজের ডিজাইন ও ছাপানোর কাজ শুরু হবে।

তবে নির্বাচন কর্মকর্তা জানান, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে কেউ ছাপাখানা কিংবা মাইকের ব্যবসা করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম