Sat, 15 Dec, 2018
 
logo
 

নগরীতে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে তিলা ঘুঘু

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বনের পাখি তিলা ঘুঘু। শিকার ও বিক্রি আইনত নিষিদ্ধ হলেও নারায়ণগঞ্জ নগরে বিরল এই পাখি বিক্রি হচ্ছে প্রকাশ্যে। ব্যস্ততম সড়ক এলাকায় ওই তিলা ঘুঘুর কেনাবেচা দেখা গেছে।


বঙ্গবন্ধু সড়ক জুড়ে রয়েছে সরকারি বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। স্থানীয় লোকজন জানান, ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতারা ওই এলাকায় প্রায়ই পাখি বিক্রি করেন।

নগরীতে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে তিলা ঘুঘু

মঙ্গলবার সরেজমিনে দেখা যায়, কয়েকজন বিক্রেতা খাচার মধ্যে ফেরি করে বিক্রি করে পাখি বিক্রি করছেন। তিলা ঘুঘু ছাড়াও রয়েছে হরেক রকম পাখি। মধুর সুরে গান গেয়ে যেন স্বাগত জানাল। সাদা, কালো, লাল, নীল, সবুজ, হলুদ, টিয়ের পাখা ঝাপটানো দেখে ক্রেতারা কেনার জন্য ভিড় জমাচ্ছেন।

তবে বিক্রিতাদের দাবি, খাঁচায় পোষা যায় এমন পাখিগুলোর আদিনিবাস অস্ট্রেলিয়ায়। এরপর ভারত হয়ে বাংলাদেশে আসে। এখন এগুলো দেশের বিভিন্ন স্থানে চাষও হচ্ছে। তবে আকারে ছোট হওয়ায় সহজেই এরা বড় পাখির আক্রমণের শিকার হয়। ফলে খাঁচার বাইরে এরা সহজে বাঁচতে পারে না। তাই এদের জন্ম খাঁচায়, মৃত্যুও।

ক্রেতা সেজে জানতে চাইলে সবুজ মিয়া নামের এক বিক্রেতা জানান, পাখি গুলো তিলা ঘুঘু হলেও চাষের। বাংলাদেশী ঘুঘুর সাথে জাপানী ঘুঘুর জাত এটি।

ওই বিক্রেতারা আরো জানান, এক ‘জোড়া’ ঘুঘু তাঁরা ৬০০ টাকায় করে কিনেছেন। তাঁরা দাম হাঁকছেন দের-দুই হাজার টাকা। পরে জোড়া হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়।

নগরীতে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে তিলা ঘুঘু

জানা গেছে, বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আদেশ ১৯৭৩-এর ৩ নম্বর তফসিলের ৫ নম্বর অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে— ওপরের যেকোনো ধরনের বন্যপ্রাণী শিকার, মারা, ধরা, আটক অথবা খাঁচায় বন্দী করে রাখলে ঘটনাসাপেক্ষে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে সর্বনিম্ন ছয় মাস থেকে সর্বোচ্চ এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডসহ সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

বাপার এক নেতা জানান, বন কর্মকর্তার দপ্তর থেকে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের পরিদর্শক দল পাখি বিক্রি ও শিকারবিরোধী অভিযান চালায়। তাদের কর্মতৎপরতা নিয়মিত না হওয়ায় ইতিবাচক কোনো পরিবর্তন আসছে না।

তবে বিষয়টি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ বন বিভাগের ওয়েব সাইটে থাকা সহকারী বন সংরক্ষক মোহসীনা বেগম, ফরেষ্ট রেঞ্জার মো. মনিরুজ্জামান ও মো. ইসমাইল হোসেন খানের সাথে যোগাযোগ হলেন তারা জানান, অনেক আগেই নারায়ণগঞ্জ থেকে চলে এসেছি।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম