Tue, 20 Nov, 2018
 
logo
 

সড়কে অতিরিক্ত ওজনের গাড়ি: নষ্ট হচ্ছে না.গঞ্জের হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালে সংস্কার করা হয় ফতুল্লার স্টেডিয়াম-পাগলা সড়ক। কিন্তু মাস তিনেক না যেতেই বেহাল অবস্থায় পরিনত হয় রাস্তাটি। এরপর এক এক করে চলে গেছে ৩টি বছর। বর্তমানে চলাচলের প্রায় অনুপযোগী হয়ে পরেছে।

স্টেডিয়াম-পাগলা সড়কই নয়, একই অবস্থা নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার শিবু মার্কেট-হাজীগঞ্জ সড়কের। কয়েক বছর যাবতই চলাচলের অনুপযোগী । মাঝে মাঝেই পরিবহন গুলো ফেঁসে যাচ্ছে রাস্তায়।

সম্প্রতি স্থানীয় সরকারের (এলজিইডি) নারায়ণগঞ্জের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী স্বপন কান্তি পাল বলেন, অতিরিক্ত ওজন নিয়ে ট্রাক ও যানবাহন চলার কারণে রাস্তাগুলো নির্ধারিত সময়ের আগেই নষ্ট হয়ে যায়।

সড়কে অতিরিক্ত ওজনের গাড়ি: নষ্ট হচ্ছে না.গঞ্জের হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জে এলজিইডি‘র অধীনে জেলার ৫টি উপজেলায় ২১৩ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে। এ উন্নয়ন কাজের বেশির ভাগই অতিরিক্ত ওজন নিয়ে ট্রাক ও যানবাহনগুলা চলার কারণে নষ্ট হয়েছে। কাজ সম্পন্ন হলে জেলার গ্রামীণ অবকাঠামোতে উন্নয়নের ব্যাপক ছোঁয়া লাগবে।

এদিকে আবুল হোসেন নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, ঠিকাধারী প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম ও অতিরিক্ত ওজন নিয়ে ট্রাক এবং যানবাহন চলার কারণে উন্নয়ন স্থায়ী হয় না। পাশাপাশি অতিরিক্ত ওজনের কারণে দূর্ঘটনাও বেশি হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পরিবহনের গায়ে লেখা ধারণ ক্ষমতা ‘৫ টন’। অথচ, পাড়া-মহল্লার গলি থেকে শুরু করে নগরীর প্রধান সড়কেও বৈয়ে বেড়াচ্ছে ১৫ টনেরও বেশি ওজনের পণ্য। জানতে চাইলে চালক বলেন, ‘নিয়ম মেনে পণ্য পরিবহন করলে আড়াই থেকে তিন গুণ পরিবহন বেড়ে যাবে। এই চাপ ভোক্তাদের ওপর পড়বে।’

সড়কে অতিরিক্ত ওজনের গাড়ি: নষ্ট হচ্ছে না.গঞ্জের হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দেশে ৬ থেকে ২৬ চাকার গাড়ি দিয়ে পণ্য পরিবহন করা হয়। এ জন্য ৬ চাকার গাড়ি সর্বোচ্চ ১৫ টন, ১০ চাকার গাড়ি ২৫ টন, ১৪ চাকার গাড়ি ৩৩ টন, ১৮ চাকার গাড়ি ৩৮ টন, ২২ চাকার গাড়ি ৪১ টন এবং ২৬ চাকার গাড়িকে ৪৪ টন পর্যন্ত মালামাল পরিবহন করার পরিসীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এই পরিসীমা অতিক্রম হলেই গাড়িগুলোকে জরিমানা গুনতে হবে।

গত ২০১৬ সালের জুলাই মাসে একটি প্রজ্ঞাপনে চাকাভেদে প্রতিটি শ্রেণির গাড়ির জরিমানার হারও নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত পণ্য পরিবহনের জন্য চারটি ধাপ পর্যন্ত এই জরিমানা দিতে হবে। জরিমানার হার সর্বনিম্ন ২ হাজার এবং সর্বোচ্চ ১২ হাজার টাকা। যেমন ৬ চাকার গাড়ি ১৫ টনের বেশি, অর্থাৎ সাড়ে ১৬ টন পর্যন্ত পণ্য পরিবহন করলে ২ হাজার টাকা, সোয়া ১৭ টন পর্যন্ত করলে ৪ হাজার টাকা, ১৮ টন পর্যন্ত ৬ হাজার টাকা এবং সর্বোচ্চ পৌনে ১৯ টন পর্যন্ত করলে ১২ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হবে। একইভাবে ২৬ চাকার গাড়ি ৪৮ দশমিক ৪ টন পর্যন্ত পণ্য পরিবহন করলে ২ হাজার টাকা, ৫০ দশমিক ৬ টন পর্যন্ত ৪ হাজার টাকা, ৫২ দশমিক ৮ টন পর্যন্ত করলে ৬ হাজার এবং ৫৫ টন পর্যন্ত করলে ১২ হাজার টাকা জরিমানা দিতে হবে।

এবিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ে ফোন করে যোগাযোগ করা হলে প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী আলিউল ফোনটি রিসিভ করেনি।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম