Tue, 16 Oct, 2018
 
logo
 

মেয়েকে ঈদের জামা দিতে পারবে কি রুমা?

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘আম্মা সবাই জামা কাপুর কিনা ফালাইছে। আমারে কিনা দিবা না, কউ না মা, দিবা না।’ মায়ের কাছে এমনই ভাবেই বলেছে ৬ বছর বয়সী ছোট মেয়ে রিয়া মনি। এক মাত্র মেয়ের আবদার পুরণ করতে না পেরে প্রতিদিনই আশ্বাস দিচ্ছেন মা রিতীকা ফ্যাশেনের সুইং অপারেটর রুমা আক্তার। বলে এসেছে, ‘আজই নতুন জামা নিয়া আমু।’

ঈদের আর মাত্র ৩ কি ৪ দিন বাকি। গত ৩ মাসের বকেয়া বেতন ও ভাতা পরিশোধের দাবিতে আন্দোলন করতে এসে মেয়েকে দিয়ে আসা কথা গুলো মলিন কণ্ঠে বলেন লাইভ নারায়ণগঞ্জের এই প্রতিনিধিকে।

রুমা আক্তার জানান, বৃদ্ধা মা মহিতুন বেগম ও রিয়া মনিকে নিয়ে ৩ জনের পরিবার। দোকান বাকি ও ঘর ভাড়া না দেওয়ায় বাজে কথা বলেছে ভাড়িওয়ালী ও দোকানী । এই মাসে টাকা না দিতে পারলে ঘরে তালা দিবে। তাই বাধ্য হয়ে মা ইট ভাঙ্গার কাজে লাগেছে। ঈদের মার্কেট করতে পারবো কি না জানি না।

জানা গেছে, গত ৭ মে দুই মাসের বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস না দিয়েই বন্ধ হয়েছে রামু সাহা ও মিতু রাণী সাহার মালিকানাধীন রিতিকা ফ্যাশেন। চলতি মাসসহ ৩ মাসের বকেয়া বেতন ও ভাতা পরিশোধের দাবিতে গত ১ মাস যাবত বিরুতিহীন আন্দোলন অবেহত রেখেছেন গার্মেন্টর ৯০ শ্রমিক। এ দীর্ঘ সময় কখনো ঘুরছেন গার্মেন্টস মালিকের ধুয়ারে। কখনো জেলা প্রশাসক, শ্রম পরিদর্শক, প্রেস ক্লাব ও বিকেএমইএ’র বারান্দায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন সু-নির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত আসেনি।

অন্যদিকে আছিয়া নামের গার্মেন্টস শ্রমিক বলেন, এক গ্লাস পানি খেয়ে রোজা রাখি। পানি খেয়েই ইফতার করি। মন চাইলেও ভালো কিছু খাইতে পারি না। কয় মাস যাবত পরিবারের মানুষ গুলোও যানি কেমন করে, মনে হয় দেখতে পারে না।

গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি এম এ শাহীন বলেন, রিতীকা নিটওয়ার গার্মেন্টের মালিক রাতের অন্ধকারে তালা ঝুলিয়ে দেয়, তাদের বেতন পরিশোধ না করেই। তাদের ছোট বাচ্চারা তার মাকে বলে সবাইতো ঈদের জামা কিনেছে কিন্তু আমরা কবে কিনবো। ছোট বাচ্চাদের ঈদে নতুন জামা কেনার আর্তনাদ থেকেই যাবে যদি ঈদের আগে তাদের বেতন পরিশোধ না করেন ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম বলেন, গত ১ মাস যাবত বকেয়া বেতনের জন্য আন্দোলন করছে শ্রমিক গুলো। যেখানে যা করার প্রয়োজন, সেখানে তাই করছে। রিতীকা ফ্যাশেনের মালিক নারায়ণগঞ্জেই আছে। কিন্তু কেন তাকে আইনের আওতায় এনে বিষয়টি সমাধান করছে না কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক বলেছেন ‘সমাধান করা হবে’। আমি আশা করবো আজকের মধ্যেই সমাধান কবেন।

এবিষয়ে রিতীকা ফ্যাশেনের মালিক মিতু রানি সাহা ও এমপি রামু সাহার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও ফোনটি বন্ধ থাকার কথা বলা সম্ভব হয়নি।

অন্যদিকে গার্মেন্টস মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিকেএমইএ’র পরিচালক ও সাবেক সহ-সভাপতি (অর্থ) জিএম ফারুক বলেন, রিতীকা ফ্যাশেন আমাদের সংগঠনের অন্তর ভুক্ত না। তাই আমাদের কিছুই করার নেই। তারপরেও আমরা গার্মেন্টসটির মালিকদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। কিন্তু তাদের কোন সন্ধান পায়নি।

এবিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তিনি ব্যস্ত থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম