Fri, 21 Sep, 2018
 
logo
 

নারায়ণগঞ্জ শহরে অসংখ্য ইংরেজি সাইনবোর্ড


লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ভাষা আন্দোলনের গৌরবগাঁথা ইতিহাসের সাথে জড়িত নারায়ণগঞ্জ। মায়ের ভাষা বাঙলার অধিকার আদায়ের সংগ্রামের ইতিহাসে এ শহরের নাম স্বর্নাক্ষরে লেখা আছে। তবে সেই ইতিহাসকে যেন অস্বীকার করতে চায় কিছু মানুষ। তারা নিজেদের প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডটুকু বাংলায় লিখতে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগে।


চাষাড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে একটি সুউচ্চ ভবনের নাম বেইলী টাওয়ার। এ ভবনেই রয়েছে একই নামের একটি বিদ্যালয়। তবে দু’টি নাম ফলকই ইংরেজিতে লেখা।শহরের সরকারি তোলারাম কলেজের সামনের সড়কটি নাম আল্লামা ইকবাল সড়ক। এ সড়কে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন কোচিং সেন্টার, প্রশিক্ষন কেন্দ্র। সরেজমিনে দেখা গেছে অনেকেই নিজেদের প্রতিষ্ঠানের নাম ইংরেজিতে লিখেছেন।


এমনি একটি সাইনবোর্ড চোখে পড়লো একটি ভবনে। প্রতিষ্ঠানের নাম ‘ একাডেমী অব ইকোনোমিকস’। প্রতিষ্ঠানের মালিকের নাম তার কর্মস্থলও একইভাবে ইংরেজিতে লেখা। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সবাই বাংলাদেশী, কোন বিদেশী এখানে পড়ে না।
এ ব্যপারে জানতে প্রতিষ্ঠানটির মালিক নাহিদা সুলতানার মোবাইল ফোনে কল দিলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।
ওই ভবনের নীচে ৪ শিক্ষকেরন নামসহ একটি বিলবোর্ড টানানো আছে। সেখানেও সব কিছু ইংরেজিতে লেখা। এ নিয়ে কথা হয় ওই সাইনবোর্ডে নাম রয়েছে এমন একজন শিক্ষকের সাথে। বিবিএ ও এমবিএ’র অর্থনীতি পড়ানো মো. আলাউদ্দিন নামের ওই শিক্ষক জানান, বিবিএ ও এমবিএ ২য় বর্ষের বেশীর ভাগ বই ইংরেজিতে থাকে। এ কারনে সাইনবোর্ডও ইংরেজিতে লেখা হয়েছে।


এই সড়ক ছাড়াও শহরের অনেক প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডও ইংরেজিতে লেখা। সচেতন মহলের মতে, জেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোন নজর রাখে না বলেই এমনটা ঘটছে।
এ বিষয়ে সরকারি তোলারাম কলেজের বাঙলা বিভাগের অধ্যাপক মুক্তিযোদ্ধা ও অভিনেতা জিয়াউল হাসান লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, এটা ইংরেজির প্রতি অকারনে প্রীতি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দেশের প্রতি মমত্ববোধ থাকলে এটা কেউ করতে পারে না। তিনি মনে করেন, এ বিষয়ে অভিভাবক, রাজনীতিক এবং শিক্ষকদের সচেতন হতে হবে। তার মতে, শিক্ষা জীবন থেকেই অনেকের মধ্যে নিজের ভাষা পরিহার করার একটা প্রবণতা তৈরী হয়। তবে তারা না ভালো বাঙলা বলতে পারে না ভালো ইংরেজি।
নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, বাংলা ভাষার আন্দোলনই পরবর্তীতে দেশ স্বাধীনের আন্দোলন সৃষ্টি করে। শহরের ইংরেজি সাইনবোর্ডগুলোর বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিলে এমনটা রোধ করা সম্ভব বলে মনে করেন এ নাগরিক নেতা।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম