Wed, 13 Dec, 2017
 
logo
 

এমপি-উপজেলা চেয়ারম্যান নিয়ন্ত্রণ করবেন না.গঞ্জের ৩৯ টি ইউপির গ্রামীণ সড়ক


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের ৩৯টি ইউনিয়নের গ্রামীণ সড়ক স্থানীয় সরকারের হাতে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। দুই কিলোমিটারের কম দৈর্ঘ্যরে (টাইপ ‘বি’) এসব সড়ক এখন থেকে মেরামত, সংস্কার ও তত্ত্বাবধান করবে উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটি।

যার নেতৃত্বে থাকবেন স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) ও উপজেলা চেয়ারম্যানরা। এর মধ্য দিয়ে কার্যত এসব সড়ক নিয়ন্ত্রণ করবেন তারাই। যদিও এত দিন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নিয়ন্ত্রণেই ছিল এসব গ্রামীণ সড়কের ব্যবস্থাপনা।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যানদের নিয়ন্ত্রণ নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে সড়কের মানের ওপর। সড়ক সংস্কারে ঠিকাদার নিয়োগে থাকবে রাজনৈতিক প্রভাব। অতিরিক্ত ব্যয়ের পাশাপাশি কাজও হবে নিম্নমানের। এতে দুর্বল হবে স্থানীয় সরকারের হাতে ছেড়ে দেয়া গ্রামীণ সড়ক।
জানা যায়, গত ১১ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে দুই কিলোমিটারের কম দৈর্ঘ্যরে গ্রামীণ সড়কগুলো স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের (এলজিআই) হাতে ছেড়ে দেয়ার এ সিদ্ধান্ত হয়। এরপর গত ২৯ অক্টোবর এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে পরিকল্পনা কমিশন। প্রজ্ঞাপনে এলজিইডির অধীনে রয়েছে উপজেলা, ইউনিয়ন, টাইপ ‘এ’ ও টাইপ ‘বি’ (দুই কিলোমিটার বা এর বেশি দৈর্ঘ্যরে) শ্রেণীর সড়কের সংখ্যাও উল্লেখ করা হয়।
নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এলজিআইয়ের অধীন এসব গ্রাম সড়ক সংস্কার ও তত্ত্বাবধান করবে উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটি, যার উপদেষ্টা হবেন এমপি। কমিটির সভাপতি থাকবেন স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান ও সদস্য সচিব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দের একটি অংশ ব্যয় হবে এসব সড়ক সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণে।
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ডিপার্টমেন্ট অব আরবান অ্যান্ড রিজিওনাল প্ল্যানিংয়ের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শাকিল আখতার এ প্রসঙ্গে বলেন, গ্রামীণ সড়ক নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণে বুয়েটের পরামর্শে এলজিইডির একটি নীতিমালা রয়েছে, যার মধ্যে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের কথা উল্লেখ নেই। এছাড়া স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানে এ সংক্রান্ত কোনো বিশেষজ্ঞও নেই। তাই এলজিআইয়ের হাতে ছেড়ে দেয়ার ফলে নিম্নমানের কাজ যেমন হবে, একইভাবে সরকারের ব্যয়ও বাড়বে। গ্রামীণ যেকোনো অবকাঠামো নির্মাণে এলজিইডির তদারকি ও অংশগ্রহণের বিকল্প নেই।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম