Tue, 28 Feb, 2017
 
logo
 

‘দূরন্ত কৈশোর, বারন্ত শিশু’ ঝরতে পারে প্রাণ

আয়শা জান্নাত, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘দূরন্ত কৈশোর, বারন্ত শিশু’ এই বয়সে মানে না কারো বাধা । এই বয়েসে স্কুল ফাকি দিয়ে স্বাধীন ও মুক্তভাবে ঘুরে বেড়াতে চায় । তারা বুঝে উঠতে পারে না তারা কি করছে বা কি করবে না ।

মানুষের জীবনের সবচেয়ে মধুর সময় তার কৈশোর। এই সময়টাতেই ভিত্তি স্থাপন হয় আমাদের জীবনের। জীবনের লক্ষ্য থেকে শুরু করে প্রিয় মানুষের ভালোবাসা সব কিছুই যেন এই সময়ে এসে ধরা দেয় হাতের মুঠোয়। এই সময়ে ভুল করার সম্ভাবনা প্রবলতা বেশি।

তাই এই সময় বাবা-মার ভূমিকা রাখতে হবে সবচেয়ে বেশি। তার সন্তান কোথায় যাচ্ছে কি করছে এর পাশাপাশি খেয়াল রাখবে শিক্ষকগণও। কৈশোরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ বন্ধুবান্ধব। আর এই বন্ধুবান্ধব এর কারনে কৈশোরের একটি ভুল যেমন জীবনকে নষ্ট করতে যথেষ্ট তেমনি প্রতিভাকে কাজে লাগানোরও উত্তম সময় এটি।

‘দূরন্ত কৈশোর, বারন্ত শিশু’ ঝরতে পারে প্রাণ

বুধবার (১১ই জানুয়ারি) সকাল পৌনে ১০টায় সরকারি আই.ই.টি স্কুল ছুটির পর শিক্ষার্থীরা পরিবহনের ছাদে উঠে চাষাড়া এলাকায় আসেন। এসময় চলন্ত এ পরিবহনটির ছাদে হই হুল্লরসহ নানা ধরণের দুস্টুমি করেছেন।

এসময় পাশের পরিবহনে থাকা যাত্রী আর মোহাম্মদ বলেন, যে ভাবে ছাত্র গুলো চলাচল করছেন এতে করে যে কোন সময় দূরঘটনা ঘটতে পাড়ে এবং ঝড়ে যেতে পারে এক নিস্তেজ প্রাণ। এজন্য পরিবহনের ড্রাইভার, হেলপার, স্কুলের শিক্ষক ও অভিভাবকদের সন্তানের উপর নজর রাখা জরুরি।

আ.ই.টি স্কুলের প্রধার শিক্ষক রমেশ চন্দ্র কুন্ডু বলেন, এই বিষয় আমি জানি না, তবে এখন যেহেতু জানতে পেরেছি আমি তাদের অভিভাবকদের বিষয়টি অবহিত করবো।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪