Mon, 16 Jul, 2018
 
logo
 

বুকে সার্জারীর সুযোগ নিচ্ছে কিলার পিন্টু

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বুক থেকে নাভী পর্যন্ত বিশাল কাটার দাগ। ভারতের ব্যাংগালুরে ওপেন হার্ট সার্জারী হয়েছে। সাথে নিয়ে গিয়ে যে ঘনিষ্ঠ বন্ধু নতুন জীবন দিয়েছে সেই প্রবীর ঘোষকেই টুকরো টুকরো করে নির্মমভাবে হত্যা করে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ রিামান্ডে থাকা ঠান্ডা মাথার খুনী পিন্টু দেবনাথ। ওপেন হার্ট সার্জারীর কারনে আস্তে-ধীরেই এগুচ্ছে ডিবি পুলিশ। কখনো গড়গড় করে কথা বলছে পিন্টু, আবার কখনো বলছে আমি কিছু জানিনা, সব ভুলে গেছি।

মুলত ওপেন হার্ট সার্জারীর সুযোগে নিয়েই এমন আধ পাগলা আচরন করছে সে। এভাবেই কৌশলে তথ্য আদায় করছে চতুর খুনী পিন্টু দেবনাথের কাছ থেকে। স্বর্ন ব্যবসায়ী প্রবীর ঘোষ অপহরণ ও হত্যা মামলার তদন্তকারী ডিবি পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ইসলাম লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ও (ঘাতক পিন্টু) খুবই চতুর। অনেক কৌশল জানে। আইটি সম্পর্কেও ভালো ধারনা আছে। একারনে প্রবীরের মোবাইল ফোনটি দিয়ে সহযোগী বাপন ওরফে বাবুকে অনেক দূরে পাঠিয়ে দেয় পিন্টু। অপরদিকে সে নিজে প্রবীর নিখোঁজ হওয়ার প্রতিবাদ আন্দোলনে সোচ্চার ভুমিকা রাখতে থাকে। মুলত গোয়েন্দা পুলিশ প্রবীরের মোবাইল ফোন সহ বাপন ওরফে বাবুকে আটকের পরই ট্রেকিংএর মাধ্যমে জানতে পারে যে প্রবীর নিখোঁজের পর বাপনকে সর্বোচ্চ ৭৯ বার ফোন দিয়েছে পিন্টু। এরপরই পিন্টুকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ।
উল্লেখ্য যে, নিখোঁজের ২১ দিন পর সোমবার (৯ জুলাই) রাত ১১টায় শহরের আমলপাড়া এলাকার ঠান্ডু মিয়ার চারতলা ভবনের নিচে সেপটিক ট্যাংক থেকে প্রবীরের টুকরা টুকরা লাশ উদ্ধার করা হয়।
এর আগে তার সন্ধান দাবিতে ২১ দিন ধরে বিভিন্ন সময়ে ব্যবসায়ী, নিহতের স্বজন, বিভিন্ন সংগঠন ও পরিবারের লোকজন মানববন্ধন ও সমাবেশ করে আসছিল। এর মধ্যে নিহতের পরিবার প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপিও দেয়।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম