Tue, 11 Dec, 2018
 
logo
 

না.গঞ্জ টার্মিনালে লাইন্সেস ধারী চালক সংকট, হাজারো যাত্রী অপেক্ষায়

গোলাম রাব্বি, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: হাতে টিকিট নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে শ্যামল রায়হান। কখনো ঘড়ি, আবার কখনো গাড়িতে তাকাচ্ছেন এ বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তা। এভাবেই চলে গেছে পুরো অর্ধঘন্টা। কিন্তু তারপরেও যেন শেষ হচ্ছে না অপেক্ষার প্রহর।

অন্যদিকে ঢাকায় যাওয়ার জন্য ঘন্টা খানেক অপেক্ষা করেও কাঙ্গিত গাড়ির দেখা পাচ্ছে না টানবাজার এলাকার ব্যবসায়ী সবুজ আহম্মেদ। তিনি বলেন, ‘দুপুর ২টার মধ্যে না পৌছাতে পারলে, বহু বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।’

না.গঞ্জ টার্মিনালে লাইন্সেস ধারী চালক সংকট, হাজারো যাত্রী অপেক্ষায়
শুধু শ্যামল রায়হান কিংবা সবুজ আহম্মেদ’ই নয়, মঙ্গলবার (৮ আগষ্ট) দুপুর ১২টায় নগরীর বাস ট্রামিনালে ৩‘শতাধিক যাত্রী গণপরিবহনের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকাতে দেখা যায়। এসময় বন্ধু পরিবহন কর্তৃপক্ষ বাস ব্যবস্থা করতে না পেরে টিকেট ফিরতও নিয়েছেন। কারণ সারিসারি পরিবহন থাকলেও ছিল না চালক।
ক্ষোভ প্রকাশ করে যাত্রী শ্যামল রায়হান বলেন, বাস না চলাচল করলে, কাউন্টার খোলা রেখেছে কেন? আর টিকিটই বা বিক্রি করলো কেন?
জেলা পুলিশের পরিসংখ্যান বলছে, ট্রাফিক সপ্তাহের প্রথম দুই দিনেই ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের দায়ে নারায়ণগঞ্জের মোট ১ হাজারের অধিক মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ট্রাফিক বিভাগে মামলা হয়েছে ৬৪৩টি। বাকি মামলা গুলো করেছে জেলা পুলিশ।
ট্রাফিক পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুর রশিদ বলেন, ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে ট্রাফিক বিভাগের পাশাপাশি নগরীর সদর, সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লা থানায় ৮টি সহ জেলার অন্যান্য থানায় চেকপোস্ট থেকে আরো ৫ শতাধিক মামলা দায়ের করা হয়।
এর আগে লাইন্সেস না থাকায় নারায়ণগঞ্জের ৩ শতাধিক পরিবহনের চাবি নিয়ে ছিলেন নগরীতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

না.গঞ্জ টার্মিনালে লাইন্সেস ধারী চালক সংকট, হাজারো যাত্রী অপেক্ষায়
নাম প্রকাশ না করার শর্তে পরিবহনগুলোর একাধিক চালন জানান, অনেক পরিবহনেরই ফিটনেসসহ প্রয়োজনিয় কাগজপত্র নেই। অধিকাংশ চালকের নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। তাই ড্রাইভিং লাইসেন্স, যানবাহনের ফিটনেস আর কাগজপত্র নবায়নে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন চালক-মালিকরা।
অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন আর পুলিশের ট্রাফিক সপ্তাহের প্রভাব পড়েছে কাউন্টারগুলোতে। ড্রাইভিং লাইসেন্স, যানবাহনের ফিটনেসসহ প্রয়োজনিয় কাগজপত্র না থাকায় বন্ধু পরিবহনের ৩৪টি বাসের মধ্যে ১২টি বাস সড়কে চলছে। উৎসব ৫০ টির মধ্যে ২০ টি, বন্ধন ৪৯টির মধ্যে ৩৫ টি ও আনন্দ বাস মাত্র ৫টি চলছে।
এবিষয়ে নারায়ণগঞ্জ মিনিবাস মালিক ঐক্য জোটের সভাপতি মো. মোক্তার হোসেন বলেন, টিকিট ফেরত দেওয়া হয়েছে কিনা? সেটা আমার জানা নেই। তবে গাড়ির সংখ্যা কম, এটা সত্য। ড্রাইভারদের লাইন্সেস না থাকায় কিছু টা কমেছে। তবে খুব দ্রুত ঠিক হয়ে যাবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম