Fri, 14 Dec, 2018
 
logo
 

সড়ক না মেঠোপথ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সড়কের বড় বড় গর্তে জমে আছে কাদাপানি। সড়কে চলতে গিয়ে বিকল হয়ে পড়ছে যানবাহন। আবার কোথাও সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। এই চিত্র ফতুল্লার স্টেডিয়াম-পাগলা সড়কের।

পথচারী ও গাড়িচালকেরা বলেন, দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। স্থানীয়দের উদ্যোগে মাঝে মধ্যে ইট-বালি ফেলা হলেও এর সুফল পাচ্ছেন না তাঁরা।

সড়ক না মেঠোপথ

উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালে সংস্কার করা হয় ফতুল্লার স্টেডিয়াম-পাগলা সড়ক। কিন্তু মাস তিনেক না যেতেই বেহাল অবস্থায় পরিনত হয় রাস্তাটি। এরপর এক এক করে চলে গেছে ৩টি বছর। বর্তমানে চলাচলের প্রায় অনুপযোগী হয়ে পরেছে।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, স্টেডিয়াম থেকে তক্কারমাঠ পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে দেড় থেকে দুই ফুট পর্যন্ত পানি জমে আছে। এর মধ্যেই মোটরসাইকেল, ব্যক্তিগত গাড়ি, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, বাস, ট্রাক ও পিকআপ চলাচল করছে। কিছুক্ষণ পরপরই এসব যানবাহনের কোনোটা গর্তে আটকে পড়ছে। এর ফলে কখনো কখনো যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। সড়কের দুই পাশ ঘেঁষে কাদাপানি মাড়িয়ে চলাচল করতে দেখা যায় পথচারীদের।

সড়ক না মেঠোপথ

নিজের সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ছেলেকে মাদ্রাসার কোচিং পৌঁছে দিতে যাওয়ার পথে স্টেডিয়াম এলাকায় যানজটে আটকা পড়েন মো. মোমিন। তিনি বলেন, ‘আধা ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে যানজটে আটকে আছি। সামনের একটি গাড়ির চাকাও ঘুরছে না। প্রায় প্রতিদিনই এই যানজটের কবলে পড়ে ছেলেকে নির্দিষ্ট সময়ে ক্লাসে পৌঁছানো সম্ভব হয় না।’

স্টেডিয়াম-তক্কারমাঠ সড়কে ৩ বছরের বেশি সময় ধরে অটোরিক্সা চালান এমন এক চালক বলেন, গর্ত ও পানির মধ্যে দিয়ে চালাতে গিয়ে তাঁর গাড়ি প্রায়ই বিকল হয়ে পড়ে। মাঝেমধ্যে উল্টে গিয়ে গাড়ির ক্ষতি হয়। মেরামত ছাড়া গাড়ি রাস্তায় নামানোই সম্ভব হয় না। এভাবে গত ৩ মাসে গাড়ি মেরামত বাবদ তাঁর খরচ হয়েছে অন্তত ১৫ হাজার টাকা। তাই বাধ্য হয়েছে এক কিলোমিটারের ভাড়া ১০ টাকা করতে।

জিরানী এলাকার চা-দোকানি নূরু মিয়া বলেন, ভাঙা সড়ক, কাদাপানি আর যানজট—এই তিনে মিলে তাঁদের বেহাল। এসব কারণে ব্যবসায়ও ধস নেমেছে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম