Tue, 16 Oct, 2018
 
logo
 

‘শামীম ওসমান এত উন্নয়ন করছে, একবারও এই রাস্তাটা চোখে পড়ে নাই?’

রাকিবুল ইসলাম, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘মানসে কয়, শামীম ওসমান হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করতাছে! হের চোখেকি একবারও এই রাস্তাটা পড়ে নাই? তারা কি আমাগ কষ্ট, আহাজারি শুনতে পায়না।’

শনিবার (২৮ জুলাই) দুপুরে আলীরটেক এবং বক্তাবলী দুই ইউপির মাঝে অবস্থিত ডিক্রিরচর টু কানাইনগর সড়কটিতে দাঁড়িয়ে অনেকটা ক্ষোভ নিয়েই কথা গুলো বলছিলেন ডিক্রিরচর বসবাসরত মাসুদা বেগম।

তার ভাষ্য মতে, ‘একজন গর্ভবতী মাকে যে কি ঝুকি নিয়ে এ রাস্তায় চলাচল করতে হয়, তা বলে ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। চেয়ারম্যান তো এখন অন্ধ হয়ে আছে, জনগনের কষ্ট তার চোখে পড়বে কি করে।’

এদিকে অটোরিকসা চালক ওমর ফারুক বলেন, ‘কাদায় চাকা আটকে যায়, বড় বড় গর্তে প্রায়ই উল্টে যায় অটো গাড়ি। দূর্ঘটনায় আহত হতে হয় সাধারণ মানুষকেও। কি করমু, জীবনতো বাঁচাইতে হইবো, তাই বাধ্য হয়েই এ সড়কে অটোচালাই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এ সড়কটি একেবারে নাজেহাল অবস্থা, এ যেন এক মরণ ফাঁদ। প্রায় প্রতিদিন কোনো না কোনো দূর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছে তারা। তারপরেও জীবন-জীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে এপথে যাতায়াত করতে হচ্ছে হতভাগ্য মানুষগুলোকে। এ সড়ক দিয়ে কানাইনগর হাই স্কুল, মুক্তার কান্দি হাই স্কুল এবং বিসমিল্লাহ মার্কেট মহিলা মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়মিত যাতায়াত।

জানা গেছে, ডিক্রিরচর বাজার থেকে কানাইনগর স্কুল পর্যন্ত ২ কিলোমিটার লম্বা সড়কটি ২০১০ সালের ইট বিছানো ছিল। ২০১১ সালে খাল ভরাট করে সরু সড়কটি আরো প্রসস্ত করে তত্বকালীন চেয়ারম্যান জাকির হোসেন। ওই সময় ডিক্রর চর বাজার থেকে জয়নাল বেপারীর বাড়ী পর্যন্ত আরসিসি ঢালাইও দেওয়া হয়েছিল। তবে জয়নাল বেপারীর বাড়ী থেকে শুরু করে বিসমিল্লাহ বাজার পর্যন্ত এ সড়কটি আর ঠিক করা হয়নি। সড়কটি প্রায় ৭ বছর যাবৎ এ অবস্থায় পরে আছে।

স্থানীয়দের দাবি, টেক্স, খাজনা আর ভেটের টাকায় জন প্রতিনিধিদের বেতন হলেও জনগণের এমন চরম সংকট কালে তারা থাকছেন নির্বিকার।

বক্তবলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শওকত হোসেন বলেন, এ সড়কটি ইউনিয়ন পরিষদের আওতায় নয়। এছাড়া এলজিইডি অফিসে সড়কটি টেন্ডার’র জন্য আবেদন করা হয়েছে কিন্তু এখনো টেন্ডার হয় নি।

এদিকে সড়কটি নির্মাণের দায়িত্বে থাকা এলজিইডি’র ইঞ্জিনিয়ার জামাল উদ্দিন বলেন, সড়কটি পুন:সংস্কারের জন্য মন্ত্রনালয়ে কাগজ পত্র পাঠানো হয়েছে। আশাকরি খুব দ্রুত কাজ শুরু করতে পারবো।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম