Sat, 18 Aug, 2018
 
logo
 

ভয়ংকর রূপ নিয়েছে যানজট, ২৩ ট্রাফিকেও বেসামাল চাষাড়া

গোলাম রাব্বি, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: কাদাপানি মাড়িয়ে ধীরগতিতে চলাচল করছে বাস ট্রাকগুলো। তার সাথে তাল মিলিয়ে থেমে থেমে চলছে ৩ চাকার রিক্সা-ভ্যান। সড়কের লুকিয়ে থাকা গর্তে চাকা পড়তেই ঘটছে দূর্ঘটনা। এ অবস্থায় নিত্যদিনের যানজট তীব্র তাপদাহের কারণে নিয়েছে ভয়ংকর রূপও।

সোমবার (১৬ এপ্রিল) ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের চাষাঢ়া দিনের বিভিন্ন সময় সরেজমিনে গিয়ে এ দৃশ্য দেখা যায়।

ভয়ংকর রূপ নিয়েছে যানজট, ২৩ ট্রাফিকেও বেসামাল চাষাড়া
একসময় সড়কটির চাষাড়ার ওই অংশে যে পিচ ছিল, তা এখন আর দেখে বোঝার উপায় নেই। হেলেদুলে যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে রিকশা ও টেম্পু। যাত্রীরা এক সেকেন্ডের জন্যও স্থির হয়ে বসতে পারছে না।
জানা গেছে, গত ১৪ এপ্রিলের বৃষ্টির ঝমে থাকা পানিতে বাঁধাগ্রস্ত হয়েছে স্বাভাবিক চলাচল। তার সাথে আবার যুক্ত হয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ড্রেনের নির্মান কাজ। এ দুই কারণকে কেন্দ্র করে যানজট ছড়িয়ে পড়েছে পুরো নগরীতে।

ভয়ংকর রূপ নিয়েছে যানজট, ২৩ ট্রাফিকেও বেসামাল চাষাড়া
বর্তমানে লিংক রোর্ডে ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে। এর আগে ২০১৪ সালের ১২ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮ কিলোমিটারের দীর্ঘ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের সংস্কার কাজ করা হয়। পাশাপাশি সড়কে যাতে পানি না জমে সেজন্য দীর্ঘ ৩ কিলোমিটার ড্রেনও নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সেই ড্রেন সড়কের পানি নিষ্কাশনের কোনো কাজেই আসেনি।
পুলিশ ও পরিবহন শ্রমিকেরা বলছেন, জলাবদ্ধতা আর গর্তে ভরা সরু সড়ক যানবাহনের গতি কমিয়ে দিচ্ছে। বাড়ছে যানজট। নগরীর চাষাড়ায় লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র এই প্রতিবেদক ঘুরে দেখেছেন গর্তে ভরা সড়কে কষ্টের পথচলা। চোখে পড়েছে দুর্ভোগে পড়া মানুষের কষ্ট।

ভয়ংকর রূপ নিয়েছে যানজট, ২৩ ট্রাফিকেও বেসামাল চাষাড়া
স্থানীয় বাসিন্দা ইফতিখার ইসলাম বলেন, এই সড়কে একবার যাতায়াত করলে রীতিমতো কোমর ব্যথা হয়ে যায়। অন্যদিকে এক ভ্যান চালক বলেন, মালের ওজনে নয়, গতের কারণে গাড়িটি ভেঙ্গে গেছে। আগে জানলে এ ট্রিপ (চুক্তিভিত্তিক ভাড়া) নিতাম না।
ট্রাকের চালক মাজহার হোসেন বলেন, ‘যানজট অতিক্রম করে চাষাড়া এলে বাসে শুধু মটমট আওয়াজ হয়। এপাশ-ওপাশ দুলতে থাকে। প্রায়ই বাসের যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে যাচ্ছে।’

ভয়ংকর রূপ নিয়েছে যানজট, ২৩ ট্রাফিকেও বেসামাল চাষাড়া
অন্যদিকে চাষাড়া ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্বে টিআই শরিফ উদ্দীন বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলায় ট্রাফিক বিভাগে ৮০ থেকে ৯০ জন পুলিশ রয়েছে। রাস্তায় পানি আটকে থাকায় এর মাঝে ২৩ জন এই চাষাড়ার ছোট অংশে দায়িত্ব পালন করছে। তারপরেও যানজট নিরসন করা যাচ্ছে না। এখানে ২৩ জন কেন? এর ৩ গুন ট্রাফিক পুলিশ দেওয়া হলেও যানজট নিরসন সম্ভব নয়।
সড়ক ও জনপথ বিভাগের নারায়ণগঞ্জ জেলা অফিসের কর্মকর্তা আব্দুর সাত্তার বলেন, সিটি করপোরেশন ড্রেন নির্মান কাজ চলায় বৃষ্টির পানি সড়কে আটকে রয়েছে। ড্রেনটি নির্মান হলেই সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে রাস্তাটির চাষাড়া অংশের কাজ করা হবে। এছাড়া পানি যাতে জমে না থাকে, তাই দ্রুত অস্থায়ী ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম