Wed, 19 Sep, 2018
 
logo
 

যে সড়ক ধুলা আর দুর্ভোগের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পাশেই বুড়িগঙ্গা নদী। অথচ প্রাণভরে শ্বাস নেওয়া তো দূরের কথা, উল্টো দূষিত পানির দুর্গন্ধ সহ্য করতে হয় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের পাশের মানুষগুলোকে। তারউপর কয়েক বছর ধরে যুক্ত হয়েছে নতুন এক ভোগান্তি। দীর্ঘ এই সড়কের বেশির ভাগ অংশের পিচ উঠে গর্ত তৈরি হয়েছে। এতে সৃষ্টি হচ্ছে ধুলার।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে সড়কটির ফতুল্লা থেকে পাগলা পর্যন্ত অংশ ঘুরে দেখা যায়, সড়কের পিচ উঠে বের হয়ে পড়েছে । আলগা হয়ে গেছে খোয়া। সড়কের পাশের বাসাবাড়ি ও দোকানের আবর্জনা স্তুপ করে রাখা হয়েছে রাস্তার ধারে। পথচারীরা চলছে হাত দিয়ে নাক-মুখ চেপে। সড়কে চলাচল করছে বাস, ট্রাক, ব্যাটারিচালিত রিকশা। সড়ক দিয়ে কোনো যানবাহন গেলে ধূলিধূসরিত হয়ে যাচ্ছে আশপাশের এলাকা। একসঙ্গে একাধিক গাড়ি চললে ধুলায় একরকম অন্ধকার হয়ে যায় সড়কের ওই অংশ।

সকালে দাপা বালুঘাট অংশে দেখা যায়, ধুলা থেকে বাঁচতে যানবাহনের যাত্রীদের কেউ মাস্ক পরেছেন, কেউবা হাত দিয়ে নাক-মুখ চেপে রেখেছেন। সড়কের পাশের চা-দোকানিরা কাপড় দিয়ে খাবার ঢেকে রেখেছেন। ধুলা জমে বিবর্ণ হয়ে গেছে সড়কের আশপাশের গাছের পাতা।

সড়কের এই অংশে কথা হয় রিকশার যাত্রী মাসুদা খাতুনের সঙ্গে। পাগলাগামী এই যাত্রী বলেন, ‘সকালে ভালো কাপড় পরে বাইরে বের হলে পরের দিনই সেটা পরা যায় না। বাচ্চাদের স্কুল ড্রেস প্রতিদিনই ধুয়ে দিতে হয়।’

দাপা ঘাটের এক ট্রাক চালক মোতালেব হোসেন বলেন, প্রতিদিন এ সড়কে বাস চালাতে হয়। এত ধুলা ওড়ে যে মাঝেমধ্যে নিশ্বাস নিতেও কষ্ট হয়। গলা ব্যথা করে, নাক-বুক জ্বলে।

পাগলা এলাকার বাসিন্দা আবুল হোসেন বলেন, দিনে তো নয়ই, রাতেও দোকানের সামনে পর্দা দিয়ে রাখতে হয়। সড়ক থেকে উড়ে আসা ধুলাবালুতে দোকানের সকল কিছুই ময়লা হয়ে যায়।

ঢাকা সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মেহেদী ইকবাল মুঠোফোনে বলেন, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কটির যে অংশগুলো ভেঙে গেছে, সেগুলো মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ওই সড়কটির বিভিন্ন অংশ নিচু হওয়ায় পানি জমে নষ্ট হয়ে যায়। এ কারণে তা উঁচু করে সংস্কারের জন্য প্রাক্কলন তৈরি করা হচ্ছে, পরে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম