Thu, 17 Aug, 2017
 
logo
 

নগর জুড়ে খামে খামে বিপজ্জনক তারের ঝুড়ি ॥ নজর নেই কর্তৃপক্ষের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের মূল সড়ক কিংবা গলিপথে চলতে গিয়ে চোখে পড়ে বিদ্যুৎ কিংবা টেলিফোনের খামে জটলা বাঁধানো তারের ঝুড়ি। কোথাও কোথাও এগুলো আবার বটগাছের ঝুড়ির মতো ঝুলছে। এ যেন তারের শহর।

শুধু বিদ্যুৎতের তারই নয়, রয়েছে টেলিফোন, ক্যাবেল টিভি, ইন্টানেরসহ আরো অনেক ধরানের তার। আকাশ পথে কোন বাধা বিপত্তি বা সরকারি কোন নীতিমালা না থাকায় বিষয়টি দিন দিন জটিল হয়ে উঠছে। যদিও ঢাকা সিটির বেশ কয়েকটি জায়গায় এ জটিলতা দূরিকরণে ইতিমধ্যে ব্যাপক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। কিন্তু নারায়ণগঞ্জ সিটি সহ জেলা জুড়ে এর ভয়াবহতা ক্রমশই বাড়ছে।

নগর জুড়ে খামে খামে বিপজ্জনক তারের ঝুড়ি ॥ নজর নেই কর্তৃপক্ষের

এদিকে জেলা জুড়ে তারের জটলা সহ শহরে এর ভয়াবহতা, কোটি কোটি টাকা ব্যায়ের সৌন্দর্য্য বর্দ্ধন প্রকল্প মাটি করে দিচ্ছে। বিদেশী দাতা গোষ্ঠী থেকে আনা কোটি কোটি টাকা ব্যায় করে বৃদ্ধি করা হয় নগড়ের ফৃুটপাতসহ বিভিন্ন সৌন্দর্য্য। কিন্তু পর্যাপ্ত পরিকল্পনা এবং মনিটরিং এর অভাবে তা মুখ থুবরে পড়ছে।

তৈরী পোশাক শিল্পের শীর্ষ সংগঠন বিকেএমইএ’র প্রধান কার্যালয়টি শহরের প্রাণে কেন্দ্রে অবস্থিত। এটি যেমন নারায়ণগঞ্জে ঐতিহ্য প্রাচ্যের ডান্ডি খ্যাতি ধরে রেখেছে তেমনি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নারায়ণগঞ্জের তথা বাংলাদেশের ভাবমূর্তিকে উজ্জ্বল করেছে। বিভিন্ন সময় দেশী বিদেশী ব্যবসায়ীসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিরা এখানে আসেন। তবে সত্য হলেও দু:খজনক এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভবনের সামনেও জেলার সকল স্থানের মতো দশা। ভবনটির সামনের বিপজ্জনক ভাবে ঝুলছে নানা তাঁর। শত শত তাঁর ছিঁেড় মাঝে মধ্যেই ঘটছে দূর্ঘটনা। বড় ধরনের কোন দূর্ঘটনা না ঘটায় এখন নারায়ণগঞ্জের স্থানীয় প্রশাসন, সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কারোই তেমন কোন মাথা ব্যাথা দেখা যায়নি।

এদিকে বাংলাদেশে সরকারের ‘ভিশন ২১’ বাস্তবায়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে এ পোশাক খাত।

নগর জুড়ে খামে খামে বিপজ্জনক তারের ঝুড়ি ॥ নজর নেই কর্তৃপক্ষের

এতো গেলো নারায়ণগঞ্জের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানের অবস্থা। এছাড়াও শহরের উকিলপাড়া, ব্যাংকের মোড়, কালির বাজার, মেট্টহল ও খাঁনপুরসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রধান সড়ক কিংবা গলিপথ সর্বত্রই ঝুলছে তার। বিদ্যুতের পিলার ব্যবহার করে এসব তার ছড়িয়ে পড়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা জুড়ে। প্রতিটি পিলারের সাথে পাকিয়ে ফেলা হয়েছে তারের কুন্ডুলি। কিছু দূর পরপরই ঝুলে থাকা এসব তারের মাধ্যমেই মাঝে মাঝে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়াসহ নানা রকম দুর্ঘটনা ঘটছে। জঞ্জালের মতো এসব তার নষ্ট করছে নারায়ণগঞ্জের সৌন্দর্যও।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বর্তমানে জেলার কার্যক্রম পরিচালনাকারী সকল আইএসপি প্রতিষ্ঠানের গ্রাহক সংযোগের প্রায় পুরোটাই বিদ্যুতের খুঁটি নির্ভর। চাষাড়া, বঙ্গবন্ধু সড়ক, নওয়াব সলিমুল্লাহ সড়ক, সিরাজুদৌল্লাহ সড়কসহ বিভিন্ন এলাকার সড়কগুলোয় ভূগর্ভস্থ অভিন্ন ক্যাবল নেটওয়ার্কে যুক্ত না হয়ে তার টাঙানো হয়েছে রাস্তার বৈদ্যুতিক খুঁটিতে। যার কোন বৈধতা আছে কি না জানে না কেউই।

অভিযোগ আছে, বিটিআরসি, বিদ্যুৎ বিভাগসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থতার কারণেই রাস্তায় ঝুলন্ত তাঁর সরানোর কাজে বিলম্ব হচ্ছে। ফলে বিপজ্জনক তাঁরের জট থেকে নগরবাসী মুক্তি পাচ্ছে না।

নগর জুড়ে খামে খামে বিপজ্জনক তারের ঝুড়ি ॥ নজর নেই কর্তৃপক্ষের

সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জে মিজমিজি পূর্বপাড়া এলাকায় ক্যাবল লাইনের কাজ করতে গিয়ে বৈদ্যুতিক তারের বিস্ফোরণে আমির হোসেন (২৩) নামের এক শ্রমিক দগ্ধ হয়।

এ সময় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আমির হোসেন মিজমিজি এলাকায় ডিশ লাইনের কাজ করছিলেন। এ সময় ক্যাবল লাইনের তাঁরের সঙ্গে বৈদ্যুতিক তার লেগে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে আমিরের মাথার চুলসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে শিমরাইলের সুগন্ধা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠান।

এমন অনেক দুর্ঘটনাই ঘটছে প্রতিনিয়ত। তবে বিষয়টি সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বা যাদের খুঁটি ব্যবহার করা হচ্ছে তাদের তেমন কোন গরজ নেই বলেই চলে। সঠিক পদক্ষেপ নিতে নানা বাহানাই তাদের বাঁচার একমাত্র সম্বল। ’যে কেউই চাইলেই অন্যায় করতে পারে’- এমনই মনে করেন ডিপিডিসির কর্মকর্তাগণ।

বিষয়টি জানতে চাইলে ডিপিডিসির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এস এম তারিক লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, বিপজ্জনক অবস্থায় ঝুলন্ত ক্যাবল গুলো ব্যবহার করছে সাধারণ মানুষ। তাই এ সকল তার সড়াতে গেলে ঝামেলার সৃষ্টি হবে। উপর মহলের কোন নির্দেশনা নেই।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪