Sat, 18 Aug, 2018
 
logo
 

রেফারির যেকোন সিদ্ধান্ত মেনে চলাই ভালো খেলোয়াড়দের বৈশিষ্ট্য: ডিআইজি



লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বাংলাদেশ পুলিশ ঢাকা রেঞ্জ ডি.আই.জি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন পিপিএম বলেন, ‘চমৎকার একটি উত্তেজনপূর্ণ খেলা উপহার দেওয়ার জন্য প্রতিটি খেলোয়াড়, খেলা নিয়ন্ত্রক ও জেলাক্রীড়া সংস্থা প্রতিনিধিদের প্রতি রইলো আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন। আজকের খেলায় প্রত্যেক খেলোয়াড়ের কৌশলগত দক্ষতায় প্রমাণিত হয়েছে যে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ রেঞ্জ উভয় দলই চেম্পিয়ান হবার যোগ্য। এখন এই চ্যাম্পিয়নশীপ খেলাটি ধরে রাখতে হবে।

তাই জাতীয় পর্যায়ে রেঞ্জ চ্যাম্পিয়নশীপ অর্জনের লক্ষ্যে আপনারা প্রতিনিয়ত খেলার চর্চা চালিয়ে যাবেন। সেই সাথে কথা দিলাম, ভালো খেলোয়দের জন্য পুলিশ সুপার মঈনুল হকের ঘোষণাকৃত পুরস্কার আগামীতে ৪ গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে।’
রেফারির যেকোন সিদ্ধান্ত মেনে চলাই ভালো খেলোয়াড়দের বৈশিষ্ট্য: ডিআইজি
শনিবার (২৮ এপ্রিল ) বিকেল ৪ টায় ফতুল্লার পুলিশ লাইন মাঠে ঢাকা রেঞ্জ আন্তঃ জেলা কাবাডি টুর্নামেন্ট ২০১৮ ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শফিকুল ইসলাম। খেলায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ৫১ পয়েন্ট পেয়ে বিজয়ী এবং ঢাকা জেলা ৩৭ পয়েন্ট পেয়ে রানার আপ হয়। সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নির্বচিত হন নারায়গঞ্জে জেলার মো. মুন্না এবং ম্যান অব দ্যা ম্যাচ ঢাকা মো. জাবেদ। এসময় বিজয়ী দলের ১২ জন খেলোয়ারকে ৫ হাজার টাকা করে সর্বমোট ৬০ হাজার টাকায় পুরস্কৃত করা হয়।

খেলোয়াড়দের উদ্দেশ্যে আল-মামুন বলেন বলেন, ‘খেলায় রেফারির যেকোন সিদ্ধান্ত মেনে চলাই হচ্ছে একজন ভলো খেলোয়াড়দে অন্যতম বৈশিষ্ট্য। এতে পরাজয় হলেও ভালো খেলোয়াড়দের আপত্তি থাকে না। আদর্শ রেফারিরা কোন পক্ষকে বিবেচনা করেন না। খেলার নিয়ম অনুসারে যে কোন সিদ্ধান্তে তারা অটল থাকেন । আজকের রেফারিগণ তার সঠিক পরিচয় দিয়েছেন। এই সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে অজান্তে ছোট-খাটো ভুল-ভ্রান্তি হলেও সত্যিকারের খেলোয়াড়দের কিছু আসে যায় না। আগুন যেমন ধামা-চাপা দেওয়া যায় না। তেমনি রেফারিরা খেলোয়াড়দের কৌশলগত দক্ষতা ধামা-চাপা দিতে পারেন না।’

পুলিশ সুপার মঈনুল হক বলেন, ‘শত ব্যস্ততার মাঝে উপস্থিত হয়ে আমাদের অনুষ্ঠান কে আরো বর্ণিল করার জন্য ডিআইজি স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করচি। দুই উভয় দলের হাড্ডা-হাড্ডি লাড়াইয়ে দুই অধিনায়কের আহতের ঘটনাই প্রমাণ করে উভয় দলই খেলার জন্য মরিয়া ছিলেন। এবং উভই দলই চ্যাম্পিয়ন হবার যোগ্য। তবে সৃষ্টিকর্তার প্রতি শুকরিয়া, বড় কোন দুর্ঘটনা ছাড়াই আমরা একটি চমৎকার খেলা উপভোগ করলাম। বাংলাদেশ পুলিশের সুনাম অর্জনের জন্য খেলোয়াড়া নিয়মিত খেলার চার্চা করে যাবে। সেই চর্চায় যেন ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্য খেলোয়াড়দের জন্য অফিসিয়াল কাজের ব্যবস্থা করা হবে। আগামীতে আরো ভালো করার জন্য খেলোয়াড়দের জন্য উন্নত কোচের ব্যবস্থা করা হবে। সেই সাথে এটাও কথা দিচ্ছি, জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়নশীপ অর্জনের জন্য প্রতি দক্ষ খেলোয়াড় ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কৃত করা হবে।’

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম