Fri, 14 Dec, 2018
 
logo
 

জয়নালের দখলে মহিলা কলেজের আঙিনা, উত্তাল শিক্ষার্থীরা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পড়নে সাদা ড্রেস, হাতের ফাইলবন্দী পরীক্ষার প্রবেশপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজ। কিন্তু পরীক্ষার্থীদের গন্তব্য পরীক্ষার হল নয়, গন্তব্য ছিলো জেলা প্রশাসকের কার্যালয়।

বুধবার (৫ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে এ চিত্র দেখা যায়। সরকারি মহিলা কলেজের সমানের খালি স্থানের জায়গা দখল মুক্ত করার দাবিতে হাতে ব্যানার নিয়ে স্বারকলিপি দেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যাচ্ছিলেন হাজারো শিক্ষার্থী।

জয়নালের দখলে মহিলা কলেজের আঙিনা, উত্তাল শিক্ষার্থীরা
কিন্তু জেলা প্রশাসক না থাকায় দীর্ঘ অপেক্ষা করতে হয় তাদের। পরে দুপুর ১টার দিকে কার্যালয়ে এসে পৌছান জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া। শিক্ষার্থীদের এমন কা- দেখে চটে যান খোদ জেলা প্রশাসকও।

স্বারক লিপি প্রদানের সময় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘তোমরা কেন স্বারক লিপি দিতে এসেছো? তোমাদের প্রতিষ্ঠানের অভিভাবক কোথায়? এটাতো তোমাদের সমস্যা না। এটা প্রতিষ্ঠানের সমস্যা। সবার আগে নিজেকে ভালোবাস। তোমাদেরকে প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করছে, তোমরা অন্যের হাতিয়ার হবে কেন? তোমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে পড়া শুনা করা। তোমরা পড়া লেখাই ভালো ভাবে করো।’

জানা গেছে, গত ২ ডিসেম্বর ২০ থেকে ২৫ জন লোক নিয়ে কলেজের সমানের খালি স্থানের জায়গায় টিন দিয়ে ঘেরাও করেছে জাতীয় পার্টির নেতা জয়নাল আবেদীন। পরে জায়গার ওয়ারিশ ওমর ফারুক ওরফে নবেল, নাজমা বেগম ও সরকারি মহিলা কলেজের অধক্ষ্যের নাম উল্লেখ করে আদালতে একটি দেওয়ানী মামলা করা হয়।

জয়নালের দখলে মহিলা কলেজের আঙিনা, উত্তাল শিক্ষার্থীরা

এঘটনায় বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ৯টায় কলেজ পরীক্ষা বাদ দিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে স্বারকলিপি জমা দেওয়ার জন্য প্রায় হাজার খানেক শিক্ষার্থী লিংক রোড হয়ে মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
এসময় শিক্ষার্থী আসমা আক্তার বলেন, শিক্ষার জন্য একটা সুন্দর পরিবেশ দরকার। এই জায়গাটায় আমাদের অভিবাবকরা এসে বসে। আমরা কলেজের সুন্দর পরিবেশ রক্ষার্থে ও ছাত্রীদের চলাচলের জন্য জমিটি কলেজের নামে করে দেওয়ার দাবী জানাচ্ছি। পাশাপাশি অধ্যক্ষের নামে করা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে ।

এবিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ বেদৌরা বিনতে হাবিব বলেন, জেলা প্রশাসকের কাছে পূর্বেও আরো ২ বার চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে। কিন্তু কাজ হয়নি। ছাত্রীরা জানেন ওই জমি কলেজের। তাই তারা দখল উচ্ছেদ করেছে। পরে অতি উৎসাহী হয়ে পরীক্ষা হল ত্যাগ করে মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে যায়।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম