Thu, 13 Dec, 2018
 
logo
 

ফতুল্লায় ধর্ষণের শিকার তিন স্কুলছাত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লায় তিন স্কুলছাত্রী ধর্ষীত হয়েছে। তিন ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২২ অক্টোবর) রাতে ফতুল্লার দেলপাড়া টাওয়ার পাড়, দাপা ইদ্রাকপুর এবং কাঠেরপুল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো- দাপা ইদ্রাকপুর এলাকার কোচিং সেন্টারের শিক্ষক তাপস (৪০),দেলপাড়া টাওয়ার পাড় এলাকার মনির হোসেন (৪৫) ও কাঠেরপুল এলাকার মিজান।

পুলিশ জানায়, দাপা ইদ্রাকপুর এলাকায় একটি কোচিং সেন্টারে রোববার দুপুরে ১০ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করে শিক্ষক তাপস। এ ঘটনায় তাপসকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

১৯ অক্টোবর দুপুরে ফতুল্লার দেলপাড়া টাওয়ার পাড় এলাকায় ১০ টাকা দিয়ে নিজের মুরগির খামারে নিয়ে প্রথম শ্রেণির এক শিশুকে ধর্ষণ করে মনির হোসেন। পরে শিশুর পরিবার থানায় অভিযোগ করলে মনিরকে গ্রেফতার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের ওসি মঞ্জুর কাদের বলেন, দুই ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরদিকে, সোমবার (২২ অক্টোবর) রাতে ফতুল্লার কাঠেরপুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে মিজানকে গ্রেপ্তার করা হয়। আর কিশোরী স্থানীয় একটি হাই স্কুলের ৭ম শ্রেনীতে লেখাপড়া করে। গ্রেপ্তারকৃত মিজান ফতুল্লার কাঠেরপুল এলাকার মুকুল মিয়ার ছেলে। সে স্থানীয় একটি গার্মেন্টে শ্রমিক হিসাবে কর্মরত রয়েছে

ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোজাফ্ফর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্কুল ছাত্রী কিশোরীকে স্কুলে আসা যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিল মিজান। স্কুল ছাত্রী ও গার্মেন্টস শ্রমিক একই বাড়ির ভাড়াটিয়া হওয়ার সুবাধে মিজান স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের একপর্যায়ে কু প্রস্তাব দেয়। এতে স্কুল ছাত্রী রাজি না হওয়ায় গত ২০ অক্টোবর দুপুরে স্কুল ছাত্রী কিশোরীকে মিজান তার ঘরে নিয়ে ধর্ষনণকরে।

ঘটনাটি স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করার চেষ্টা করতে চাইলে কিশোরী অভিভাবক বিচার না মেনে থানায় অভিযোগ দায়ের করলে সোমবার রাতে কাঠেরপুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক মিজানকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় ধর্ষকের বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম