Thu, 24 Aug, 2017
 
logo
 

লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : মাঠ প্রশাসন সরকারের মূল চালিকা শক্তি হিসেবে কাজ করে। সরকার গৃহিত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক, প্রশাসনিক সংস্কারমূলক নীতি ও সিদ্ধান্ত মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন ও সমন্বয় সাধন জেলা প্রশাসনের কাজ। আর সে কাজে চার মাসের কম সময়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করে অভিভূত সাফল্য অর্জন করেছেন নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া।


ব্রাহ্মনবাড়িয়ার জেলার আখাউড়ায় জন্মগ্রহণ করা রাব্বী মিয়া নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদান করেন ২০১৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে ¯œাতক, জাপানের  সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে ¯œাতকত্তোর ডিগ্রী লাভ করেন। কর্মজীবনে বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রণালয় অধিনস্থ ওর্য়াল্ড ব্যাংক এর ডেপুটি সেক্রেটারি, উইং অব ইআরডি (ইকোনমিক রিলেশনস ডিভিশন) হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন তিনি। পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতাও করেছেন। তিনি বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোতে ভ্রমন করেছেন।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়ার সাথে কথা বলে তার জীবনের নানা দিক তুলে ধরেছেন ‘লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র নিজস্ব প্রতিবেদক আয়েশা জান্নাত ও মাহফুজ সিহান।


লাইভ নারায়ণগঞ্জ : আপনার কর্মজীবন সম্পর্কে কিছু বলুন।
জেলা প্রশাসক : সৃষ্টিকর্তা আমাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন। এরমধ্যে ২০০৭ সালে আমি সাভারের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি উপজেলায় নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হিসেবে কর্মরত ছিলাম। সেখান থেকে ২০১১ সালে চট্টগ্রাম জেলায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করি। এরপরই জেলা প্রশাসক হিসেবে নারায়ণগঞ্জের দায়িত্ব পাই।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জ সম্পর্কে কিছু বলুন।
জেলা প্রশাসক : গুরুত্বের দিক দিয়ে সাভারের সাথে নারায়ণগঞ্জের অনেক মিল রয়েছে। যেমন: শিল্প-কলকারখানার ক্ষেত্রে নারায়ণগঞ্জ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি জেলা। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জে দায়িত্বভার গ্রহণের পর আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?
জেলা প্রশাসক : এখানে দায়িত্ব নেয়ার পর ঈদুল আযহ, দূর্গাপূজা, সিটি করপোরেশন নির্বাচন, বড়দিন, জেলা পরিষদ নির্বাচন পেয়েছি। যা সকলের সহযোগিতায় বেশ ভালোভাবেই সম্পন্ন করতে পেরেছি। দায়িত্ব গ্রহণের চার মাসের মাথায় এতোগুলো উৎসব আর দু’টি নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে তেমন একটা বেগ পেতে হয় নি। এজন্য অবশ্যই আমি আমার সহকর্মীদের কাছে কৃতজ্ঞ।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : কারা ছিলেন আপনার সহকর্মী, যাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন?
জেলা প্রশাসক : জেলা পুলিশ সুপার, র‌্যাব’র সিইও, ল্যাফটেনন্ট কর্ণেল শামীম (বিজিবি), কোস্টগার্ড, পুলিশ সুপার (ইন্ডাষ্ট্রিয়াল পুলিশ), এডিশনাল পুলিশ সুপার (নৌ পুলিশ), এনএসআই, ডিজিএফ, ফায়ার সার্ভিস, সিভিল সার্জনসহ এমন আরও যারা ছিলেন তারা প্রত্যেকেই আমাকে খুব সহযোগিতা করেছেন। এ জন্য তাদের প্রতী আমি ঋণী।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : তাদের সবার সাথে সমন্বয় করে কাজ করতে সমস্যা হয় নি?
জেলা প্রশাসক : না। সমন্বয় করতে কোন সমস্যা হয় নি। তাদের সবার সাথেই আমার চমৎকার একটা বোঝাপড়া ছিল। যার কারণে কোন সমস্যা ফেইস করতে হয় নি। বরং আমি মনে করি তাদের সবার সাথে সমন্বয় করে কাজ করাটাই আমার সফলতার সব থেকে বড় একটি প্রাপ্তি।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে কিছু বলুন
জেলা প্রশাসক : অমি প্রথমেই আল্লাহ কাছে শুকরিয়া জানাই আলোচিত এ নির্বাচনটি সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি বলে। এরপরই আমি কৃতজ্ঞ নারায়ণগঞ্জের ভোটার ও প্রার্থীদের কাছে। তারা সুশৃঙ্খল পরিবেশ বজায় রেখেছেন বলেই আমরা স্বার্থক হয়েছি।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
জেলা প্রশাসক : এ নির্বাচন শুধু বাংলাদেশেই নয়; বিশ্বব্যাপী এক অভূতপূর্ব সাফল্য এনে দিয়েছে। এতটা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে যা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিশ্ববাসীর কাছে উজ্জ্বল করেছে। এ ক্রেডিট অবশ্যই নারায়ণগঞ্জবাসী। তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা ছিল বলেই সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নির্বাচন সফল করার পিছনে কার কার অবদানকে গুরুত্বসহকারে দেখছেন?
জেলা প্রশাসক : এক্ষেত্রে মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার মহদোয় যেভাবে দিক নির্দেশনা দিয়েছেন তা ছিল নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। তিনি সহ সকল নির্বাচন কমিশনার নারায়ণগঞ্জে সরেজমিনে এসেছেন এবং আমাকে নানা দিক নির্দেশনাও দিয়েছন। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যে বিভাগীয় কমিশনার, নির্বাচন কমিশন সচিব (নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার) নুরুজ্জামান তালুকদার আমাকে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করেছেন। এ জন্য কোন সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় নি।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে আপনার ব্যক্তিগত অভিমত কি?  
জেলা প্রশাসক : ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জে জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার সাড়ে তিন মাস পূর্ণ হয়। এই অল্প সময়ের মধ্যে এতো বড় একটি নির্বাচন সফল করার জন্য আল্লাহ আমাকে যে সফলতা এনে দিয়েছেন তা মনে হয় অনেকে তাদের পুরো চাকরী জীবনেও পান না। এ জন্য আল্লাহর কাছে আমি কৃতজ্ঞ। এ নির্বাচনে আমি উছিলা মাত্র। যা করার আল্লাহ-ই করেছেন। এখানে আমার কোন অবদান নেই। তবে এতো সুন্দর একটি নির্বাচনে আমি উছিলা হতে পেরে খুবই আনন্দিত।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার পিছনে কোন ভূমিকা বড় করে দেখেন?
জেলা প্রশাসক : এজন্য সব থেকে অন্যতম পদক্ষেপ ছিল নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কর্তৃক পরিচালিত ২৭টি ভ্রাম্যমান আদালত। যা প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষদিন থেকে নির্বাচনের একদিন পর দায়িত্ব পালন করেছেন বিচক্ষণতার সাথে। যে জন্য কোন প্রার্থী কোন রকম আচরণ বিধি ভঙ্গ করতে পারেন নি। নির্বাচনে এতো সংখ্যক ভ্রাম্যমান আদালত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করায় সরকার ও নির্বাচন কমিশনের প্রতি কৃতজ্ঞ।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নির্বাচনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা বা জনগণে ভূমিকা সম্পর্কে কিছু বলুন
জেলা প্রশাসক : এখানকার জনপ্রতিনিধ, রাজনৈতিক নেতা কিংবা সাধারণ ভোটারসহ সর্বস্তরের মানুষ আমাদের চাওয়াটা বুঝতে পেরেছিলেন। এ জন্য নির্বাচন পরিচালনা করতে কোন ধরণের সমস্যা হয় নি। এ কারণেই বলে, ‘সময়টা গুরুত্বপূর্ণ নহে, তুমি কি কাজ করেছ’ সেটা হলো গুরুত্বপূর্ণ। আমি আশা করি এ নির্বাচনই আমাকে শুধু নারায়ণগঞ্জ নয়, পুরো বাংলাদেশের মানুষের কাছেই বাঁচিয়ে রাখবে দীর্ঘদিন।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : জেলা পরিষদ নির্বাচন প্রসঙ্গে কিছু বলুন
জেলা প্রশাসক : সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হওয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়েও আমরা একইভাবে সর্তক ছিলাম। যার জন্য এ নির্বাচনে কোন সমস্যা হয় নি। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবেই জেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে পেরেছি।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নতুন বছরে নারায়ণগঞ্জবাসীর কাছে আপনার প্রত্যাশা কি ?
জেলা প্রশাসক : নতুন বছরে নারায়ণগঞ্জবাসীর কাছে একমাত্র প্রত্যাশা সহযোগিতা।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নতুন বছরকে ঘিরে জেলা প্রশাসনের চ্যালেঞ্জ কি ?
জেলা প্রশাসক : বারাক ওবামা তার নির্বাচনী ক্যাম্পে বলেছিলেন ‘চ্যাঞ্জ উই নিড’। আর আমরা বলব, ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’। কেন না, ২০১৬ -এর সফলতা নিয়ে ২০১৭ শুরু হয়েছে। সেই সফলতার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চাই। আমরা সকলে মিলে চেষ্টা করবো এ জেলায় নতুন কিছু করার।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : সেগুলো কি, একটু খুলে বলবেন?
জেলা প্রশাসক : সেভাবে দৃশ্যমান কোন চ্যালেঞ্জ নেই। তবে মাদক, সন্ত্রাস, দুর্ণীতি, জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় যা যা করণীয় তা সব করব। এক্ষেত্রে কোন ছাড় দেয়া হবে না। সবার সহযোগিতায় সুন্দর একটি নারায়ণগঞ্জ গড়ার প্রত্যাশা রাখি। এ জন্য জেলাবাসীর সহযোগিতা কামনা করি।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’
লাইভ নারায়ণগঞ্জ : এ বছর কোন কোন কাজগুলো গুরুত্বের সাথে বাস্তবায়ন করতে চান?
জেলা প্রশাসক : এখানে যানজট একটা সমস্যা। যানজট নিরসনে অবৈধ বাস-ট্রাক স্ট্যান্ড সরানো দরকার। আর সেগুলো কিভাবে পরিকল্পিতভাবে সুন্দর একটা ব্যবস্থা করা যায় সে চেষ্টা করবো। এজন্য মেয়র, স্থানীয় সংসদ সদস্য, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাসহ সিভিল সোসাইটির সবাইকে নিয়ে সম্মিলিতভাবে বাস্তবায়ন করতে চাই। এছাড়াও শহরের বিবি রোডের বিকল্প একটি রাস্তা কিভাবে বের করা যায় সেদিক নিয়েও ভাবছি। এজন্য সকলের সহযোগিতা দরকার। এক্ষেত্রে আশা করি মেয়র স্থানিয় সংসদ সদস্যসহ সকলেই এগিয়ে আসবেন। এজন্য আমরা সমন্বয়ে করে একে অপরের ভালো কাজগুলোর সহায়ক হবো। আর এসব সহযোগিতা পেলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ আমি নারায়ণগঞ্জে করতে পারবো বলে বিশ্বাস করি।

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : জেলায় মাদক নিয়ন্ত্রন নিয়ে কি বলবেন ?
জেলা প্রশাসক : মাদ একটি ভয়াবহ ব্যধি। যা সমাজের যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। মাদক নির্মূলে বর্তমান সরকার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় আমরা মাদকের বিরুদ্ধে বরাবরই কঠোর অবস্থানে আছি। নিয়মিত অভিযানও পরিচালনা করা হচ্ছে। মাদক নির্মূলের ক্ষেত্রে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা খুবই দরকার। এ জন্য সাংবাদিক, সুশীল সমাজ, অভিভাবকদেরকেও এগিয়ে আসতে হবে। সবার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অবশ্যই আমরা মাদকমুক্ত জেলা গড়তে পারবো।
লাইভ নারায়ণগঞ্জ’র সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে জেলা প্রশাসক বললেন ‘উই ব্রিং চ্যাঞ্জেস’

লাইভ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন
জেলা প্রশাসক : সুন্দর সমাজ নির্মাণের সাংবাদিকদের ভূমিকা অপরিসীম। তাদের উচিত যে কোন কর্মকা-কেই ফোকাস করা। আশা করবো ইতিবাচক সংবাদ তারা দিবেন। যাতে এ সংবাদগুলোর উপর নির্ভর করে এগিয়ে যেতে পারি। তারা যদি সঠিক তথ্য তুলে ধরেন সাধারণ মানুষের স্বার্থে সেগুলো যত কঠিনই হোক তা বাস্তবায়নে সরকার বদ্ধ পরিকর। আশা করবো সাংবাদিক ভাইয়েরা সহযোগিতা করবে। এ দেশটা আমাদের সকলের। দেশ সমৃদ্ধ হলে আমরা সুফল পাবো। সবাই সেই সুফল ভোগ করতে পারবে। দেশ আশান্ত হলে তার ফল আমাদেরই ভোগ করতে হবে। সুতরাং দেশ বাঁচাতে হবে। দেশ বাঁচলে আমরাও বাঁচবো। দেশ সম্মান বয়ে আনলে আমরা সম্মানিত নাগরিক হব। এ কথাগুলো সকল মনে জাগিয়ে তুলতে সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করি। সেক্ষেত্রে আমরা সোনার বাংলা বলি কিংবা সমৃদ্ধ বাংলা বলি, ভিশন-২০২১, ভিশন-২০৪১ সবকিছুই অর্জন করা সম্ভব।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪