Mon, 26 Jun, 2017
 
logo
 

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে বিএনপির জন্ম- খসরু

আড়াইহাজার করেসপন্ডেন্ট: নানা চড়াই-উতরাই পাড় হয়ে চারবার রাষ্ট্রক্ষমতায় আসার জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল বিএনপির ৩৭ বছর অতিক্রম করে ৩৮ বছরে পা দিল। দলটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে লাইভ নারায়ণগঞ্জ কে আড়াইহাজার উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা এএম বদরুজ্জামান খসরু বলেছেন,

কঠিন এক পরিস্থিতিতে ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান প্রতিষ্ঠা করেন জাতীয়তাবাদী দল ‘বিএনপি’। বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে বিএনপিন নামের এই দলটির জম্ম হয়েছিল। জিয়াউর রহমান এদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রর্বতক ছিলেন। তার প্রতিষ্ঠিত গণতন্ত্র আজ হুমকীর মুখে। গণতন্ত্রকে কফিন বন্ধি করে তাতে পেরাগ মেরে দেওয়া হয়েছে। সৎ কথা বলার সাহস বর্তমানে করোর নেই। প্রতিবাদ করলে ‘খড়গ’ নেমে আসছে ভিন্নমতার্দশদের ওপর।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে বারবার নির্দলীয় সরকারের অধিনে সকল দলের অংশ গ্রহণে নির্বাচনের দাবী করা হলেও; পরাজয়ের ভয়ে সরকার নির্বাচনের পথে না গিয়ে দমনের পথে যাচ্ছে। সংলাপ না করে তিনি বিরোধী দলের রাজনীতিকে দমনে মর্ত হয়েছেন। বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় পুলিশ নিরীহ নেতাকর্মীদের জড়িয়ে চার্জশিট দিচ্ছে। বিএনপির নেত্রী গণতন্ত্রের পথে হাটছেন। তিনি স্বপন দেখছেন কিভাবে আওয়ামী লীগের ক্ষমতাকে চীরস্থায়ী করা যায়। তিনি বেগম জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার পরিকল্পনা করছেন। তার স্বপন বাংলাদেশের মানুষ পুরন হতে দিবে না। এছাড়াও বিরোধী দলের লাখ লাখ নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলায় কারাবন্দি করা হচ্ছে। যা গণতন্ত্রের জন্য শুভ নয়। সারাদেশে বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার পাহাড় হয়ে গেছে। মামলাকে সরকার আন্দোলন দমানোর হাতিয়ার হিসাবে বেঁছে নিয়েছে। মামলা দিয়ে কখনো আন্দোলন ধমিয়ে রাখা যায়নি, যাবেও না। বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের এতোবেশি মিথ্যা মামলা দিয়েছে সরকার যা সামাল দিতে গিয়ে রীতিমত হিমসিম খাচ্ছে আইনশৃক্সখলা বাহিনী। র‌্যাব-পুলিশকে দলীয় কাজে ব্যবহারের ফলে আইনশৃক্সখলা বাহিনীকে দলীয়ভাবে ব্যবহার করায় আইনশৃক্সখলা অবনতির দিকে যাচ্ছে। ভোটের অধিকার কেঁড়ে নিয়ে সরকার বাগ-স্বাধীনতাকে হরণ করেছে। নির্দলীয় সরকারের অধিনে নির্বাচন দিলে আওয়ামী লীগকে মানুষ ভোট দিবে না। যতই দিন যাচ্ছে এই সরকারের জনপ্রিয়তা ততই কমছে। অবৈধ এই সরকারের কাছে দেশের মানুষ জিম্মি হয়ে আছে।

খসরু আরোও বলেন, দেশের মানুষ এক শ^াসরুদ্ধকর অবস্থার মধ্যে দিয়ে পার করছেন। স্বাধীনভাবে কেউ কথা বলতে পারছে না। বাংলাদেশে মানুষ ভোটের অধিকার ফিরে পেতে চাই। দেশের মানুষকে ধোকা দিচ্ছি সরকার। বেগম খালেদা মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে দেওয়ার জন্য আন্দোলন করছেন। কিন্তু তাকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেওয়ার নীল নকশা করছে সরকার। যা দেশের মানুষ মেনে নিবে না। এরই মধ্যে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলায় জেলে রাখা হয়েছে। বিরোধী দলকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। সারাদেশে ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতাকর্মীরা এক অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। আইনশৃক্সখলা উন্নয়নের স্বার্থে র‌্যাব-পুলিশ বাধ্য হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের অপরাধীদের ক্রসফায়ার দিতে। দেশে আইনের শাসন না থাকায় মানুষকে নিরাপ্তা দিতে পারছে না সরকার। প্রতিনিয়তই দেশে মানুষ খুন হচ্ছে। ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য বঙ্গবন্ধুর খুনীদের সাথে হাত মিলিয়েছে শেখ হাছিনার সরকার। তথ্য মন্ত্রী ইনু’র ভুমিকা নিয়ে আজ দেশের সর্বত্র আলোচনার ঝড় বইছে। খোদ সরকারি দলের এমপিরা (্ইনু) সহ আরোও অনেকেই দিকে বঙ্গবন্ধু হত্যার সাথে জড়িত ছিল বলে আঙ্গুল তুলছেন। গণমাধ্যমে সরকার চাপ সৃষ্টি করে রেখেছে। ইতি মধ্যে অনেক সংবাদ মাধ্যম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যা গণতন্ত্রের জন্য শুভনয়।
 তিনি বলেন, সরকার সম্প্রতি ভারতের সাথে চুক্তি করেছে তা বাস্তবায়ন করতে পারছে না। দিন দিন নিত্য পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে সবকিছু। বর্হিরবিশে^ তেলের দাম কমালেও; বাংলাদেশে ভাড়ছে গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম। যা বর্তমানে মরার ওপর ‘খাড়া’ ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে। এর বিরুদ্ধে দেশের মানুষ ফুঁসে উঠেছে। জালানীর দাম বৃদ্ধি পেলে দেশের উন্নয়ন খাত বাধাগ্রস্ত হবে। বেকার হয়ে পড়বে মানুষ। নিম্ম আয়ের মানুষের জীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসবে। সরকারি দলের লোকজনেরা অবৈধগ্যাস ব্যবহার করে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। দেখেও কেউ প্রতিবাদ করতে পারছে না। এতে দেশের কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। কলকারখানাসহ বাসা বাড়িতে প্রয়োজনীয় গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে না। এসব নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলেই মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে, নেমে আসছে দমন-নিপীড়ন। যাদের এক সময়ে কিছুই ছিল না। তাদের মধ্যে অনেক এমপি হয়ে দুর্নীতি করে কোটি কোটি কামিয়ে নিজের ভাগ্যের ঠিকই পরিবর্তন করেছেন। দেশে সর্বত্র উন্নয়নের নামে চলছে হরিলুট। দেশের টাকা কেনা হচ্ছে নামে-বেনামে জমিজমা। এদেশের টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। গ্যাসের সংটক সমাধানের উদ্যোগ না নিয়ে, মূল্যবৃদ্ধি করা থেকে সরকারকে সরে আসার আহ্Ÿান জানান বিএনপির এই প্রবীন নেতা।
এক প্রশ্নের জবাবে খসরু লাইভ নারায়ণগঞ্জ কে জানান, আমি অতীতে চেষ্টা করছি আড়াইহাজার উপজেলায় দলকে একটি শক্তিশালী ফ্লাটফর্মে নিয়ে যেতে। ভবিষ্যতেও চেষ্টা করব শহীদ জিয়ার আর্দশকে বাস্তবায়ন করতে। আমি বিএনপির প্রতিষ্ঠালগ্নে বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছি। বিএনপির ত্যাগী, শিক্ষিতি, মেধাবী ও সাহসী নেতাকর্মীদের নিয়ে কমিটি সংগঠন করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাব “ইন্নশাআল্লাহ”।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪