Mon, 19 Nov, 2018
 
logo
 

গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যুত্থান দিবসে নগরীতে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের সমাবেশ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে ৩ নভেম্বর ২০১৮ সকাল ৮ টায় শহিদ আমজাদ হোসেন কামাল স্মরণে বিসিকে পুষ্পস্তবক অর্পন এবং বিকাল ৩টায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক হাফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মন্টু ঘোষ, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুর রহমান, বিপ্লবী শ্রমিক সংহতির নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু হাসান টিপু, গার্মেন্টস শ্রমিক সংহতি নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি অঞ্জন দাস, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক বিমল কান্তি দাস, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, মোঃ শাহজাহান, সৈয়দ হোসেন, এইচ রবিউল চৌধুরী, জাহিদুল আলম আল জাহিদ, শহীদুল আলম নান্নু, মোঃ রিয়াজ আহম্মেদ।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ২০০৩ সালের ৩ নভেম্বর ফতুল্লার বিসিকে প্যানটেক্স ড্রেস লিঃ এর শ্রমিকদের ৮ ঘণ্টা কাজ, ওভার টাইমে দ্বিগুন মজুরি , দুই ঈদে দুই বোনাসসহ ১৮ দফা দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে নিহত হয় ঐ কারখানার শ্রমিক আমজাদ হোসেন কামাল। এ আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ এর সমস্ত গার্মেন্টস শ্রমিকদের আন্দোলনে রূপ নেয়। তীব্র আন্দোলনের মুখে গার্মেন্টস মালিকরা শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয়। বিকেএমইএ অফিসে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এরপর থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের দিন হিসাবে ৩ নভেম্বর গার্মেন্টস শ্রমিক অভ্যুত্থান দিবস হিসাবে পালিত হয়।
নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার গার্মেন্টস শ্রমিকদের দাবি উপেক্ষা করে মালিকদের পরামর্শ অনুযায়ী নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা ঘোষণা করেছে। সমস্ত শ্রমিক সংগঠন এ মজুরি প্রত্যাখ্যান করেছে। বর্তমান বাজার মূল্যে এ মজুরি অসংগতিপূর্ণ। রাষ্ট্রীয় শিল্পে শ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ১৭৮০০ টাকা করা হয়েছে। একই দেশে শ্রমিকদের জন্য দুই রকম মজুরি হয়েছে। রাষ্ট্রীয় শিল্পের মজুরি কাঠামোর সাথে সংগতি রেখে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি পুনর্নিধারণ করতে হবে। শ্রম আইন সংশোধনী ২০১৮ সংসদে পাশ হয়েছে। এখানেও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ এর মতামত উপেক্ষা করে মালিকের স্বার্থ ও পরামর্শ মত সংশোধন করা হয়েছে। শ্রমিক স্বার্থ বিরোধী এ সংশোধনী বাতিল করতে হবে। স্কপের প্রস্তাবনা অনুযায়ী শ্রমিক স্বার্থ বিরোধী ধারাসমূহ বাতিল করে সংশোধনী আনতে হবে। আমজাদ হোসেন কামাল এর আত্মত্যাগের সংগ্রাম থেকে শিক্ষা নিয়ে গার্মেন্টস শ্রমিকদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামকে শক্তিশালী করতে হবে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম