Thu, 19 Jul, 2018
 
logo
 

বর্ষার অজুহাতে সবজিতে আগুন, কমেছে মুরগির দাম


লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বর্ষার অজুহাতে কাঁচাবাজারে বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে কাঁচামরিচ, বেগুনসহ বেশকিছু পণ্য। সামনে দাম আরো বাড়ার আশাঙ্কা বিক্রেতাদের। মাছের সরবরাহ ভালো থাকায় সবধরনের মাছ বিক্রি হচ্ছে কিছুটা কম দামে।

তবে, ক্রেতারা বলছেন, এখনো উর্ধ্বমুখী মাছের দাম। গরু ও খাসির মাংসের দাম অপরিবর্তিত থাকলেও দাম কমেছে ব্রয়লার ও পাকিস্তানি মুরগির।
শুক্রবার (২৯ জুন) ছুটির দিন টাটকা সবজি কিনতে সকাল থেকেই কাঁচাবাজারে ভিড় করেন ক্রেতারা। সবুজ সবজির ডালি নিয়ে তাই বিক্রেতাদেরও অপেক্ষা ভোর থেকেই। দরদামে জমে ওঠে সবজি বাজার। বরাবরের মতোই দাম বাড়ার অভিযোগ ক্রেতাদের। অভিযোগ স্বীকার করে বিক্রেতারা বলছেন, বর্ষার কারণে বেড়েছে কিছু পণ্যের দাম।
এক ক্রেতা বলেন, ‘লতি কিনলাম ৬০ টাকা, কাকরোল ৬০ টাকা, শাক কিনলাম, কাঁচা মরিচ কিনলাম। দাম একটু বেশিই।’
আরেক ক্রেতা জানান, ‘দাম একটু বেশিই। বেগুন, কাঁচামরিচের দাম একটু বেশিই মনে হচ্ছে।’
এক বিক্রেতা বলেন, ‘টমেটো, ধনিয়া পাতা, কাঁচামরিচ বর্ষার সিজনে এমনিতেই হয় না। ওই কয়েকটা আইটেমের একটু দাম বাড়তি। এছাড়া বাকি সবগুলো আইটেম ৪০-৫০ এর ভেতরেই আছে।’
উল্টো চিত্র মাছের বাজারে। ক্রেতাদের সবধরনের মাছের দাম কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা বাড়ার অভিযোগ থাকলেও অভিযোগ অস্বীকার বিক্রেতাদের। চিংড়ির মানভেদে ৫শ’ থেকে ৬শ’, রুই ৩৫০, মলা ৫০০, কাচকি ৫৫০, আর ৯০০ গ্রামের প্রতি হালি ইলিশ ২শ’ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে ৩২শ’ টাকায়।
এদিকে, সরবরাহ ভালো থাকায় দাম কমেছে ব্রয়লার ও পাকিস্তানি মুরগির। প্রতিটি পাকিস্তানি মুরগি মানভেদে ২শ' থেকে আড়ইশ আর ব্রয়লার বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা। আগের দামেই প্রতি কেজি খাসি ৭শ’ আর গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৪৮০ টাকায়।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম