Thu, 19 Jul, 2018
 
logo
 

দায়িত্ব এড়াতে পদোন্নতি চান না নারী শ্রমিকরা


নারায়ণগঞ্জ এলাকার একটি পোশাক কারখানায় ১০ বছর আগে কাজ শুরু করেন সেলিনা বেগম। কর্মজীবনের ছয় বছরের মাথায় সুইং অপারেটর থেকে সুপারভাইজর হওয়ার প্রস্তাব পান। যদিও সে প্রস্তাবে রাজি হননি তিনি। পারিবারিক কারণেই দায়িত্বটি এড়িয়ে যান সেলিনা।
শ্রমঘন পোশাক খাতের শ্রমিকের মধ্যে সেলিনার মতো নারীই বেশি।

যদিও এক দশক আগেও মোট শ্রমিকের ৮০ শতাংশের বেশি ছিলেন নারী। এখন তা ৬০-৬৫ শতাংশে নেমে এসেছে। নারীর সংখ্যাধিক্য এখনো টিকে থাকলেও শিল্পের শুরু থেকেই তাদের কর্মক্ষেত্র সীমাবদ্ধ ছিল কারখানার নিম্ন গ্রেডে সুইং অপারেটরসহ অন্য পদগুলোয়। পদোন্নতির মাধ্যমে সুপারভাইজর পদে নারীর অংশগ্রহণ দেখা যায়নি সেভাবে। এ ধারা অব্যাহত আছে এখনো।
ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশনের (আইএফসি) ‘কাটিং থ্রু দ্য ক্লথ সিলিং’ শীর্ষক সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দেখা গেছে, দায়িত্ব এড়াতেই পদোন্নতি চান না পোশাক খাতের অধিকাংশ নারী শ্রমিক। গড়ে দেশের ২০টি সুইং লাইনের মধ্যে ১৯টিতে সুপারভাইজর হিসেবে কাজ করছেন পুরুষ। যদিও প্রডাকশন লাইনের কর্মীদের ৮০ শতাংশই নারী। আর এর মূলে রয়েছে নারী শ্রমিকের দায়িত্ব এড়ানোর মানসিকতা।
আইএফসির সমীক্ষার আওতায় ছিলেন ২৮টি পোশাক কারখানার ১৪৪ জন নারী শ্রমিক। এর মধ্যে ৯২ জন নারী শ্রমিক সমীক্ষার আওতায় প্রশিক্ষণ কর্মসূচি সম্পন্ন করেন। প্রশিক্ষণ শেষে তাদের সবাইকে সুপারভাইজর পদে পদোন্নতির প্রস্তাব দেয়া হয়। এর মধ্যে ৫২ জন বা ৫৭ শতাংশ প্রস্তাব গ্রহণ করায় পদোন্নতি পান। বাকি ৪০ জন বা ৪৩ শতাংশ পদোন্নতি নিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এর কারণ জানতে চাইলে প্রায় অর্ধেকই অসুস্থতা বা গর্ভধারণের মতো স্বাস্থ্যগত কারণ উল্লেখ করেন। ২৮ শতাংশ পদোন্নতির পর অতিরিক্ত দায়িত্বের প্রতি তাদের আগ্রহের ঘাটতির কথা বলেন। এছাড়া ২০ শতাংশ উল্লেখ করেন নতুন দায়িত্বে পরিবারের অসহযোগিতার কথা।
তবে প্রশিক্ষণ নেননি তাদের বেশির ভাগই পদোন্নতি চাননি। অনেকেই জানান, উচ্চ পদে কাজ করার বিষয়ে পরিবারের আপত্তির কথা। সমীক্ষার আওতায় থাকা ১৪৪ জনের সবাইকে যখন পদোন্নতির প্রস্তাব দেয়া হয়, তখন ৩০ শতাংশ তা প্রত্যাখ্যান করেন। প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানকারীদের ৭৫ শতাংশই দায়িত্বটি তাদের পছন্দ নয় বলে জানান। অনেক বেশি সময় ধরে কাজের কথা জানান ১০ শতাংশ শ্রমিক। আর ৫ শতাংশ মনে করেন, কারখানা ব্যবস্থাপকরা নারীদের পদোন্নতি চান না। ৫ শতাংশ সুপারভাইজরের মতো পদে নারীদের ভূমিকা আছে বলে মনে করেন না।
জানতে চাইলে সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নাজমা আক্তার বণিক বার্তাকে বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে ভূমিকা কেবল নারী শ্রমিকের নয়। বরং পুরুষ নিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থাপনায় থাকা কর্তাব্যক্তিদেরও এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। নারীরা পদোন্নতি চান না আস্থার ঘাটতিতে। আর আস্থার ঘাটতি দূর করতে প্রশিক্ষণের প্রয়োজন আছে। আসলে দায়িত্ব এড়াতে নয়, বরং দায়িত্ব নিয়ে নারী শ্রমিকের সচেতনতার ঘাটতি আছে। পাশাপাশি পরিবারও এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে। সর্বোপরি নারীর ক্ষমতায়নে প্রশিক্ষণে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে মালিকপক্ষকে। কারণ উচ্চপদে নারী থাকলে উৎপাদনশীলতায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখা সম্ভব।
সমীক্ষার ভিত্তিতে তৈরি প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, যেসব কারখানায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারী সুপারভাইজর রয়েছেন, সেসব কারখানায় গড় উৎপাদনশীলতা ৫ শতাংশ বেড়েছে। পাশাপাশি হ্রাস পেয়েছে প্রডাকশন লাইনে অনুপস্থিতির হারও।
তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সিনিয়র সহ-সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, কাজের ব্যস্ততার কারণে পোশাক কারখানাগুলোয় নিজ উদ্যোগে এ ধরনের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি আয়োজন করা কঠিন। তার পরও প্রশিক্ষণের বিষয়ে মালিকপক্ষের আগ্রহ আগের চেয়ে বেড়েছে। তবে নারী শ্রমিকদের মধ্যেও সচেতনতার ঘাটতি রয়েছে।

সমীক্ষার আওতায় থাকা নারী শ্রমিকরা যেসব কারখানায় কাজ করেন সেগুলোর মধ্যে আছে— আধুনিক পোশাক শিল্প, এ কে এইচ নিটিং অ্যান্ড ডাইং, অনন্ত গার্মেন্টস, আরাবি ফ্যাশনস, বার্ড আরএনআর ফ্যাশন, বার্ড ফাডরেক্স, কলাম্বিয়া অ্যাপারেলস, কর্টজ অ্যাপারেল, ক্রিসেন্ট ফ্যাশন অ্যান্ড ডিজাইন, এসকোয়্যার নিট কমপোজিট, এসেনশিয়াল ক্লথিং, এসেস ফ্যাশন, ফকির ফ্যাশন, জেনেসিস ডেনিম, ইন্টরস্টফ অ্যাপারেল, জেকন গার্মেন্টস, জিন্নাত নিটওয়্যার, নিট এশিয়া, রাকুফ অ্যাপারেল ওয়াশিং অ্যান্ড প্যাকেজিং, সাফা সোয়েটার, শামস স্টাইলিং, সিনহা নিটওয়্যার, সাউথ ইস্ট টেক্সটাইল, স্প্যারো অ্যাপারেল, স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ, স্টার্লিং স্টাইল, দ্যাটস ইট গার্মেন্টস ও ভিনটেজ গার্মেন্টস।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম