Fri, 28 Apr, 2017
 
logo
 

না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়গঞ্জ: ষড় ঋতুর পালা বদলে দেশজুড়ে এখন চলছে শীতকাল। পিঠা-পুলি আর নানা রকম উৎসবে ঠাসা ঋতু শীতকাল। শীত এলেই সারাদেশেই জমজমাট হয়ে উঠে গরম কাপড়ের বাজার।

এই শীতে পুরো দেশের মতো নারায়ণগঞ্জেও জমে উঠেছে শীতকালীন পোশাকের বিকিকিনি।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
শীততের তীব্রতা যতো বাড়ছে ততোই বাড়ছে এখানকার শীতকালীন পোশাকের চাহিদা। নারায়ণগঞ্জে গরম কাপড়ের দোকানে মানুষের ভিড়ই জানান দিচ্ছে শীতের তীব্রতা এখন কতখানি? নগরীরর ফুটপাত থেকে শুরু করে হকার্স মার্কেট ও নামিদামি শপিংমল গুলোতে লক্ষ্য করা যাচ্ছে শীতকালীন পোশাকের জমজমাট বিকিকিনি।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
কুয়াশার চাদরে ঢাকা পরেছে ইট পাথরে ঘেরা নারায়ণগঞ্জসহ গ্রামবাংলা। শহরের শীত কিছুটা কম হলেও গ্রামীণ জনপদে বেড়েছে শীতের দাপট। একদিকে শীতকালীন সবজি অন্যদিকে শীতকালীন পোশাক। সব মিলিয়ে এখন নারায়ণগঞ্জে শীতের আবহ লক্ষণীয়।

শীতের প্রকোপ অনুভূত হওয়ার সাথে সাথে নারায়ণগঞ্জ নগরীর মার্কেট, বিপণনকেন্দ্রগুলোতে শীত বস্ত্র কেনাকাটাও চলছে পুরোদমে। হকার্স মার্কেট, ফুটপাতসহ সকল দোকানে দেখা মিলছে হরেক রকম শীত বস্ত্রের সমাহার। কয়েকটি মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে জমজমাট কেনাবেচার এ চিত্র।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
সরেজমিনে হকার্স মার্কেটের বেশ কিছু দোকান ঘুরে দেখা যায় শীতবস্ত্রতে ঠাঁসা। হকার্স মার্কেট ও ফুটপাতে সকাল থেকে রাত অবধি চলছে এসব পোশাক বেচাকেনা। বিক্রয়কর্মীরা ক্রেতাদের নজর কাড়তে দিচ্ছে নানারকম শ্লোগান।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
নারায়ণগঞ্জে হকার্স মার্কেট ও ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা শীতকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামের বিখ্যাত জহুর হকার্স মার্কেট থেকে বিদেশী শীতবস্ত্র আমদানি করেন। হকার্স মার্কেটের এক জন ব্যবসায়ী জানান, অন্য বছরের তুলনায় এবার ব্যাপক হারে শীতবস্ত্র আমদানি হয়েছে। এর পাশা পাশি নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার হোসিয়ারি থেকে তৈরি শীতের পোশাক বাজারে এসেছে।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
ছেলে-বুড়ো থেকে শুরু করে সব শ্রেনী-পেশার মানুষের পোশাক মিলছে দোকানগুলোতে। চাহিদা অনুযায়ী পচ্ছন্দের পোশাক ক্রয় করছে ক্রেতারা।

শীতের নতুন কাপড় বিগত বছরের তুলনায় এই বছর বিক্রি বেশী বলে জানান, নারায়ণগঞ্জের সমবায় মার্কেটের দোকানী আসমত মৃধা। তিনি বলেন, এবছর পৌষ মাসের শুরু থেকেই শীত থাকায় বিগত বছর গুলোর তুলনায় ক্রেতা বেশী আছে। ফলে গত সপ্তাহ থেকে  মার্কেটগুলোতে ক্রেতা সমাগম বেশি দেখা যাচ্ছে। শীত যত তীব্র হচ্ছে ততই বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়।

ফুটপাত থেকে শীতের কাপড় কিনতে এসে শাহা আলম বলেন, বিগত বছর গুলোর তুলোনায় এই বছর নানা ধরনের শীতবস্ত্র বাজারে এসেছে তবে মূল্য প্রায়ই দিগুন।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
ফুটপাতের দোকান গুলোতে নতুন ও পুরনো কাপড় নিয়ে দোকানীদের সাথে কথা বললে তারা জানান,  শীতে বাচ্চা, মহিলা ও বৃদ্ধদের কাপড় বিক্রিই বেশী। বাচ্চাদের পুরনো সোয়েটার ১’শ ২০টাকা থেকে ৪’শ ৫০টাকা, নতুন সোয়েটার ৪’শ টাকা থেকে ৮’শ টাকা, জ্যাকেট রেকসিন ৩’শ টাকা থেকে ৫’শ টাকা ও কাপড়ের জ্যাকেট ৩’শ ৫০ থেকে ৬’শ টাকা প্রকার ভেদে বিক্রয় হচ্ছে।

এ ছাড়া বাচ্চাদের কান টুপি ৮০টাকা থেকে ১’শ টাকা, হাত মুজা ৪০টাকা, কাপড়ের জুতা ১’শ টাকা বিক্রি করতে দেখা যায় দোকানীদের। ছেলেদের ব্লেজার গেঞ্জি ৩’শ ৫০ টাকা, হুটসহ কাপরের জ্যাকেট ৫’শ ৫০ থেকে ৮’শ টাকা, রেকসিন জ্যাকেট ৪’শ টাকা থেকে ১হাজার ৩’শ টাকা। মহিলাদের জন্য দেশী চাঁদর ৪’শ ৫০ থেকে ১হাজার ৫’শ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করেন।

মেয়েদের পুরনো কার্ডিগান ৪’শ টাকা থেকে ৬’শ ৫০ টাকা, সোয়েটার ৩’শ টাকা থেকে ৭’শ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। নতুন এই সব পোশাক আরো বেশি দামে বিক্রি হয়।
না’গঞ্জে শীতের প্রকোপ, বাড়ছে ‘শীতবস্ত্র’ বিকিকিনি
সমবায় মার্কেট নির্মাণাধীন বহুতল ভবনের সামনে ফুটপাতে দেশীয় ও বিদেশী ৫টি কম্বলের দোকান রয়েছে। এর মধ্যে দেশী পাতলা কম্বলের মূল্য ৩’শ ৫০টাকা থেকে ৪’শ ৫০টাকা, মোটা কম্বল ৪’শ থেকে ৭’শ টাকা। বিদেশী (চায়না) পাতলা কম্বলের মূল্য ৬’শ টাকা থেকে ৮’শ টাকা ও মোটা কম্বলের ৮’শ টাকা থেকে ১হাজার ৬’শ টাকা প্রকার ভেদে বিক্রি করে থাকে ফুটপাতের দোকানীরা।

নানান বয়সী মানুষ শীতের প্রকোপ মোকাবেলায় যার যার সাধ্যমত পছন্দের শীতের পোষাক কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ছে দোকানগুলোতে। একই সময়ে সকলের প্রয়োজনে জমজমাট নারায়ণগঞ্জের শীতের কাপড় বিক্রির দোকানগুলো।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪