Tue, 11 Dec, 2018
 
logo
 

নৌকার পথ বন্ধ, ফের নাগরিক ঐক্যে আকরাম

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের পদত্যাগী আহ্বায়ক এস এম আকরামের জন্য নৌকার পথ বন্ধ হয়ে গেছে। একারণে ফের নাগরিক ঐক্যে ফিরে গেছেন তিনি।

বেশ কিছুদিন চুপচাপ থাকার পর শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় জাতীয় ঐক্যের সমাবেশে মঞ্চে দেখা গেছে এস এম আকরামকে। জাতীয় ঐক্য, বিএনপি, জাসদ ও নাগরিক ঐক্যের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের পেছনেই মঞ্চে বসা ছিলেন এস এম আকরাম।

জানা গেছে, গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের ‘জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার’ সমাবেশে যোগ দিয়েছেন বিএনপি, খেলাফত মজলিস, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামসহ বিভিন্ন দলের নেতারা। শনিবার বিকাল ৩টার কিছু পরে রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে এ সমাবেশ শুরু হয়। মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ও সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মঈন খান। এছাড়া উপস্থিত আছেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, ঢাকসুর সাবেক সহসভাপতি সুলতান মনসুর আহমেদ, জাসদ (রব) সভাপতি আ স ম রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, তেল-গ্যাস রক্ষা জাতীয় কমিটির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এছাড়াও সমাবেশস্থলে উপস্থিত আছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বিপুল নেতাকর্মী। কার্যকর গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া এ নাগরিক সমাবেশ করছে। সূচনা বক্তব্যে ড. কামাল বলেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতেই তাদের এই ঐক্য প্রক্রিয়া।

এদিকে দীর্ঘ বিরতির পর এস এম আকরামকে ফের সরকার বিরোধী মোর্চার সঙ্গে দেখা যাওয়া প্রসঙ্গে জানতে এস এম আকরামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে এস এম আকরামের ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, নাগরিক ঐক্যে থেকে দূরে গিয়ে নৌকার অপেক্ষায় ছিলেন এস এম আকরাম। কিন্তু সরকারের শীর্ষ মহল থেকে কোন গ্রীন সিগনাল না পেয়ে ফিরে গেছেন জাতীয় ঐক্যে। এবার জাতীয় ঐক্য থেকেই ৫ আসনে মনোনয়ন পাবেন এস এম আকরাম। সূত্রটি আরও জানায়, ২০১৪ সালের ২৬ উপনির্বাচনে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে জিতেছিলেন এস এম আকরাম। কিন্তু প্রভাব খাটিয়ে তাকে পরাজিত করা হয়েছে। ৫ আসনে তার নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে। তাই জাতীয় ঐক্য থেকে প্রার্থী হয়ে ফের ৫ আসনে লড়বেন রাজনীতির ক্লীন ম্যান এস এম আকরাম।

জানা গেছে, ২০১১ সালের ৩০ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী শামীম ওসমানকে পরাজিত করে সিটি মেয়র নির্বাচিত হন বিদ্রোহী প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। ঐ নির্বাচনে ততকালীন জেলা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক এস এম আকরাম মেয়র আইভীর প্রধাণ নির্বাচনী এজেন্ট ছিলেন। নির্বাচনের পর আওয়ামীলীগ থেকে সেচ্ছায় পদত্যাগ করেন তিনি। এরপর দীর্ঘদিন দেখা না গেলেও হঠাত করে বর্তমান সরকারের কঠোর সমালোচক সাবে ডাকসুর ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্নার সঙ্গে নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা হিসেবে প্রকাশ্যে আসেন এস এম আকরাম। এরপর সরকার পতনের ষড়যন্ত্রের মোবাইল কথোকপনের রেকডিং আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে এলে দেশদ্রোহীতার মামলায় গ্রেফতার হন মাহমুদুর রহমান মান্না। এরপর চুপসে যান আকরাম। পরে জেলা থেকে মান্না জামিনে বেরিয়ে এলেও তার সঙ্গে আর দেখা যায়নি এস এম আকরামকে। সেসময় তিনি ফেইজবুক আইডি খুলে নৌকা মার্কার পক্ষে প্রচার প্রচারণা শুরু করেন। এতেকরে স্থানীয়ভাবে প্রচার চালানো হয় এস এম আকরাম ফের দলে ফিরছেন। সিটি মেয়র আইভীও এস এম আকরামকে ফের দলে আনার জন্য হাইকমান্ডে চেষ্টা চালিয়ে যান। এযাবত বিভিন্ন মিডিয়ায় আওয়ামলীগের যে তালিকা প্রকাশ হয়েছে তার প্রতিটিতেই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে এস এম আকরামের নাম এসেছে। ফলে অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন মহাজোট না থাকলে এস এম আকরামই হবেন ভবিষ্যত ৫ আসনের কান্ডারী। সেভাবেই আওয়ামলীগের একাংশ প্রচারণা চালিয়ে আসছিলো। সর্বশেস শনিবার ২২ (সেপ্টেম্বর) ড. কামাল হোসেনের আহ্বানে ঢাকায় সরকার বিরোধী দলগুলোর সমন্বয়ে জাতীয় ঐক্যের সভা আহ্বান করা হয়। বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ঐ সভায় যোগদান করে। সভামঞ্চের ২য় সারিতে জাতীয় নেতৃবৃন্দের পাশেই দেখা গেছে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক এমপি এস এম আকরামকে। ফলে সরকার বিরোধীদের জোটে আবারও প্রকাশ্যে এলেন নারায়ণগঞ্জের আলোচিত রাজনীতিক এস এম আকরাম।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম