Fri, 27 Apr, 2018
 
logo
 

রাজনীতি এখন ব্যবসানীতিতে রূপান্তরিত হয়েছে: শামীম ওসমান

লাইভ নারায়ণগঞ্জ:
আবারও রাজনীতির প্রতি চরম অনীহা প্রকাশ করলেন নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা ও ৪ আসনের সাংসদ এ কে এম শামীম ওসমান।
১৭ মার্চ (শনিবার) সরকারী তোলারাম কলেজে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দেয়ালচিত্র উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, রাজনীতিতে ভন্ডামী ভরে গেছে। দেশকে পঙ্গু করে দেয়ার জন্য জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়েছিল।

তারা মৃত্যুর পূর্বেও বলেছিলেন, আমরা শেখ মুজিবের লোক ছিলাম, আছি, থাকবো। দুঃখজনক হলেও সত্য কথা, আমাদের মধ্যে তেমন রাজনীতিবিদ আর নেই। রাজনীতি এখন ব্যবসানীতিতে রূপান্তরিত হয়ে গেছে। রাস্তা থেকে উঠে আসা রাজনীতিবিদ এখন ওইভাবে মুল্যায়িত হয় না। ভন্ডামী ভরে গেছে রাজনীতিতে। রাজনীতিতে এখন চটকদার লোক এসে গেছে। ভোটের আগে গরিবের পক্ষে কথা বলে, গরিবকে মা-বাপ ডেকে তার পা ধরে। আর ভোটের পরে গরিবের পেটে লাথি মারে। এমন অনেক মানুষ রাজনীতিতে চলে এসেছে। যা আপনারা নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন ঘটনায় দেখেছেন। সব ক্ষেত্রেই এমনটা দেখা যাচ্ছে। এই চটকদার, অতি তৈলবাজদের কারণে যেমন রাজনীতি নষ্ট হচ্ছে, সাংবাদিকতা নষ্ট হচ্ছে, শিক্ষাঙ্গনসহ প্রতিটা ক্ষেত্র নষ্ট হচ্ছে। এই সমাজ ব্যবস্থা পরিবর্তন করা আমাদের পক্ষে আর সম্ভব না।
সরকারি তোলারাম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর বেলা রানী সিংহের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, তোলারাম কলেজের উপাধ্যাক্ষ প্রফেসর শাহ্ আমিনুল ইসলাম, শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জীবন কৃষ্ণ মোদক, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, তোলারাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।
প্রধাণ অতিথির বক্তব্যে শামীম ওসমান আরও বলেন, আজকে আমাদের অনেক অর্জন। প্রথম অর্জন হচ্ছে, আজকে (১৭ মার্চ) আমরা জাতিসংঘ থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পত্র পেয়েছি। জাতির পিতার স্বপ্নের দেশ গঠন করছেন জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা। আরেকটি অর্জন হচ্ছে, শুক্রবার (১৬ মার্চ) বাংলাদেশের খেলায় এতো কারচুপির পরও বাংলাদেশ জিতেছে। বাংলাদেশের তরুণরা প্রমাণ করেছে দুই বল দরকার নাই, এক বলেই ছক্কা হবে। আমাদের এক বল এখনো হাতে আছে। বাংলাদেশ শুধু উন্নয়নশীল দেশ না, উন্নত দেশ হবে।

শামীম ওসমান বলেন, যেভাবে আমরা আগাচ্ছি, সেভাবে আগালে আমাদের বাংলাদেশের অর্থনীতি ৪১ সালের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার মতো ধনী দেশে রূপান্তরিত হবে। তার জন্য প্রয়োজন জ্ঞানার্জন। শামীম ভাই জিন্দাবাদ বললে জীবনে উন্নতি হবে না। জীবনে উন্নতির একটা কৌশল হচ্ছে, পিতা-মাতার প্রতি দায়িত্ব পালন করা। যে সন্তানের উপর মা ও বাবার দোয়া আছে, তাকে সৃষ্টিকর্তা ছাড়া কেউ ঠেকাতে পারবে না।
শিক্ষা ব্যবস্থার সমালোচনা করে তিনি বলেন, আজকে দুঃখজনকভাবে সত্য যে, প্রশ্নপত্র ফাঁস থেকেই পাশ হয়ে যায়। আবার পাশ মার্ক উত্তর না করেও ৩৪ নাম্বার পেয়ে যায়। এভাবে পড়ালেখা করে লাভ নাই। আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবো, এটাই হোক আজকের দিনে সবচেয়ে বড় শে¬াগান। তরুণরাই স্বপ্নটা পূরণ করতে পারো।
শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জে কিছু কাজ বাকি আছে। আমি এগুলো করবো ইনশাল্লাহ। মেডিকেল কলেজ আর একটা ইউনিভার্সিটি করতে পারলে নারায়ণগঞ্জের ছেলে মেয়েদের আর ঢাকায় যেতে হবে না। ইউনিভার্সিটি পারমিশনের জন্য এক বড়লোকের উপরে ভরসা করেছিলাম কিন্তু সে ছয় বছরেও করতে পারে নাই। আমি সাত দিনের মধ্যে পারমিশন এনে দিলাম। বড়লোক এখন আগায় না। এখন কি করি! মেডিকেল কলেজের কথা বলেছি। আমি আশা করি, মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে একটা সুযোগ নিবো। নারায়ণগঞ্জে মেডিকেল কলেজ হবেই। বিশ্ববিদ্যালয় একটা হয়ে গেলে তার চারপাশে কলেজ ও স্কুল হয়ে যায়। ভালো কলেজ, মেডিকেল কলেজ, ইউনিভার্সিটি হয়ে গেলে আর ঢাকায় যাওয়া লাগবে না। কারণ ঢাকার শহর আর বাসযোগ্য নাই। যে যেমনে পারছে জায়গা দখল করছে।
সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষকদের উদ্দেশ্য করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, এই তোলারাম কলেজেও শিক্ষকদের মধ্যে রাজনীতি ঢুকে গেছে। কেউ কেউ শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছেন। এটা হওয়া উচিত না। শিক্ষকের স্থান সবার উপরে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমার ৫ মিনিট সময় লাগে। কিন্তু ব্যবস্থা নেই না। এখানে অনেক শিক্ষকই আছেন, যারা আমার সাথে পড়েছেন আবার অনেকেই আমার ছোটভাই কিংবা ছোটবোন। এই কলেজটা যেভাবে হবার কথা ছিল তা হয়নি। কিন্তু এই অল্প পরিসরে যেটুকু করার ছিল তা আমরা করেছি। নারায়ণগঞ্জেরও যা পাওয়ার কথা ছিলো তা আমরা পাইনি। কিন্তু আমাদের পেতে হবে। এসব পাবার জন্য সাহসের প্রয়োজন। সেই সাহস এখন আর আমার নেই। এই ছাপ্পান্ন-সাতান্ন বছর বয়সে আর সাহস পাই না। আমরা কখনো প্রতিকূল স্থান থেকে নড়ি না। আমরা নারায়ণগঞ্জকেও দাড় করাতে চাই, দেশটাকেও দাড় করাতে চাই। তরুণ, যুবসমাজ তোমরাই পারো দেশটাকে ওই অবস্থানে পৌছে দিতে। পথ পরিষ্কার হবে না, মসৃন হবে না। নিজেকেই নিজের পথ মসৃন করতে হবে। সামনে একটা কঠিন সময় আসতেছে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম