Thu, 14 Dec, 2017
 
logo
 

এবার গিয়াস-শাহ আলম এক মামলায়

সোনারগাঁ করেসপন্ডেন্ট: বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ারসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে কাঁচপুর মোড়ে মঙ্গলবার দুপুরে সোনারগাঁ স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সালাউদ্দিন সালুর নেতৃত্বে মিছিলে পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্যসহ ৪জন আহত হয়।

এসময় দুটি ককটেলসহ দুই স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গতকাল বুধবার বিকেলে সোনারগাঁ থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) মনিরুজ্জামান বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। পরে গ্রেফতারকৃতদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা মামলা থেকে জানা যায়, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। প্রতিবাদে সোনারগাঁ থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সালাউদ্দিন সালুর নেতৃত্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম-মহাসড়কের কাঁচপুর মোড়ে মঙ্গলবার দুপুরে মিছিল বের করে। মিছিলে সোনারগাঁ থানা পুলিশ বাঁধা দিলে পুলিশের সঙ্গে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। মিছিল চলাকালে বিএনপির নেতাকর্মীরা ৪-৫টি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটায়। বিএনপির নেতাকর্মীদের ইটপাটকেলে সোনারগাঁ থানার এসআই মনিরুজ্জামান, কনস্টেবল আলমগীর ও ফয়সালসহ ৪ পুলিশ সদস্য আহত হয়। মিছিল থেকে দুটি লাল কসটেপে মোড়ানো ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় শাহজাহান ও সাখাওয়াত নামের দুই বিএনপি কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত শাহজাহান সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ী এলাকার মৃত তাহের আলীর ছেলে এবং সাখাওয়াত একই থানার কদমতলী গ্রামের ইউনুস মোল্লার ছেলে। দুজনেরই স্বেচ্ছাসেবক দলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

এদিকে এই মামলার আসামীরা হলো- নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিন, ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি শাহআলম, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক মাহাবুবুর রহমান, জালকুড়ি মাঝপাড়া এলাকার শাহজাহান মিয়া, আদমজী মধ্য কদমতলীর সাখায়াত হোসেন, কাঁচপুর সেনপাড়া এলাকার সালাউদ্দিন সালু, ফতেপুর দড়িকান্দির সাইফুল ইসলাম, কাঁচপুর পুরানবাজারের আলামিন, বাইশটেকের রফিকুল ইসলাম, চরলালের আশরাফ মোল্লা, গোয়ারদির রমজান সরকার, চেঙ্গাকান্দির আলী মুর্তজা, আমবাগের আবু সিদ্দিক, টেমদীর ফজলু, সাদীপুর উত্তরপাড়ার আমির হোসেন, নোয়াপুরের খন্দকার শিমুল, সনমান্দির জুয়েল, কাদিরগাও এলাকার রমজান, মিশ্রিপাড়ার কবির হোসেন, লেদামদীর আবু হানিফ, দত্তপাড়ার মোশারফ হোসেন, মনু মেম্বার, কৃষ্ণপুরার রফিক, টিপুরদীর মিঠু, মীর বহরের কান্দি এলাকার রানা, চেঙ্গাকান্দির হাশেম, ঘামোদরদী এলাকার মোতালেব, ফারুক, হাড়িয়া এলাকার সোহেল, সেনপাড়া এলাকার আমান, হামছাদী এলাকার দেলোয়ার, সফিউদ্দিন, সাতভাইয়াপাড়া এলাকার মোক্তার হোসেন মিন্টু, পঞ্চবটির তাইজুল ইসলাম সরকার, কাঁচপুর সেনপাড়া এলাকার আলআমিন, কাঁচপুর বিসিক খাসপাড়া এলাকার রনি, মঞ্জুরখোলা এলাকার মোমেন খান, সোনারগাঁ পৌরসভা এলাকার জিয়াউল ইসলাম চয়ন, নগর কাঁচপুর এলাকার আবেদ আলী মেম্বার, মামুরদী এলাকার রতন মিয়া, ফতেপুর এলাকার মিন্টু, সনমান্দি এলাকার হাসমত আলী, জাইদেরগাও এলাকার রূপচান, মসলন্দপুর এলাকার সেলিম, জয়রামপুর এলাকার সেন্টু, কাঁচপুর সোনাপুর এলাকার ফজল চেয়ারম্যানের পুত্র সেলিম, হানিফ, আপেল, কুতুবপুরের ডালিম, দৈলেরবাগ এলাকার শাহজাহান আলী মেম্বার, কাঁচপুরের আলমগীর বাদশা, কাঁচপুর দক্ষিণপাড়া এলাকার তানভীর প্রধান, ব্রাক্ষ্মনগাও এলাকার শুক্কুর আলী, দড়িকান্দি এলাকার মুশফিকুল ইসলাম মোহন, বাগবাড়িয়া এলাকার মোশারফ হোসেন, নানাখীর মঞ্জুর রহমান ও মোক্তার হোসেন টিটু, কাঁচপুর সেনপাড়া এলাকার হাবিবুর রহমান হবি, বারদী লাকপাড়া এলাকার কসাই রহমান, কুতুবপুরের কামাল হোসেন ও কাদের, গোবিন্দপুর এলাকার মজিবুর রহমান ভূইয়া, ভিটিপাড়া এলাকার আবু বক্কর, লক্ষ্মীপুরের আলআমিন, ভিটিপাড়ার টিন বাবুল, কাঁচপুর রায়েরটেকের শাহআলম, টিপুরদীর জাহের, আশ্রাব প্রধান, নয়াপুরের হাজী সেলিম, বস্তলের গোলজার হোসেন, সাদিপুরের রিপন শিকদার, বাড়ি মজলিশের মামুনুর রশিদ পাপ্পু, পিরোজপুরের জামান, কাঁচপুর খাসপাড়ার বাবুল, বাগপাড়ার আব্দুল আলী, ভারগাও কাজীপাড়ার আমানউল্লাহ, আন্দার মানিকের হানিফ, বারদী সেনপাড়ার নেহাল উদ্দিন মেম্বার, শহিদ, রিপন, আলআমিন, মীরেরটেকের লুৎফর রহমান মেম্বার, নানাখীর মোস্তফা, কাঁচপুর দক্ষিণপাড়ার সাইফুল, কলতাপাড়ার হালিম, কাইকারটেক এলাকার নজরুল ইসলাম টিটু, পশ্চিম বেহাকৈর এলাকার শহিদুল ইসলাম স্বপন, কাঁচপুর সোনাপুর এলাকার ফজল, আয়নাল হক, আমজাদ, মতিয়ার, আফজাল, সুমন, বেহাকৈর এলাকার হুমায়ন কবির, চর কামালদী দক্ষিণপাড়ার ওয়াজকুরনী, চৌরাপাড়া এলাকার নবী, নয়ামাটির রাহিম, কাজিপাড়া সাদিপুর এলাকার রাজিব, সাতভাইয়াপাড়া এলাকার নূর ইয়াসিন নেবেল সহ অজ্ঞাত আরো ৫০/৬০ জন।

সোনারগাঁ থানার ওসি (অপারেশন) সোয়েব খাঁন বলেন, কাঁচপুরে বিএনপির নেতাকর্মীরা আকস্মিকভাবে পুলিশের উপর আক্রমন করে পুলিশের সরকারী কাজে বাঁধা দেয়। তারা পুলিশের উপর ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। তাছাড়া ককটেল ফাটিয়ে আতংক সৃষ্টি করার কারনে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা নেওয়া হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম