Fri, 24 Mar, 2017
 
logo
 

তবে কী আইভী শামীমের দ্বন্দ্ব রয়েই গেল!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ : অনেকেই ভেবেছিলেন আইভীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যাবেন তিনি, কিন্তু যান নি। কেউ কেউ ধরে নিয়েছিলেন, ‘শপথে যান নি তো কি হয়েছে নিশ্চিত দায়িত্ব গ্রহণের দিন ঠিকই আসবেন’।

তাও এলেন না তিনি। তাহলে কি আইভীকে মুখে ‘ছোট বোন’ বললেও শামীম ওসমানের অন্তরে ভিন্ন কিছু! এমনই গুঞ্জন এখন নগরবাসীর মুখে মুখে।

গত ৫ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয় শাপলা হলে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ওসমান পরিবারের আরেক সদস্য সেলিম ওসমান উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না শামীম ওসমান। এর আগেও গত ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করতে গণভবনের গেলে সেখানেও অনুপস্থিত ছিলেন শামীম ওসমান।

২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রথমদিকে ওসমান পরিবারের সন্তান এমপি শামীম ওসমান ও তার কর্মী সমর্থকরা আইভীর পক্ষে ছিলেন না। নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী নির্ধারণ করার ব্যাপারে এমপি শামীম ওসমান আইভীর পরিবর্তে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নাম প্রস্তাব করেছিলেন। কিন্তু দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা শামীম ওসমানের সমর্থনকে উপেক্ষা করে সেলিনা হায়াৎ আইভীকে আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে সমর্থন দেন। পাশাপাশি শেখ হাসিনা শামীম ওসমানকে ডেকে নিয়ে আইভীর পক্ষে দৃঢ়ভাবে কাজ করারও নির্দেশ দেন।

ফলশ্রুতিতে এমপি শামীম ওসমান সংবাদ সম্মেলন করে তার নেতাকর্মীদের নিয়ে সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে কাজ করার ঘোষণা দেন এবং আইভীর জন্য শাড়ি কিনে ছোটবোন সম্বোধন করে সারা দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নত্তোর পর্বে তিনি আরো বলেছিলেন, আইভীর শাস্তি হিসেবে সবাইকে নিয়ে আইসক্রিম খাবেন।

এরপরও শামীম ওসমানকে নিয়ে সন্দেহ-সংশয় থেকেই যাচ্ছিল। তাই নির্বাচনে ভোট দিতে গিয়ে নৌকায় সিল মেরে ব্যালট বাক্সে জমা দেওয়ার আগে প্রকাশ্যে তা দেখিয়ে আবারও আলোচনায় আসেন তিনি। যার ফলে রাজনৈতিক কর্মীরা ধরে নিয়েছিলেন তাদের মাঝে ঐক্য ফিরে আসছে।  

কিন্তু নির্বাচন পরবর্তী পরিস্থিতিতে বোঝা যাচ্ছে তাদের মধ্যে ঐক্যর কোন সুবাতাস বইছে না। কারণ এখন পর্যন্ত তাদেরকে একত্রে এক টেবিলে বসতে দেখা যায়নি। এছাড়া নির্বাচনে পরে আইসক্রিম খাওয়ার ঘোষণা দিলেও এখন পর্যন্ত কোন খবর পাওয়া যায়নি। তবে জনসাধারণসহ রাজনৈতিক কর্মীরা ধারণা করেছিলেন হয়তো দায়িত্ব গ্রহণের দিন এমপি শামীম ওসমান আসবেন। কিন্তু এদিনও তিনি এলেন না। এদিকে ওইসকল গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে শামীম ওসমান উপস্থিত না থাকায় বিভিন্ন মহলে নানা মুখরোচক আলোচনা জমে উঠেছে।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে উত্তর মেরু আর দক্ষিণ মেরু হিসেবে পরিচিত দুটি ভাগে বিভক্ত রয়েছে। এর মধ্যে একটি মেরু বাম ঘরনার লোকদের সমর্থনে রাজনীতি করে থাকে অপরটি পুরোপুরি ডান না হলেও কিছুটা ডান রাজনীতিতে বিশ্বাসী। আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এ দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে আসছে। বিভিন্ন সময় প্রত্যক্ষভাবে ঐক্য হলেও পরোক্ষভাকে কখনোই এক হতে পারে নি। যার ফলে তাদের মাঝে প্রায় সময় অন্তকোন্দল লেগেই থাকে। তবে এ ব্যাপারে উত্তর মেরুর প্রভাবশালী নেতা হিসেবে পরিচিত এমপি শামীম ওসমান পজেটিভ থাকলেও দক্ষিণ মেরুর প্রভাবশালী নেতা মেয়র মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী সবসময় নেগেটিভ ছিলেন।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম ২৪