Wed, 15 Aug, 2018
 
logo
 

১৫ আগস্ট উপলক্ষ্যে বন্দর উপজেলা প্রশাসনের প্রস্তুতি সভা

বন্দর করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বন্দর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি মূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদের বিআরডিবি হলরুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিন্টু বেপারীর সভাপতিত্বে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের,সহকারী কর্মকর্তা(ভূমি) শাহিনা শবনম,বন্দর থানা অফিসার ইনচার্জ একেএম শাহীন মন্ডল,বন্দর থানা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার কাজী নাসির,বন্দর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম আশরাফুল আলম খান,বন্দর উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল,আনসার বিডিপি কর্মকর্তা দ্বীণ ইসলাম,বন্দর থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আ.ক.ম নুরুল আমিন,বন্দর থানা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফেরদৌস আরা বেগম,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আক্তার,বন্দর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল হাসান আরিফ,আলমচান মডেল স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল আহমদ মজহার,নাসিক ১৯,২০ ও ২১নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর শিউলী নওশাদ,বন্দর ইউপি চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহমেদ,ধামগর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদ,মুছাপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন,মদনপুর ইউপি চেয়ারম্যান গাজী আব্দুস সালাম,কলাগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধাণ,নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আঞ্জুমান আরা বেগম,সাধারণ সম্পাদক তথা সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলেয়া বেগম প্রমূখ।


বক্তারা বলেন,জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্ম না হলে বাংলাদেশ সৃষ্টি হতো না। ব্রিটিশ শোষকদের হাত থেকে আমরা রক্ষা পেলেও পাকিস্তান শাষক গোষ্ঠির শোষনের হাত থেকে আমরা মুক্তি পাইনি। বঙ্গবন্ধু ঘুমন্ত বাঙালিকে জাগ্রত করে মহান মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করেছিলেন। যার ফলে ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে লক্ষপ্রাণ ও মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ নামে একটি ভূখন্ড পেয়েছি। বঙ্গবন্ধু শুধু মাত্র স্বাধীনতার জন্যই দেশ স্বাধীন করেননি। তিনি চেয়েছিলেন সুখি সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ।

তারা বলেন, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে স্বাধীনতা পরাজিত শক্তিরা যে ষড়যন্ত্র শুরু করেছিলো,তা আজও বন্ধ হয়নি। এখনো তারা বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে নানা রকম চক্রান্ত করে যাচ্ছে। কিন্তু সকল ষড়যন্ত্রকে পদধুলিত করে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের এই অগ্রগতিকে থামিয়ে দিতেই জামায়াত,বিএনপি দেশে অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করছে।

আগামী ১৫ আগস্ট ইতিহাসের মহা নায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী। ১৫ আগস্টের জাতীয় শোক দিবস বন্দর উপজেলায় যথযোগ্য মর্যাদায় পালন করার আহ্বান করছি। পাশাপাশি যেহেতু এটি একটি জাতীয় দিবস সেহেতু প্রতিটি সরকারী প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখারও অনুরোধ করছি।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম