Fri, 17 Aug, 2018
 
logo
 

না.গঞ্জে শুরু হলো পলিয়েটিভ কেয়ার সেবা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নগরীর ২নং রেল গেটের আলী আহমদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে মমতাময় নারায়নগঞ্জ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার (১৮ জুলাই) এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

নিরাময় অযোগ্য জীবন সীমিত রোগে আক্রান্ত রোগীর জীবনের প্রান্তিক সময়টুকু ভোগান্তি বিহীন ,যন্ত্রনা বিহীন নিরাপদ করার লক্ষ চিকিৎসা সেবার যে জ্ঞান তাই প্যারিয়েটিভ কেয়ার নামে পরিচিত। ঢাকার বাইরে নারায়নগঞ্জ সিটি কপর্পোরেশনে আজ তার যাত্রা শুরু হলো । এটি একটি উল্লেখ যোগ্য অগ্রগতি ।

এই প্রথম ঢাকার বাইরে সিটি করপোরেশন এলাকায় আওতাধিন মানুষগুলোর জন্য এই সেবা কার্যক্রম ।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন‘র সহযোগিতায় ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং ওয়ার্ল্ডওয়াইড হসপিস প্যালিয়েটিভ কেয়ার এলায়েন্স ডবিøউএইচপিসিএ’র যৌথ উদ্যোগে তিন বছর ব্যাপি এই সেবা ও গবেষণা মূলক কার্যক্রম চালু থাকবে। এই প্রকল্পেরে অর্থায়ন করবে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক ।
আন্তর্জাতিক সংস্থা ইউকে এইড’ই প্রকল্পের উদ্দেশ্য নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকায় প্যালিয়েটিব কেয়ার সেবা প্রদান, বিশেষ ভাবে নারী ও শিশুদের এবং একটি সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ল্ডওয়াইড হসপিস প্যালিয়েটিভ কেয়ার এলায়েন্স ডবিøউএইচপিসিএ’র নির্বাহী পরিচালক স্টিফেন কনর এবং ওয়ার্ল্ডওয়াইড হসপিস প্যালিয়েটিভ কেয়ার এলায়েন্স (ডঐওচঈঅ ) প্রোগ্রাম ম্যানেজার র‌্যাচেল কসবি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ডা. কনক ক্রান্তি বড়ুয়া এবং সভাপতিত্ব করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভি ।

অতি সম্প্রতি প্রকাশিত ল্যানসেট কমিশনের রিপোর্ট অনুসারে পৃথিবী ব্যাপী ৬১.১ মিলিয়ন মানুষের প্যালিয়েটিভ কেয়ার প্রয়োজন হয় যার শতকরা ৯০ ভাগই এই সেবা পেতে ব্যর্থ হয়ে ব্যাথা বেদনা ও ভোগান্তিসহ মৃত্যু বরণ করে ।
৭২.৮৪ বর্গ কি.মি. আয়তনের নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২২ লক্ষ মানুষের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনসারে প্রায় ৭.৫ হাজার হতে ৮ হাজার লোকের প্রত্যÿভাবে প্যলিয়েটিভ কেয়ার প্রয়োজন । এরই সাথে পরোÿভাবে রোগীর পরিবার ও এই সেবার আওতায় আসতে পারে ।
সাধারণ পরিসংখ্যান অনুসারে বাংলাদেশের প্রায় ৬ লক্ষ মানুষের এই সেবা প্রয়োজন হয় । বর্তমানে অত্যন্ত সীমিত আকারে শুধু মাত্র ঢাকা কেন্দ্রিক অল্প সংখ্যক মানুষ প্যালিয়েটিভ সেবা পেয়ে থাকে ।

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম